দেশদ্রোহিতার মামলায়
জামিন মঞ্জুর আসামে

দেশদ্রোহিতার মামলায় <br> জামিন মঞ্জুর আসামে
+

 বিশ্বজিৎ দাস,গুয়াহাটি , ১১ জানুয়ারি— আসামের বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবী ড.হীরেন গোঁহাইয়ের বিরুদ্ধে বিজেপি সরকারের দায়ের করা দেশদ্রোহিতার মামলায় জামিন মঞ্জুর করল গৌহাটি হাইকোর্ট। শুক্রবার বিচারপতি হিতেশ শর্মার এজলাসে জামিনের আবেদন করা হয়। এই আবেদনের ভিত্তিতে ড. গোঁহাইকে আগামী ২২ জানুয়ারি পর্যন্ত জামিন দেয় হাইকোর্ট। একই সঙ্গে বরিষ্ঠ সাংবাদিক মনজিৎ মোহন্ত ও সমাজ কর্মী অখিল গগৈরও জামিন মঞ্জুর করে আদালত। ১০ জানুয়ারি এই তিনজনের বিরুদ্ধে দেশদ্রোহিতার মামলা দায়ের করেছিল গুয়াহাটি মহানগরের পুলিশের ডিসিপি দীপক কুমার।

এদিকে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল বাতিলের দাবিতে গোটা রাজ্যে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন যখন তুঙ্গে, তখন সাম্প্রদায়িক বিভাজনের খেলায় নেমে পড়লেন বিজেপি র নেতা মন্ত্রীরা। শুক্রবার বিজেপি নেতা প্রদীপ দত্তরায় শিলচরে হুমকি দিয়ে বলেন, আসাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অসমিয়া ও মুসলিম পড়ুয়াদের বের করে দেওয়া হবে। তাঁর মন্তব্যের পরপরই বিশ্ববিদ্যালয় পাঠরত অসমিয়া ও মুসলিম পড়ুয়ারা ভয়ে সিঁটিয়ে আছেন ।গত বুধবার আসাম বিশ্ববিদ্যালয়ের এসএফআই ইউনিটের উদ্যোগে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল বাতিলের দাবিতে ধরনা কর্মসূচি পালিত হয়। এই প্রসঙ্গে বিজেপি নেতা শুক্রবার সাংবাদিক সম্মেলন করে অসমিয়া ও মুসলিম পড়ুয়াদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তাড়ানোর হুমকি দিয়েছেন। তাঁর হুমকির পর ক্যাম্পাসের ভেতরে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। নামানো হয়েছে পুলিশ ও আধা সামরিক বাহিনী। বিজেপি নেতার উসকানিমূলক মন্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে দত্তরায়কে গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছে এসএফআই সহ একাধিক ছাত্র সংগঠন। এসএফআই রাজ্য সভাপতি কাশ্যপ চৌধুরী বলেন, রাজ্যে অসমিয়া-বাঙালির মধ্যে জাতি দাঙ্গা বাধানোর ষড়যন্ত্র করছে বিজেপি। বিজেপি র এই ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে ছাত্র সমাজকে ঐক্যবদ্ধ লড়াইয়ে নামার আহ্বান জানিয়েছেন চৌধুরী।

রাজ্যের অর্থমন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মাও একই রকমভাবে সাম্প্রদায়িক মন্তব্য করে বলেছেন রাজ্যের বাঙালী মুসলিমরা অশান্তি সৃষ্টি করছে। এরকম একের পর এক সাম্প্রদায়িক মন্তব্য করে রাজ্যে শান্তি সম্প্রীতি বিনষ্ট করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে বিজেপি।

এদিকে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল বাতিল ও বুদ্ধিজীবীদের বিরুদ্ধে দেশদ্রোহিতার মামলা তুলে নেওয়ার দাবিতে শুক্রবার রাজ্যজুড়ে প্রতিবাদী কর্মসূচি পালন করে বিভিন্ন দল-সংগঠন। এদিন গোটা রাজ্যের আইনজীবীরা আদালতের কাজ বর্জন করে বিক্ষোভ-মিছিল সংঘটিত করেন। কটন বিশ্ববিদ্যালয় ও ডিব্রুগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা ক্লাস বয়কটের ডাক দিয়েছেন। রাজ্যের সব অংশের মানুষ কেন্দ্র ও রাজ্যের বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনে অংশ নিচ্ছেন।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement