অবসর রবেনদের
বিদায় চিলির

অবসর রবেনদের<br>বিদায় চিলির
+

গণশক্তির প্রতিবেদন: মেলালেন, তিনি মেলালেন। স্বপ্নকে মেলালেন, আশাকে মেলালেন। থামালেনও। সমালোচকদের থামালেন। অনেক নিন্দুক বলাবলি করছিলেন, বন্যেরা বনে সুন্দর, লিওনেল মেসি বার্সেলোনায়। তাঁদের খানিক থামিয়ে বার্তা দিলেন, লিওনেল মেসিদের জন্যই ফুটবল এতো সুন্দর, এতো নয়নাভিরাম। মেসি, রোনাল্ডোরা না খেললে সেই টুর্নামেন্ট সাবালক হয় না। হয়তো রাশিয়া বিশ্বকাপও পূর্ণাঙ্গ হতো না, যদি মেসির দেশ আর্জেন্টিনা, কিংবা ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর দেশ পর্তুগাল যোগ্যতা না পেতো। কিন্তু কথায় রয়েছে, ওস্তাদের মার শেষ রাতে, সেরকমই ফিনিক্স পাখির মতো জ্বলে উঠে লিওনেল মেসি প্রমাণ করলেন তিনি আছেন মেসিতেই, যতোই তাঁর সমালোচকরা বলুন তিনি দেশের হয়ে জ্বলে উঠতে পারেন না, তিনি কেবল বার্সাতেই ম্যাজিক দেখান।

মেসি তে আমো... স্প্যানিস এই কথার বাংলা অর্থ, মেসি তোমায় আমরা ভালোবাসি। বুয়েনস আয়ার্সের রাস্তায় মেসি নিয়ে জয়গান শুরু হয়ে গিয়েছে। রোজারিওর গ্রামে সদ্য জন্মানো শিশুপুত্রটির নাম যদি লিও মেসি রাখা হয় এই বিশেষ দিনে, অত্যুক্তি থাকবে না। তিনি এমন এক গ্রহের, যিনি পাহাড়সম চাপের মধ্যে পড়ে থেকেও নির্লিপ্ত থাকতে পারেন, কিন্তু ইকুয়েডরকে ৩-১গোলে উড়িয়ে নিজে হ্যাটট্রিক করে বাহুবলী কায়দায় এমনভাবে মুষ্টিটাকে দেখালেন, একটাই বার্তা, রাশিয়া বিশ্বকাপ না শেষমেশ ‘লিও কাপ’ হয়ে দাঁড়ায়। মেসি জ্বলে উঠলেন, রোনাল্ডোরও জাদু দেখলো বিশ্ব। তেমনি এবার যোগ্যতা পর্বে নিজের দল বিদায় নিতেই, দেশের হয়ে অবসর ঘোষণা করলেন নেদারল্যান্ডসের আর্জেন রবেন। চিলির ভিদাল, আলেক্সি স্যাঞ্জেজ। চিলি দুইবারের কোপা আমেরিকা চ্যাম্পিয়ন, কিন্তু তাদের সঙ্গে ব্রাজিলের ফুটবল মাঠে লড়াই সর্বজনবিদিত। সেই হিসেবে সাও পাওলোতে ব্রাজিল ৩-০গোলে উড়িয়ে দিয়েছে চিলিকে। ব্রাজিলের পক্ষে গোল দেন গ্র্যাবিয়েল জেসাস (২টি) ও পাউলিনহো। রোনাল্ডোর দল পর্তুগাল ২-০গোলে হারিয়েছে সুইজারল্যান্ডকে। রবেনের নেদারল্যান্ডস ২-০গোলে সুইডেনকে হারালেও পয়েন্টের ভিত্তিতে তাদের বিশ্বকাপে যোগদান ঘিরে অনিশ্চয়তা। তেমনি বিশ্বকাপে খেলা হচ্ছে না গ্যারেথ বেলের, তাঁর দল ওয়েসেলসও হেরেছে ০-১গোলে আয়ারল্যান্ডের কাছে।

বাকিদের ম্যাচ নিয়ে যাই ঘটুক, সকলের নজর ছিল লিও মেসির দিকে। এমনিতেই ইকুয়েডরের বিপক্ষে তাদের ঘরের মাঠ কুইটোতে মেসিরা খেলতে নেমেছিলেন নয় হাজার ফুট উচ্চতায়। শ্বাসজনিত সমস্যা উপেক্ষা করেও আর্জেন্টিনার জন্য সবদিক থেকেই তাৎপর্যবাহী। খেলা শুরুর ১ মিনিটেই পিছিয়ে পড়েছিল আর্জেন্টিনা। সেখান থেকে ২০ মিনিটের মধ্যে আর্জেন্টিনা ম্যাচে এগিয়ে যায় ২-১ ব্যবধানে। ১২ মিনিটে ডি মারিয়ার ক্রস থেকে গোল করে দলকে সমতায় ফেরান মেসি। এর ৮মিনিট পর দুর্দান্ত এক দৌড়ে মেসি প্রতিপক্ষকে নাস্তানাবুদ করে দেন। বাঁ প্রান্ত থেকে চকিত শটে মেসির গোলটি একঝলক টাটকা বাতাসের মতো।  ৩২ মিনিটে মেসির ডিফেন্স চেরা থ্রু থেকে জয়ের ব্যবধান ৩-১ করতে পারতো আর্জেন্টিনা, যদি ডি মারিয়া ব্যর্থ না হতেন। মেসির হ্যাটট্রিকের গোলটি দেখার মতোই। প্রায় ৪০ গজ দূর থেকে সতীর্থের পাস বুক দিয়ে নামালেন মেসি। সামনে ইকুয়েডরের তিন ডিফেন্ডার। তাঁদের দেহের দোলায় পরাস্ত করে গোলরক্ষকের মাথার ওপর দিয়ে তাঁর দুরন্ত গোল। দেশের জার্সিতে মেসির পঞ্চম হ্যাটট্রিক। সব মিলিয়ে জীবনের ৪৪তম হ্যাটট্রিক। চলতি বছর ক্লাব ও দেশের হয়ে মোট ৪৯ ম্যাচে তাঁর গোলসংখ্যাও ৪৯।

ড্র করলেও হয়তো বাদ পড়ে যেতে হবে, জিতলেও সরাসরি নিশ্চিত নয় বিশ্বকাপ—এমন কঠিন সমীকরণ ছিল আর্জেন্টিনার সামনে। তারমধ্যে অক্সিজেনজনিত সমস্যাকে ডিঙিয়ে মারাদোনার দেশের যোগদান সত্যিই এক অপূর্ব নিদর্শন। তারমধ্যে শুরুতেই পিছিয়ে পড়েছিলেন মেসিরা। ধারাভাষ্যকাররাও কাঁপছিলেন উত্তেজনায়। ১২মিনিটে জন্ম নিল প্রথম জাদুকরী মুহূর্তটি। ড্রিবল করে বল বাড়ালেন বাঁ প্রান্তে থাকা দি মারিয়ার দিকে। দারুণ বোঝাপড়ায় ওয়ান-টু। ডি মারিয়ার বাড়িয়ে দেওয়া বলে বক্সের ভেতর থেকে সেই চেনা বাঁ পায়ের শট। বল নিজেই জাল থেকে কুড়িয়ে বসালেন সেন্টারে। ২০ মিনিটে এবার মেসির একার জাদু। ইকুয়েডর ডিফেন্ডারের পা থেকে বল কেড়ে নিয়ে বক্সের বাঁ- প্রান্তে ঢুকে জোরালো কিন্তু মাপা শটে ক্রসবারের নিচ দিয়ে পাঠালেন জালে। ২-১! এগিয়ে থাকলেও স্বস্তিতে নেই আর্জেন্টিনা। অন্তত ২ গোলের লিড তো চাই। ৩২ মিনিটে দুর্দান্ত থ্রু। দি মারিয়া রক্ষণ ভেদ করে বেরিয়েও গোল করতে পারলেন না, সেই মেসিকেই গোল করে সতীর্থদের ব্যর্থতা আড়াল করতে হয়েছে।

 

ছয়টি কনফেডারেশনস থেকে মোট ৩১টি দল স্থান করে নেবে ২০১৮রাশিয়া বিশ্বকাপে। আয়োজক দেশ হিসেবে রাশিয়া স্থান পেয়েছে, ২৩টি দলের যোগদান নিশ্চিত, বাকি রয়েছে ৯টি দল। 

 

 

এশিয়া (এ এফ সি): ইরান, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া ও সৌদি আরব।

 

ইউরোপ (উয়েফা): বেলজিয়াম, ইংল্যান্ড, ফ্রান্স, জার্মানি, আইসল্যান্ড, পোল্যান্ড, পর্তুগাল, রাশিয়া, সার্বিয়া ও স্পেন।

 

আফ্রিকা (সি এ এফ): মিশর ও নাইজেরিয়া।

 

কনকাকাফ (উত্তর ও মধ্য আমেরিকা এবং ক্যারিবিয়ান): কোস্টারিকা, মেক্সিকো ও পানামা।

 

লাতিন আমেরিকা (কনমেবল): ব্রাজিল, উরুগুয়ে, আর্জেন্টিনা ও কলম্বিয়া।

Featured Posts

Advertisement