কর্ণাটকে ২২মন্ত্রী কংগ্রেসের
উপ মুখ্যমন্ত্রী পরমেশ্বর

শীর্ষ বিরোধী নেতাদের উপস্থিতিতে আজ শপথ 

কর্ণাটকে ২২মন্ত্রী কংগ্রেসের<br>উপ মুখ্যমন্ত্রী পরমেশ্বর
+

বেঙ্গালুরু, ২২শে মে — কুমারস্বামীর শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকছেন দেশের বিরোধী দলগুলির শীর্ষ নেতারা। বুধবার জে ডি (এস) নেতা কুমারস্বামীর শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে বেঙ্গালুরুর উদ্দেশে রওনা দিয়েছেন একঝাঁক নেতা-নেত্রীরা। সি পি আই (এম)-র সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি ও কেরালার মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। এই অনুষ্ঠানে হাজির থাকতে এদিন সন্ধ্যাতেই দিল্লি থেকে বেঙ্গালুরুর উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন সি পি আই’র সাধারণ সম্পাদক এস সুধাকর রেড্ডি, দলের জাতীয় সম্পাদক ও সাংসদ ডি রাজা।
ইতোমধ্যে বেঙ্গালুরুতে পৌঁছে গেছেন তেলেঙ্গানার মুখ্যন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাও। সরকারি সূত্র জানিয়েছে, তবে বুধবার একটি বিশেষ কাজে ব্যস্ত থাকায় চন্দ্রশেখর রাও শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত নাও থাকতে পারেন। এদিনই রাতেই তিনি বেঙ্গালুরু থেকে হায়দরাবাদের উদ্দেশ্যে রওনা দেবন বলে খবর। এদিন তাঁকে স্বাগত জানান জেডি (এস)’র শীর্ষ নেতা এবং প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী এইচ ডি দেবেগৌড়া। শপথ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে এদিন রাতেই শহরে পৌঁছে যাচ্ছেন বিএসপি নেত্রী ও উত্তর প্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মায়াবতী। এছাড়াও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি এবং দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল এদিন রাতেই বেঙ্গালুরুতে পৌঁছাবেন বলে খবর। 
কংগ্রেসের সভাপতি রাহুল গান্ধী, ইউ পি এ’র চেয়ারপার্সন সোনিয়া গান্ধী, অন্ধ্র প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী ও টিডিপি নেতা এন চন্দ্রবাবু নাইডু, উত্তর প্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ও সমাজবাদী পার্টির নেতা অখিলেশ যাদব, আরজেডি নেতা ও বিহারের বিরোধী দলনেতা তেজস্বী প্রসাদ যাদব, প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এবং আরএলডি নেতা অজিত সিং, পুদুচেরির মুখ্যমন্ত্রী ভি নারায়ণস্বামী বুধবারের অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন বলে জানা গেছে। তামিলনাডুর বিরোধী দলনেতা এবং ডিএমকে’র নেতা এম কে স্ট্যালিনের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও তুতিকোরিনের ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে তিনি বেঙ্গালুরুতে আসতে পারবেন না বলে জানা গেছে। তবে, সদ্য রাজনীতিতে পা দেওয়া বিশিষ্ট অভিনেতা কমল হাসান শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে থাকবেন। 
কর্ণাটকের বিধান সৌধ ভবনে বুধবার বিকাল সাড়ে চারটা নাগাদ শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান শুরু হবে বলে সরকারি সূত্র জানিয়েছে। এই অনুষ্ঠানকে ঘিরে তুমুল ব্যস্ততা সরকারি মহলে। শপথ অনুষ্ঠানে বিশাল জনসমাগম হবে বলে মনে করা হচ্ছে। বিশাল মঞ্চ তৈরির পাশাপাশি দর্শকদের বসার জন্য ৮০হাজার চেয়ার পাতা হচ্ছে। সমস্ত অনুষ্ঠান সরাসরি দেখানোর জন্য বসানো হচ্ছে বিশাল এলইডি স্ক্রিন।
এদিকে, জে ডি (এস) এবং কংগ্রেস জোট সরকারের মন্ত্রিসভা গঠন নিয়ে দু’দলের মধ্যে আলোচনা প্রায় চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছেছে। জোট সরকারের উপ মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন কংগ্রেসের জি পরমেশ্বর এবং বিধানসভার অধ্যক্ষ পদে বসছেন কংগ্রেস বিধায়ক রমেশ কুমার। এদিন সন্ধ্যায় বেঙ্গালুরুতে দুই দলের শীর্ষ নেতাদের বৈঠক থেকে এই মর্মে সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানা গেছে। এছাড়াও মন্ত্রীদের দপ্তর বন্টনের বিষয়টিও প্রায় চূড়ান্ত হয়েছে। ৩৪জনকে নিয়ে জোট সরকারের মন্ত্রিসভা গঠিত হবে। এর মধ্যে ২২জন কংগ্রেসের এবং ১২জন জে ডি (এস) থেকে মন্ত্রী হবেন বলে কংগ্রেসের নেতা কে সি ভেনুগোপাল জানিয়েছেন। এদিনই কুমারস্বামী সাংবাদিকদের কাছে জানিয়েছেন কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে আগামী ৫বছর জোট সরকার চালানো তাঁর জীবনের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। তিনি আশা প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে তাঁর দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করতে পারবেন। আগামী ২৪শে মে কুমারাস্বামীকে বিধানসভায় শক্তিপরীক্ষা দিতে হবে। ওই দিন জোট সরকারের আস্থা ভোট নেওয়ার নির্দেশ রাজ্যপাল দিয়েছেন বলে রাজভবন সূত্র জানিয়েছে।
এদিকে, কুমারস্বামীর মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেওয়া আটকাতে হিন্দু মহাসভার পিটিশনের দ্রুত শুনানি করতে রাজি হল না সুপ্রিম কোর্ট। সমস্ত জল্পনার শেষে কর্ণাটকের বিধানসভায় সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনে ব্যর্থ হওয়ায় মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে পদত্যাগ করতে বাধ্য হন বিজেপি নেতা বি এস ইয়েদুরাপ্পা। এরপরই কংগ্রেস এবং জে ডি (এস) জোট সরকারের মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে এইচ ডি কুমারস্বামীকে শপথ নিতে ডাকেন রাজ্যপাল বাজুভাই ভালা। মুখ্যমন্ত্রী পদে কুমারস্বামীকে শপথ গ্রহণের আমন্ত্রণ জানানোর যে সিদ্ধন্ত কর্ণাটকের রাজ্যপাল হিসাবে বাজুভাই ভালা নিয়েছিলেন তাকে ‘অসাংবিধানিক’ বলে আখ্যা দিয়েছে হিন্দু মহাসভা। এই মামলার দ্রুত শুনানি চেয়ে আবেদন করে এই উগ্র হিন্দুত্ববাদী সংগঠনটি। সুপ্রিম কোর্ট তাদের আবেদন খারিজ করে দিয়ে জানিয়েছে যথাসময়েই এই মামলার শুনানি হবে। 

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement