সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানে
আক্রমণ, মন্তব্য ইয়েচুরির

সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানে <br>  আক্রমণ, মন্তব্য ইয়েচুরির
+

 নিজস্ব প্রতিনিধি: নয়াদিল্লি, ১০ ডিসেম্বর- আর বি আই-র গভর্নরের ইস্তফা আরেকটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানের ওপরে মোদী সরকারের আক্রমণের ফসল। সোমবার কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের গভর্নর উর্জিত প্যাটেলের ইস্তফাকে এভাবেই চিহ্নিত করেছেন সি পি আই (এম)-র সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি। এদিন তিনি বলেন, একা হাতেই ভারতীয় অর্থনীতিকে ধ্বংস করেছেন মোদী। এবার হয়তো রিজার্ভ ব্যাঙ্কের সঞ্চয়ে হাত দেওয়া হবে। 

প্যাটেলের পূর্বসুরি রঘুরাম রাজন বলেছেন, এই ইস্তফায় সমস্ত ভারতীয়েরই উদ্বিগ্ন হওয়া উচিত। বিকাশ ও উন্নয়নের জন্য প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজন। প্যাটেল ইস্তফার মধ্যে দিয়ে একটি কথা বলেছেন। সকলেরই উচিত মন দিয়ে সে কথা উপলব্ধি করা। কেন এই অচলাবস্থা হলো তা খতিয়ে দেখা। 
কংগ্রেসের তরফ থেকে বলা হয়েছে, চৌকিদারের আক্রমণে আরেকটি গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানে বিপর্যয় হলো। গভর্নর বাধ্য হলেন পদত্যাগ করতে। অর্থনীতিতে নৈরাজ্য চলছে। রিজার্ভ ব্যাঙ্কের ভূমিকাকেও খর্ব করা হচ্ছে। প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদাম্বরম বলেছেন, কোনো আত্মমর্যাদাসম্পন্ন ব্যক্তিই এই সরকারের সঙ্গে কাজ করতে পারবেন না। 
প্যাটেলের ইস্তফার পরে অবশ্য তাঁকে প্রশংসায় ভরিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। টুইটারে মোদীর মন্তব্য, ‘প্যাটেল ব্যাঙ্কিং ব্যবস্থাকে নৈরাজ্য থেকে শৃঙ্খলসায় এনেছিলেন।’ তাহলে সরকার কেন আর বি আই-কে বেনজির ভাবে চিঠি দিলো, কেন কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের পদক্ষেপের বিরুদ্ধে দাঁড়ালো, কেনই বা প্যাটেল ইস্তফা দিতে বাধ্য হলেন, তার কোনো জবাব মেলেনি মোদীর কাছ থেকে। অরুণ জেটলিও বলেছেন, প্যাটেলের সঙ্গে কাজ করতে পেরে তিনি স্বস্তি অনুভব করেছেন। কিন্তু জেটলিরই প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে আর বি আই-তে শ্বাসরোধী পরিস্থিতি তৈরি করা হয়েছিল।  
 

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement