হামলার প্রতিবাদে
দৃপ্ত মিছিল দমদমে

হামলার প্রতিবাদে<br>দৃপ্ত মিছিল দমদমে
+

নিজস্ব প্রতিনিধি: কলকাতা, ১২ই ফেব্রুয়ারি — হামলা আক্রমণ যত বাড়বে, প্রতিবাদ-প্রতিরোধের ভাষাও তত তীব্রতর হবে। হুমকি আক্রমণ যতই থাকুক, গরিব, মেহমতি মানুষের স্বার্থে রাজ্যে গণতন্ত্র পুণরুদ্ধারের যে লড়াই বামপন্থীরা লড়ছে সেই লড়াই সংগ্রাম থেকে এক ইঞ্চিও সরবে না। রবিবার দমদম স্টেশন সংলগ্ন অঞ্চলে সি পি আই (এম) কর্মীদের উপর হামলার প্রতিবাদে মিছিল থেকে, শাসক তৃণমূলকে কার্যত এই চ্যালেঞ্জই ছুঁড়ে দিলেন সি পি আই (এম) কর্মী সমর্থকরা। 
এদিন মিছিলে উপস্থিত ছিলেন পার্টির কলকাতা জেলার সম্পাদক কল্লোল মজুমদার, পার্টিনেতা নিরঞ্জন চ্যাটার্জি, তন্ময় ভট্টাচার্য, রাজদেও গোয়ালা, কনীনিকা ঘোষ প্রমুখ।
রবিবার সি পি আই (এম) ২৪ তম রাজ্য সম্মেলন উপলক্ষে দমদম স্টেশনে প্রচার ও অর্থ সংগ্রহে শামিল হওয়া সি পি আই (এম) কর্মীদের উপর হামলা চালায় একদল তৃণমূলী দুষ্কৃতী। সেই ঘটনার প্রেক্ষিতেই সোমবার সি পি আই (এম) কাশীপুর-বেলগাছিয়া এরিয়া কমিটি ১, ২, ৩-এর মিলিত আহ্বানে এই প্রতিবাদ মিছিলের ডাক দেওয়া হয়। এদিন চিড়িয়ামোড় থেকে প্রতিবাদ মিছিল এগিয়েছে দমদম স্টেশনের দিকে। 
রবিবারের ঘটনায় এলাকার সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে ফুটপাতের দোকানদার সক‍‌লের মনেই একটা আতঙ্কের বাতাবরণ তৈরি হয়েছে। সোমবার সন্ধে বেলায় রাজপথ ধরে চলতে থাকা লালঝান্ডার দৃপ্ত প্রতিবাদ মিছিল যেন বাড়তি বল ভরসা জুগিয়েছে । তৃণমূলের হিংস্র আক্রমণে আহত হয়েছিলেন পার্টিকর্মী বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য, বরুণ দাস, টিঙ্কু আদক সহ বেশ কয়েকজন স্থানীয় মানুষজন। আক্রমণ যে তাঁদের লড়াই আন্দোলনের মনোবলকে এক চুলও টলাতে পারেনি তাও প্রত্যক্ষ করলেন ঐ মানুষজন। চোয়াল শক্ত করা আরও দুরন্ত জেদ ও সংকল্প নিয়েই এদিন আহত শরীরে মিছিলে হেঁটেছেন তাঁরা। প্রতিবাদ মিছিল থেকে রবিবার বেলেঘাটায় সম্মেলনের প্রচারে শামিল হওয়া সি পি আই (এম) কর্মীদের উপর হামলার তীব্র প্রতিবাদ জানান মিছি‍‌লে অংশগ্রহণকারীরা। প্রতিবাদ মিছিল দমদম স্টেশন চত্বরে পৌঁছালে এক সংক্ষিপ্ত সভায় বক্তব্য রাখেন কল্লোল মজুমদার, কনীনিকা ঘোষ, প্রদীপ দাশগুপ্ত প্রমুখ।
সভায় কল্লোল মজুমদার বলেন, রাজ্য সম্মেলনের জন্য প্রচার ও অর্থ সংগ্রহে নেমে মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত সাড়া পাচ্ছিলেন সি পি আই (এম) কর্মীরা। তৃণমূলের কাছে এটা আতঙ্কের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই হামলা, আক্রমণ, তবে এভাবে আক্রমণ চা‍লিয়ে মানুষকে বামপন্থার থেকে বিচ্ছিন্ন করে রাখা যাবে না। বামপন্থীদের মনোবলকে চিড় ধরানো যাবে না, বরং এই হামলা আক্রমণ যত বাড়বে লড়াই আন্দোলনের রংমশালকে আরও উজ্জ্বল শিখায় জ্বালিয়ে বামপন্থীরা এগবে।

Featured Posts

Advertisement