বাঘের খোঁজে গিয়ে
দুই বনকর্মীর মৃত্যু

বাঘের খোঁজে গিয়ে<br>দুই বনকর্মীর মৃত্যু
+

নিজস্ব সংবাদদাতা: মেদিনীপুর, ১৩ই মার্চ— বাঘ তো ধরা পড়লই না, উপরন্তু মৃত্যু হলো বনদপ্তরের দুই কর্মীর। পশ্চিম মেদিনীপুরের গোয়ালতোড় ব্লক এলাকায় হামারগুড়ি জঙ্গলে এই ঘটনা ঘটেছে। বাঘের উপর নজরদারির দায়িত্ব ছিল যাঁদের উপর, তাঁদের মধ্যে ওই দুই বনকর্মীর মৃত্যু হয়েছে কিছুটা রহস্যজনকভাবেই। তবে এরজন্য বাঘকে সরাসরি দায়ী করা যাচ্ছে না। পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে অনুমান, গাড়ির মধ্যে দমবন্ধ হয়ে মারা গিয়েছেন নিরাপত্তাকর্মী দামোদর মুর্মু (৩৭) এবং গাড়ির চালক অমল চক্রবর্তী (২৮)।
গত সোমবার রাতে হামারগুড়ি জঙ্গলে ওই দুই বনকর্মীকে বাঘের উপর নজরদারির দায়িত্ব দেওয়া হয়। তাঁরা হাতি তাড়ানোর গাড়ি ঐরাবত নিয়ে সেখানে দায়িত্ব পালন করতে যান। গাড়ির জানালা ও দরজা বন্ধ করে বাতানুকূল যন্ত্র ও জেনারেটর চালু করে ভেতরে ছিলেন তাঁরা। মঙ্গলবার সকালে তাঁদের গাড়ির মধ্যে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। এদিন গাড়িটিকে নিস্তব্ধ দেখে সন্দেহ হয় গ্রামবাসীদের। অনেক ডাকাডাকির পরও সাড়া না মেলায় তাঁরা খবর দেন গোয়ালতোড় থানায়। ঘটনাস্থলে পুলিশ ও বনদপ্তরের কর্মীরা গিয়ে গাড়ি ভেঙে দেহ দুটি উদ্ধার করেন। পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে ধারণা করা হচ্ছে, গাড়ির ভেতরে ধোঁয়ায় দম বন্ধ হয়ে মারা গিয়েছেন ওই দুই কর্মী। মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে দেহ দুটি পাঠানো হয়েছে ময়নাতদন্তের জন্য। 
খবরে প্রকাশ, গত এক মাস ধরে পশ্চিম মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম ও বাঁকুড়ার জঙ্গল দাপিয়ে ক্রমাগত লুকোচুরি খেলে চলেছে একটি রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার। টোপ ফেলে ফাঁদ পাতা সত্ত্বেও ধরা দেওয়ার কোনও অভিপ্রায়ই নেই তার। বনদপ্তরের আধিকারিকদের মাথায় হাত। তাঁরা ভেবেই পাচ্ছেন না, বাঘ খাঁচার কাছে এসেও কেনও টোপ গিলছে না। গত ৩ দিন ধরে গোয়ালতোড়ের অমরাপোতা জঙ্গল সংলগ্ন সামরাইপুর, মহারাজপুর এবং হামালগোড়ায় মাঝে মাঝেই বাঘকে নিজের মনে ঘুরে বেড়াতে দেখেন স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে কয়েকজন। জঙ্গলের মধ্যে বিক্ষিপ্তভাবে পাওয়া যায় বাঘের ছাপ। ওইসব এলাকায়ও নতুন করে খাঁচা পাতা হয়েছে। 
এদিকে বাঘের আতঙ্কে ঘুম ছুটেছে বনদপ্তরের। আতঙ্ক ক্রমশ ছড়াচ্ছে গ্রামবাসীদের মধ্যে। আদিবাসীদের শিকার উৎসবেও তার প্রভাব পড়েছে। পালা করে পাহারা দিচ্ছেন গ্রামের মানুষ। বাঘ যে কোথায় কখন দেখা দেবে, কেউ জানেন না। বাঘের আচরণে হতবাক সবাই। বিস্ময় এই যে, খাঁচার আশপাশে ঘোরাঘুরি করলেও বাঘ টোপ ধরতে খাঁচার দিকে যাচ্ছে না। সি সি টিভি ক্যামেরায় ধরা পড়ছে, বাঘ খাঁচার আশপাশ দিয়ে ঘোরাঘুরি করছে। প্রশ্ন উঠছে, বাঘ কি তবে খাঁচার সঙ্গে পরিচিত আগে থেকেই। খাঁচা ব্যাপারটা যে কী, তা কি তবে জানে বাঘ!
দু’দিন আগেই জঙ্গলমহলের গোয়ালতোড়ে রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের আক্রমণে এক গ্রামবাসীর আহত হওয়ার খবর মিলেছে। ওই এলাকার হীরাসোল গ্রামের জয়রাম সোরেন নামে এক ব্যক্তি আহত হয়েছেন বাঘের থাবায়। তারপর থেকে মানুষ ঘরবন্দি হয়ে পড়েছেন আতঙ্কে, প্রায় বন্ধ রুটি রুজি। গত ৩রা মার্চ মেলখেড়িয়া গ্রামে সি সি টিভি ক্যামেরায় বাঘের অস্তিত্ব ধরা পড়ার পর থেকেই চলছে বাঘ ধরার তোড়জোড়। কিন্তু ধরা পড়েনি বাঘ। গত ৪-৫ দিন ধরে ড্রোন ব্যবহার করা হচ্ছে বাঘের খোঁজে। তারও অনেক আগে জঙ্গলের মধ্যে নানা পশু ও গবাদি পশুর ক্ষতবিক্ষত দেহ পাওয়া গিয়েছিল। গত এক মাস ধরে চলছে এই লুকোচুরি। বাঘ না ধরা পড়া পর্যন্ত শান্তি ফিরছে না জঙ্গলমহলে। 

Featured Posts

Advertisement