মন্দিরের গয়না চুরির
অভিযোগে বিক্ষোভ গ্রামবাসীদের

মন্দিরের গয়না চুরির <br> অভিযোগে বিক্ষোভ গ্রামবাসীদের
+

 গণশক্তির প্রতিবেদন: সাত সকালেই উত্তেজনা বীরভূমের চিনপাই গ্রামে। দুই কালি মন্দির থেকে বিপুল পরিমান সোনার গয়না চুরি যাওয়ার ঘটনাকে ঘিরে শুক্রবার সকাল থেকেই ক্ষোভের আঁচে ব্যাপক উত্তেজনা এলাকায়। চলছে গ্রামবাসীদের জাতীয় সড়ক অবরোধ। পুলিস এলে পুলিসকে ঘিরে ব্যাপক ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ক্ষুব্ধ গ্রামবাসীরা। জানা গেছে, চিনপাই এ রয়েছে বড় ও ছোট কালিমন্দির নামে দুটি কালিমন্দির। সেখানে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে রাত পর্যন্ত গ্রামের মানুষ উপস্থিত ছিলেন। হয়েছিল নানান সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন। গ্রামবাসীরা জানাচ্ছেন, রাত বারোটা পর্যন্ত মন্দির চত্বরে লোকজন ছিল। তারপর যে যার মত বাড়ি ফিরে যান। শুক্রবার ভোরবেলায় গ্রামের মানুষজন মন্দির দুটির সামনে যেতেই চমকে যান। দেখেন, দুটি মন্দির থেকেই বেমালুম উধাও হয়ে গিয়েছে সোনার সমস্ত গয়না। বিপুল পরিমাণ সোনার গয়না ছিল দুটি মন্দিরে বলে জানিয়েছেন গ্রামবাসীরা। এই খবর বিদ্যুতের মত ছড়িয়ে গ্রামে। সমস্ত মানুষ বেরিয়ে আসেন বাড়ি থেকে। ক্ষোভের পারদ চড়ে নিমেষে। পুলিস আসে। চলে বিক্ষোভ। অবিলম্বে এই ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তারের দাবিতে গ্রাম লাগোয়া জাতীয় সড়ক অবরোধে নেমেছেন গ্রামবাসীরা। মহিলারা বসে পড়েছেন রাস্তায়। টায়ার জ্বালিয়ে চলছে বিক্ষোভ প্রকাশ। সদাইপুর থানার অধীন এলাকায় মানুষের ক্ষোভের আঁচ বুঝে সিউড়ি থেকে বিরাট ফোর্স পৌছেছে এলাকায়। গ্রামবাসীরা ফেটে পড়েছেন পুলিসের ভূমিকায়। গ্রামবাসীদের অভিযোগ, প্রায় ১০০ ভরির মত গয়না চুরি গিয়েছে। গত রাতে পুলিসই বলেছিল মন্দর চত্বরে কারো থাকার দরকার নেই। পুলিস নিরাপত্তা দেবে মন্দিরের। দুজন সিভিক পুলিসকে রাখা হয়েছিল সেখানে। এদিন সকালে ওই দুই সিভিক পুলিসকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখান এলাকাবাসী। তাদের আরো অভিযোগ, থানার ওসিকে বারবার ফোন করা হলেও তিনি সাড়া দিয়েছেন দু ঘন্টা পরে। গ্রামবাসীরা সাফ জানিয়েছেন, ঘটনার হেস্তনেস্ত না হওয়া পর্যন্ত কেউ ক্ষান্ত হবেন না।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement