বিশ্বজয়ের নতুন গল্প
লিখতে চায় ফ্রান্স 

বিশ্বজয়ের নতুন গল্প<br>লিখতে চায় ফ্রান্স 
+

প্রশান্ত দাস: সেন্ট পিটার্সবার্গ, ১১ই জুলাই—   ম্যাচ শেষ হয়েছে অনেকক্ষণ। গ্যালারি প্রায় ফাঁকা। টেলিভিশন ক্যামেরাও বন্ধ। সার বেঁধে এসে দাঁড়িয়ে পড়লেন নিরাপত্তা রক্ষীরা। হুগো লরিস যে প্রান্তে ছিলেন, সেখানেই ভিড় বেশি। নিরাপত্তারক্ষীরা চাইছেন ফাঁকা করতে। কয়েকশো সমর্থক যেতেই চাইছেন না। তাঁদের উৎসব থামার নয়। 
দিদিয়ের দেশঁ আগেই মাঠ ছেড়েছিলেন। ফুটবলাররা মিলে ভিকট্রি ল্যাপ দিলেন । কোচকেও একবার এসে হাত নেড়ে যেতে হলো। বারো বছর পর আবার ফাইনালে পৌঁছেছে ফ্রান্স। সমর্থকদের এই দিনটাকে মাটি করতে চাইলেন না। ড্রেসিংরুমে ঢুকতে গিয়েও একবার ফিরে এলেন দেশঁ। হাত নেড়ে আবার রওনা হলেন।
  কুড়ি বছর আগে ফ্রান্সের বিশ্বকাপ জয়ী দলের সদস্য ছিলেন দেশঁ। তাঁর প্রশিক্ষণেই একঝাঁক তরুণ আবার বিশ্বকাপের ফাইনালে। চারদিকে কুড়ি বছর আগের চ্যাম্পিয়ন হওয়ার প্রসঙ্গই ঘুরে ফিরে আসছে। সেই দলের মতোই প্রতিভাধর। ম্যাচ শেষে যখন সাংবাদিক বৈঠকে এলেন, স্মিত মুখ। আবেগের বহিঃপ্রকাশ বিশেষ একটা বোঝা যায় না। ১৯৯৮-এর দলের সঙ্গে তুলনা টানতেই মুখে হাসি ফুটে গেল। তবে দুটি দলের তুলনা করতে রাজি নন। এমনকি নিজের বিশ্ব জয়ের কথাও বলতে চাননি তাঁর ফুটবলারদের। হাসি হাসিমুখেই শোনালেন, ‘আমি কখনো নিজের কথা বলিনি ওদের। কখনো না। সবাই জানে, কয়েকজন তো তখন জন্মও নেয়নি। কুড়ি বছর আগে কি হয়ে হয়েছিল সেই তুলনাও করব না। আমি এই ফুটবলারদের সঙ্গে নিজের গল্প লিখতে চাই, এই সময়ের সঙ্গে বাঁচতে চাই। অতীতে তাকিয়ে ভবিষ্যতে এগনো যায় না।’ 
৫১ মিনিটে কর্নারে মাথা ছুঁইয়ে স্যামুয়েল উমতিতির গোলে বেলজিয়ামকে হারানোর পরই ফরাসি সমর্থকরা ধরেই নিয়েছেন তাঁরা চ্যাম্পিয়ন হচ্ছেন। নিজের ইতিহাস নিজে লিখতে চাওয়া কোচের দাবি, ‘আমি এই ফুটবলারদের নিয়ে গর্বিত। যেরকম মানসিক দৃঢ়তা নিয়ে এগচ্ছে তাতে পাহাড় গুঁড়িয়ে দিতে পারে এরা। এরা এখনও তরুণ, আগামী দু-চার বছরে আরও পরিণত হবে। তবে এখন ফাইনালে, এতেই খুশি আমি। ফাইনালে পৌঁছাতে পেরেই আমি গর্বিত। এখন থেকেই নিজেদের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হয়ত বাড়তি বলা হয়ে যাবে। ফুটবলাররা নিজেদের এই মর্যাদার যোগ্য করে তুলেছে। আমাদের ভবিষ্যৎ যতটা পারবো সুন্দর করার চেষ্টাই করব।’ 
ফ্রান্সের মাঝমাঠের অন্যতম অস্ত্র পল পোগবা মিক্সড জোনে দাঁড়িয়ে ঝড়ের বেগে বললেন, ‘আমরা সবাই খুশি। কিন্তু এটা একটা পদক্ষেপ মাত্র। ইউরো কাপের ফাইনালেও আমরা পৌঁছেছিলাম, তাই এত তাড়াতাড়ি চ্যাম্পিয়ন বলতে পারব না। আরও একটা ম্যাচ বাকি, আমি শেষ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে চাই।’ পোগবা এই জয় উৎসর্গ করেছেন থাইল্যান্ডের গুহায় আটকে থেকে উদ্ধার হওয়া কিশোর ফুটবলারদের। পোগবার কথায়, ‘যেভাবে প্রতিকূল পরিবেশেও লড়াই চালিয়েছে তা শত কুর্নিশের ঊর্ধ্বে।’
ম্যাচ হেরে অবশ্য ফরাসি ফুটবল দলের সমালোচনায় মুখর হয়েছেন থিয়াবৌ কুর্তোয়া এবং ইডেন হ্যাজার্ড। স্টেডিয়াম ছাড়ার সময় কুর্তোয়া অভিযোগ করেন, ফ্রান্স কাউন্টার অ্যাটাক নির্ভর ফুটবল খেলেছে। রক্ষণে জমাট বেঁধে কাউন্টার অ্যাটাক করাকে ‘অ্যান্টি ফুটবল’ বলেই কটাক্ষ করেছেন কুর্তোয়া। বেলজিয়াম অধিনায়কও একই সুরে কাউন্টার অ্যাটাক নির্ভর ফুটবলকে তুলোধোনা করেছেন। যদিও সবশেষে স্বীকার করে নিয়েছেন, রক্ষণকে শুরু থেকেই আঁটোসাঁটো রাখতে পারার জন্যই ফ্রান্স এই সাফল্য পেয়েছে। 
আন্তোয়েন গ্রিজম্যানের প্রতিক্রিয়ায় বেলজিয়ামের অভিযোগ কিছুটা হলেও স্বীকৃতি পেয়েছে। গ্রিজম্যান বললেন, ‘একটি সেট পিস, একটি গোল। ম্যাচের বাকি সময় আমরা রক্ষণাত্মক। ঠিক যেমন অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদে খেলা হয়।’ বেলজিয়ামের ফুটবলারদের সমালোচনার জবাব সরাসরি দিতে চাননি পোগবা। শুধু বলেছেন, ‘ফুটবল মানে শুধুই আক্রমণ করা নয়। বেলজিয়াম ভালো দল। ফিফা তালিকায় তৃতীয় স্থানে। তাই এই জয় অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ ছিল।’
দুই বছরের ব্যবধানে দুটি ফাইনাল। ইউরো কাপে ঘরের মাঠে পর্তুগালের কাছে পরাজিত হওয়ার পর আবারও বিশ্বকাপের ফাইনাল। বেলজিয়ামকে হারানোর পর ফ্রান্সে যে উচ্ছ্বাসের স্ফুরণ হয়েছে সে সম্পর্কে ওয়াকিবহাল দেশঁ। ফুটবলাররাই ড্রেসিংরুমে তাঁকে এই ছবি দেখিয়েছেন। দেশবাসীর এই আনন্দ যাতে বজায় থাকে তার জন্যই চেষ্টা চালাবেন, দৃঢ়তার সঙ্গে জানালেন তিনি।
 বেলজিয়ামকে হারানোর টাটকা বাতাস ছড়িয়ে পড়েছে সেন্ট পিটার্সবার্গের রাস্তায়। বেলজিয়াম সমর্থকদের মন খারাপের রাত। এই বিশ্বকাপের অন্যতম ফেভারিট বলে চিহ্নিত দলের জয়যাত্রা স্তব্ধ হয়ে গেল। 

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement