আজকের দিনে



 

ছবির খাতা

জনতার ব্রিগেড

আরো ছবি

ভিডিও গ্যালারি

Video

শ্রদ্ধাঞ্জলি

রাজ্য

জাতীয়

আন্তর্জাতিক

কলকাতা

জেলা

খেলা

সম্পাদকীয়

 

শতবর্ষে শ্রদ্ধা

আপনার রায়

গরিবের পাশে থেকেছে বামফ্রন্টই

হ্যাঁ
না
জানি না
 

ই-পেপার

কৃষিও কৃষক

রাহুল মজুমদার১১ই, আগস্ট ২০১১
সর্বস্ব হারানোর আতঙ্ক থেকেই সোচ্চার হুঁশিয়ারি উঠলো —‘জি এম কৃষির পরীক্ষা চাষ বন্ধ হোক’। আগাম সচেতনতা নিয়েই কৃষিতে জিন বদলের প্রযুক্তিনির্ভর মার্কিন বীজ ও রাসায়নিক সংস্থার বিরুদ্ধেই এবার প্রচার আন্দোলন সংগঠিত করার ডাক দিলো সমাজ সচেতন সংস্থা, কৃষিবিজ্ঞানী, বিজ্ঞান পরিষদ, গবেষক সংস্থা, ক্ষেতমজুর সংগঠন ও সমাজের আরও নানা ক্ষেত্রের প্রতিনিধিত্বকারী সংগঠন। আগামী ৯ই থেকে ১৬ই আগস্ট গোটা দেশেই এই প্রচার কর্মসূচীনির্ভর জন-আন্দোলন ছড়িয়ে দেওয়ার প্রস্তুতি চলছে।...

>>>

ভাস্কর দাশগুপ্ত১১ই, আগস্ট ২০১১
অতিবর্ষণে রাজ্যের কয়েকটি জেলায় প্লাবনের আশঙ্কা তৈরি হলেও, এবার পর্যাপ্ত বৃষ্টি পেয়ে কিন্তু খুশি পুরুলিয়ার কৃষকরা। পাশাপাশি, গত দু’বছরের খরায় কৃষি দপ্তর পুরুলিয়ার কৃষকদের মধ্যে বিকল্প চাষের যে অভ্যাস গড়ে দিয়েছে, সেটা আর ছাড়তে রাজি নন পুরুলিয়ার কৃষকরা। ফলে এবার সু-বর্ষায় যেমন আমন ধানের চাষ হচ্ছে, তেমনই জেলার ডাঙা জমিগুলিতে লাগানো হয়েছে কলাই, অড়হর, ভুট্টা এসব ফসল। ভাদ্র মাসে লাগানো হবে ...

>>>

অনিল কুণ্ডু১১ই, আগস্ট ২০১১
প্রবল বর্ষণে দক্ষিণ ২৪পরগনা জেলা নামখানা, ক্যানিং, পাথরপ্রতিমা, সাগর সহ কয়েকটি ব্লকে ব্যাখপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। অতিবর্ষণে কৃষিজমিতে রোয়া ধান জলমগ্ন হয়েছে। নামখানা ব্লকের বুধাখালি, নারায়ণপুর, নামখানা, শিবরামপুর, হরিপুর, ফ্রেজারগঞ্জ, মৌসুনী অঞ্চল এলাকায় ক্ষয়ক্ষতি ব্যারপক হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। স্থানীয় কৃষিজীবী মানুষজনের কথায়, গত কয়েকদিনের টানা বর্ষায় অস্বাভাবিক বৃষ্টি হয়েছে। এর ফ‍‌লে কৃষকদের রোয়া ধান জলের তলায়।...

>>>

অনন্ত সাঁতরা১১ই, আগস্ট ২০১১
গত পাঁচদিনের বর্ষণে হুগলী জেলার মাঠে মাঠে জলের মাত্রা বাড়ছে। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ডি ভি সি-র ছাড়া জল। ফলে জেলার বহু জায়গা প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন করে। বুধবারও দফায় দফায় প্রবল বর্ষণ হওয়ায় পুকুর-ডোবা-খাল-বিল উপচে পড়েছে। জেলার বিভিন্ন ব্লকেই বিস্তীর্ণ আমন ধানের মাঠ জলের তলায় চলে গেছে। খানাকুল ২ নং ব্লকের জগৎপুর, মাড়োখানা, ধান্যঘোরি, চিংড়া প্রভৃতি গ্রাম পঞ্চায়েতগুলিতে জলের মাত্রা বাড়ছে।...

>>>

ষোড়শ চন্দ১১ই, আগস্ট ২০১১
চরম অনিশ্চয়তার মধ্যে কোচবিহার জেলার ‘জাতীয় খাদ্য সুরক্ষা প্রকল্প’। ২০০৭-০৮আর্থিক বছরে কোচবিহার জেলায় এই কেন্দ্রীয় প্রকল্পের সূচনা হয়েছিল। পশ্চিমবঙ্গের অন্যাপন্য জেলার বরাদ্দ অর্থ খরচের নিরিখে প্রথম ২-৩টি জেলার মধ্যেই রয়েছে কোচবিহার জেলার নাম। এই প্রকল্পটি বিগত ৩-৪ বছর ধরে জেলার কৃষকদের মধ্যে যথেষ্ট জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। কারন বিনামূল্যে ধান, গম ও ডালের প্রচুর প্রদর্শনী ক্ষেত্র এবং মিনিকিট ছাড়াও প্রতি কেজি ৫টাকা দরে ধান-গমের শংসিত উচ্চ ফলনশীল বীজ চাষীদের মধ্যে বিতরনের ব্যবস্থা রয়েছে এই প্রকল্পে।...

>>>

পৃষ্ঠা :  1 | 2 | 3 | 4 |