তুষারপাতে ফের
বিচ্ছিন্ন কাশ্মীর

তুষারপাতে ফের <br> বিচ্ছিন্ন কাশ্মীর
+

 গণশক্তির প্রতিবেদন: শ্রীনগর, ১১ জানুয়ারি— বৃহস্পতিবার রাত থেকে ফের নতুন করে তুষারপাতে কাশ্মীরের পাহাড় সমতল সাদা আস্তরণে ঢাকা পড়ল। তার জেরে শুক্রবার ফের জম্মু-শ্রীনগর জাতীয় সড়ক বন্ধ হয়ে গেল। ফলে কাশ্মীর সড়কপথে ফের বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে দেশের বাকি অংশের সঙ্গে। আগামী ২৪ঘণ্টায় হালকা তুষারপাতের সম্ভাবনার কথা জানিয়েছে আবহাওয়া দপ্তর। বৃহস্পতিবার রাত থেকেই কাশ্মীর উপত্যকায় শুরু হয় তুষারপাত। শুক্রবার সকাল সাড়ে আটটা পর্যন্ত সাড়ে পাঁচ মিলিমিটার পুরু বরফ পড়েছে শ্রীনগরে। পহেলগামে ১১.৪মিলিমিটার, গুলমার্গে ৩.৪মিলিমিটার পুরু বরফ পড়েছে। প্রশাসনিক সূত্রে জানানো হয়েছে এদিন সকাল থেকে শ্রীনগর-জম্মু জাতীয় সড়কে যান চলাচল বন্ধ করে দিতে হয়েছে তুষারপাতের কারণে। তবে শ্রীনগর থেকে বিমান পরিষেবা এদিন স্বাভাবিক ছিল। এরমধ্যেই এদিন ভূকম্প অনুভূত হয়েছে জম্মু-কাশ্মীরে। চব্বিশ ঘণ্টার মধ্যে দুইবার কাঁপলো রাজ্য। এদিন সকাল সাড়ে আটটা নাগাদ কেঁপে ওঠে জম্মু-কাশ্মীর। রিখটার স্কেলের হিসাব অনুযায়ী ভূকম্পের মাত্রা ছিল ৩। বৃহস্পতিবারই ৪.৬ মাত্রার কম্পন অনুভূত হয়েছিল জম্মু-কাশ্মীরে।
নতুন করে তুষারপাতের জেরে সীমান্তের এলাকা কারনা, কেরান, মছিল এবং কুপওয়ারা জেলার অন্যান্য গ্রামগুলি বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। কেরান এবং থাঙ্গদারে যান চলাচল বন্ধ করে দিতে হয়েছে। একটানা তুষারপাতের জেরে শনিবার পর্যন্ত এই সব অঞ্চলে বন্ধ ছিল যান চলাচল। দুদিন আগেই যান চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়। শুক্রবার থেকে ফের বন্ধ করে দিতে হলো। নিয়ন্ত্রণ রেখায় থাকা বহু গ্রাম তখন থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। যানবাহন যাতায়াত করতে পারছে না পিচ্ছিল সড়কের কারণে। বৃহস্পতিবার রাতে শ্রীনগরের তাপমাত্রা ছিল মাইনাস এক ডিগ্রি। কাজিগুন্দেও তাপমাত্রা মাইনাস দেড় ডিগ্রি ছিল। কোকেরনাগের তাপমাত্রা মাইনাস দুই ডিগ্রির কম ছিল। কাশ্মীর এখন  চিল্লাই কালান  এর মধ্যে আছে। চল্লিশ দিন ধরে প্রবল শৈত্যপ্রবাহ, বরফ পড়ার সময়ই হল চিল্লাই কালান। ৩১জানুয়ারি পর্যন্ত এই অবস্থা চলবে। তবে চিল্লাই কালানের সময় পেরিয়ে গেলেও কাশ্মীরে শৈত্যপ্রবাহ অব্যাহত থাকে।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement