যুব বিশ্বকাপে জার্মানির
ভরসা জান ফিয়েতে

ডিফেন্ডার থেকে স্ট্রাইকার

যুব বিশ্বকাপে জার্মানির<br>ভরসা জান ফিয়েতে
+

গণশক্তির প্রতিবেদন :জার্মানি এখনো অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ জেতেনি। এই টুর্নামেন্ট থেকে উঠে এসেছে নতুন তারকা। সম্প্রতি টনি ক্রুজের কথাই ধরা যাক। বিশ্ব ফুটবলে তারকা হয়ে উঠেছেন টনি ক্রুজ। ২০০৭ সালে অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপের সেরা ফুটবলার হয়েছিলেন তিনি। আগামী ৬ই অক্টোবর থেকে শুরু ২০১৭ সালের অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ। ভারতের মাটিতে এই টুর্নামেন্টে জার্মানির তারকা হয়ে উঠতে পারেন জান ফিয়েতে। ৯ নম্বর জার্সির এই ফুটবলার প্রথম দিকে ছিলেন ডিফেন্ডার। বয়স মাত্র ১৭ হলেও ইতিমধ্যেই তাঁর উচ্চতা ৬ ফুট। উচ্চতায় লম্বা হওয়ার কারণেই শুরুর দিকে ডিফেন্ডার হিসেবে খেলানো হতো তাঁকে। পরে সেন্ট্রাল ফরোয়ার্ডে খেলা শুরু করেন। এক ম্যাচে ১৬টি গোল করার কৃতিত্বও রয়েছে ফিয়েতের।

ক্লাব ফুটবলে হামবুর্গের সঙ্গে চুক্তি রয়েছে জান ফিয়েতের। মরশুমের শুরুতে শোনা গিয়েছিলো চেলসির তরফে বড় অঙ্কের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিলো জান ফিয়েতেকে। প্রিমিয়ার লিগ ক্লাবের প্রস্তাবে সাড়া দেননি। হামবুর্গ আকাদেমিতে ফুটবল শিখেছেন। বড় প্রস্তাব পেয়েও চেলসিতে কেন গেলেন না? ফিফার ওয়েবসাইটে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ফিয়েতের সাফ উত্তর, ‘হামবুর্গই আমার ক্লাব।’ ফুটবল জীবন শুরু প্রসঙ্গে বলেন, ‘মাত্র চার বছর বয়সে এসভি ওয়ালস্টেডে ফুটবল খেলা শুরু করি। সেখানে আমার মেন্টর ছিলেন থমাস নাগেল। তিনিই ১০ বছর বয়সে আমাকে হামবুর্গে নিয়ে আসেন।’ লম্বা হওয়ার কারণে বাড়তি সুবিধা পান? ‘উঁচু বল ধরার লড়াইয়ে লম্বা হলে খানিকটা সুবিধা হয়। বেশিরভাগ সেন্ট্রাল ডিফেন্ডারই খাটো নয়। তারপরও বলবো, কিছুটা হলেও সুবিধা পেয়ে থাকি।’

হামবুর্গের অনূর্ধ্ব-১২ দলের হয়ে এক ম্যাচে ১৬ গোল করেছিলেন। দলের ২২-০ জয়ে ১৬টি গোল তাঁর একার। অনূর্ধ্ব-১৭ ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে মাত্র ১৩ মিনিটে হ্যাটট্রিক করে নজির গড়েছিলেন। খেলার মাঠে দু পায়েই সাবলীল। তিনি নিজে এমনটা বলতে নারাজ। বিনয়ী ফিয়েতের উত্তর, ‘দু পায়ের ফুটবলার এটা বলা ঠিক হবে না। এটা ঠিক, আমি বাঁ পায়েও খেলতে এবং গোল করতে পারি, আবার ডান পায়ের আউট স্টেপ ব্যবহারের ক্ষেত্রে স্বচ্ছন্দ বোধ করি।’

জার্মানি দলের ৯ নম্বর জার্সিতে খেলেন। চেয়েছিলেন ১০ নম্বর। ফিয়েতে বলেন, ‘ছোটো থেকেই এই জার্সি পরে খেলার স্বপ্ন দেখেছি। কারণটা সহজ। আমার গোল করা পছন্দ। সেটাই আমার কাজ। ১০ নম্বর জার্সি পরার ইচ্ছে ছিলো।’ বিশ্ব ফুটবলে অনেক ভালো স্ট্রাইকাররা রয়েছেন যাদের খেলা দেখে শেখা যায়। জান ফিয়েতের আদর্শ, টটেনহ্যাম হটস্পারের হ্যারি কেন। ফিয়েতের পরবর্তী লক্ষ্য, ভারতের মাটিতে আসন্ন বিশ্বকাপে সাফল্য পাওয়া।