গোকুলামের কাছে
লজ্জার হার

মোহনবাগান ১ (ডিকা)– গোকুলাম এফ সি ২(আজমি, হেনরি)

গোকুলামের কাছে<br>লজ্জার হার
+

নিজস্ব প্রতিনিধি : কলকাতা, ১২ই ফেব্রুয়ারি — আক্রম মোগরাভির পরপর দুম্যাচে দুটো মিস। আর তাতেই শেষ হয়ে গেল মোহনবাগানের আই লিগের শেষ আশাটুকুও। 
চেন্নাই ম্যাচে পেনাল্টি মিস করে আক্রম ডুবিয়েছিলেন মোহনবাগানকে। আর সোমবার গোকুলামের বিরুদ্ধে ৬৩ মিনিটে এবারের আই লিগের সহজতম সুযোগ নষ্ট করলেন! অরিজিতের সেন্টার যখন তাঁর কাছে আসলো সামনে তখন অসহায় গোকুলাম গোলরক্ষক। আক্রম যেন গোলটা না করারই শপথ করেছিলেন। তাঁর পা থেকে বল ছিটকে চলে যায় গোলরক্ষকের কাছে। ফিরতি বল আবার পেয়ে যান আক্রম। আবার একটা দুর্বল শট। সেটা ক্রসবারে লেগে প্রতিহত হয়। সেই সঙ্গেই যেন শেষ হয় শংকরলালের দলের এবারের আই লিগ অভিযান। লিগ তালিকায় শেষ স্থানে থাকা গোকুলাম এফ সি-র কাছে ১-২ গোলে হেরে গেল মোহনবাগান। গোকুলামের হয়ে গোল আল আজমি এবং হেনরির। মোহনবাগানের গোলদাতা ডিপান্ডা ডিকা। এই হারের ফলে ১৪ম্যাচ খেলে ২১ পয়েন্টেই রইল মোহনবাগান। 
লিগ তালিকায় শেষ দলের বিরুদ্ধে ম্যাচ। জিততে পারলে আশার আলোটা জ্বালিয়ে রাখা যাবে। ভাবা গিয়েছিল প্রথম থেকেই হয়তো গোলের লক্ষ্যে ঝাঁপাবে মোহনবাগান। কিন্তু প্রথমার্ধে কিছুটা সময় ছাড়া গোকুলামকেই বড় দল মনে হলো। টানা আক্রমণ করে গেল কেরালার এই দল। অভিজ্ঞতার অভাবে মাঝমাঠে খেই হারিয়ে ফেললেও বেশ চাপে ফেলে দিয়েছিলো শংকরলাল চক্রবর্তীর দলকে। প্রথমার্ধের ৩৪ মিনিটের মাথায় অবশ্য পেনাল্টি পেতেই পারতো মোহনবাগান। ফৈয়াজকে বক্সের মধ্যে ফেলে দেন গোকুলামের প্রভাত লাকড়া। এই একটি ঘটনা ছাড়া প্রথমার্ধে মোহনবাগানের পক্ষে বলার মতো কোন ঘটনা নেই। 
দ্বিতীয়ার্ধে বরং কিছুটা খেলায় ফেরে মোহনবাগান। কিন্তু মোহনবাগানের গোল পেতে অন্তরায় হয়ে দাঁড়ান গোকুলাম গোলরক্ষক বিলাল খান। মহামেডানে খেলে যাওয়া দিল্লির এই গোলরক্ষক এদিন দুরন্ত ফুটবল খেলেন। আর অন্যদিকে ছিলেন আক্রম মোগরাভি। ডিপান্ডা ডিকা যখন নিজের ফর্ম খুঁজে পেয়েছেন, আক্রমের মধ্যে তখন প্লাজার ছায়া। একের পর এক গোল নষ্ট। তাঁকে তুলে নিতে বাধ্য হন শংকরলাল। ৭৬ মিনিটে হঠাৎই গোল পেয়ে যায় গোকুলাম। হেনরির পাস থেকে গোল করেন আল আজমি। তার দুমিনিটের মধ্যেই মোহনবাগানকে ম্যাচে ফেরান ডিকা। বিমলের মাপা ফ্লিক হেডে মাথা ছুঁইয়ে গোল করেন ডিকা। তারপর আর এগিয়ে যাওয়ার রাস্তা খুঁজে পাইনি মোহনবাগান। বরং ৯০ মিনিটে দুরন্ত গোলে গোকুলামকে আবার এগিয়ে দেন হেনরি। সংযুক্তি সময়ে ডিকার একটি শট ক্রসবারে লাগায় হার আটকাতে পারেনি মোহনবাগান। 
মোহনবাগান কোচ শংকরলাল চক্রবর্তী জানিয়েছেন, ‘আমরা আজ ভালো খেলতে পারিনি। তবে এখন প্রতি ম্যাচ নিয়ে ভাবা ছাড়া আমাদের উপায় নেই’। মুখে না স্বীকার করলেও লিগ যে শেষ, তা মোহনবাগান কোচের শরীরী ভাষাতেই পরিষ্কার। অন্যদিকে রেনিয়ার ফার্নান্ডেজ হঠাৎই অসুস্থ হওয়ায় তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। চেন্নাই ম্যাচে ভুল ফুটবলারকে লাল কার্ড দেখানো এবং দুটো লাল কার্ড দেখেও চেন্নাই ফুটবলার তারিফের মাঠে থেকে যাওয়া। এই বিষয়ের প্রতিবাদ করে ফেডারেশনকে চিঠি দিল মোহনবাগান। চেন্নাই ম্যাচের তিন পয়েন্টের দাবি জানানো হয়েছে এই চিঠিতে। 
মোহনবাগান : শিলটন, রিকি, রানা, কিংসলে, অরিজিৎ, নিখিল, ওয়াটসন (শিলটন), রেনিয়ার (সুরচন্দ্র,), ফৈয়াজ, ডিকা, আক্রম (বিমল)।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement