ইস্টবেঙ্গল কোচ খালিদই

ইস্টবেঙ্গল কোচ খালিদই
+

নিজস্ব প্রতিনিধি: কলকাতা, ১২ই মার্চ — সুপার কাপের জন্য ইস্টবেঙ্গল কোচ হিসাবে রেখে দেওয়া হলো খালিদ জামিলকে। সঙ্গে টেকনিক্যাল ডিরেক্টর হিসাবে জুড়ে দেওয়া হলো সুভাষ ভৌমিককে। ইস্টবেঙ্গল কর্তারা জানিয়েছেন সুভাষ ভৌমিক এবং খালিদ জামিল একইসঙ্গে ইস্টবেঙ্গলের দায়িত্ব সামলাবেন। কেউ কারোর অধীনে কাজ করবেন না। সুভাষ ভৌমিকের কোচিং লাইসেন্স নেই। তাই তাঁর নাম কোচ হিসাবে নয় টেকনিক্যাল ডিরেক্টর হিসাবে ঘোষণা করা হলো। ক্লাবের তরফে জানানো হয়েছে মনোরঞ্জন ভট্টাচার্য দলের সঙ্গে আর যুক্ত থাকছেন না। 
খালিদ জামিল কি ইস্টবেঙ্গল কোচ থাকবেন? আর থাকলেও কোন শর্তে? নেরোকা ম্যাচের পর থেকে এই প্রশ্নটাই ঘুরছিল ক্লাবের অন্দরমহলে। কর্তারা একাধিকবার চাপ দিয়েছেন খালিদকে পদত্যাগ করতে। কিন্তু তাতে খুব একটা লাভ হয়নি। খালিদ জামিল পদত্যাগ করেননি। বরং বলেছেন সুপার কাপে তিনি ইস্টবেঙ্গলে কোচিং করাতে চান। পরিষ্কার জানিয়ে দেন পদত্যাগ তিনি করবেন না।  এরপরই ঠিক হয় কর্মসমিতির বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। সোমবার বিকাল থেকেই ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের সামনে উৎসুক জনতার ভিড়। তাঁদের প্রায় সবারই দাবি খালিদ জামিলকে কোচের পদে রাখতে হবে। 
প্রায় সাড়ে তিন ঘন্টার ম্যারাথন বৈঠক। বাইরে অপেক্ষায় সাংবাদিক থেকে সমর্থক সবাই। ধৈর্যের বাঁধ ভাঙছিল। শেষ অবধি কর্তারা প্রায় রাত নটায় ঘোষণা করলেন কোচ থাকলেন খালিদই। সঙ্গে যুক্ত করা হলো সুভাষ ভৌমিককে। কর্তারা জানিয়েছেন, খালিদ জামিল একটি সুযোগ চেয়েছিলেন। তাই তাঁকে সেই সুযোগ দেওয়া হলো। ইস্টবেঙ্গল ক্লাবে সুভাষ ভৌমিকের পুরানো সাফল্য দেখেই তাঁকে ফিরিয়ে আনা হলো। কর্তারা জানিয়েছেন খালিদ ঠিক করবেন কবে থেকে সুপার কাপের অনুশীলন শুরু হবে। সোমবার রাতে সুভাষ ভৌমিক ঘনিষ্ট মহলে জানিয়েছেন, ইস্টবেঙ্গলের প্রস্তাব তিনি মেনে নিয়েছেন। সম্ভবত মঙ্গলবার ক্লাবে গিয়ে তিনি তাঁর দায়িত্ব বুঝে নেবেন।
সুভাষ ভৌমিককে টেকনিক্যাল ডিরেক্টর পদে বসানোর পর এখন প্রশ্ন খালিদ কি মেনে নেবেন? ইস্টবেঙ্গল শীর্ষকর্তা অবশ্য জানিয়েছেন, কেউ মেনে না নিলে সে চলে যেতে পারেন। খালিদ জামিল ফোনে জানালেন, ‘বিষয়টা আপনার মুখেই প্রথম শুনলাম। ক্লাব আমাকে কিছুই জানায়নি। তবে আমি ইস্টবেঙ্গলে কোচিং করাতে চাই বলেই এতো কিছুর পরও পদত্যাগ করিনি। আমার কারোর সঙ্গেই কাজ করতে কোনও অসুবিধা নেই। তবে আমার এটাও জানতে হবে আমার দায়িত্বটা আসলে কি!’ তবে খালিদ জানিয়েছেন প্রয়োজনে সুভাষ ভৌমিকের সঙ্গে প্রয়োজনে ফোনে কথা বলতে কোনও সমস্যা নেই। তবে ক্লাব সূত্রের খবর বৈঠকের পর খালিদকে ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু তাঁর ফোনে পাওয়া যায়নি। 

Featured Posts

Advertisement