বৃষ্টি এবং বিরাট বিপর্যয়

বৃষ্টি এবং বিরাট বিপর্যয়
+

লন্ডন, ১০ই আগস্ট— বল নড়লে, উইকেট পড়বে। ভারতীয় দলের ব্যাটসম্যানদের ক্ষেত্রে নতুন নয়। লর্ডস টেস্টে এমনটাই হলো। বৃষ্টির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চলল উইকেট পতন। একগুচ্ছ ক্যাচ মিসের পরও দিনের শেষে ১০৭ রানে সমাপ্ত ভারতের প্রথম ইনিংস। দলের সর্বোচ্চ রান এল অশ্বিনের ব্যাট থেকে। করলেন ২৯। ইংল্যান্ডের পেসার জেমস অ্যান্ডারসন ১৩.২ ওভারে মাত্র ২০ রান দিয়ে ৫ উইকেট নিলেন।
বৃষ্টিতে ভেস্তে গিয়েছিল প্রথম দিন। শুক্রবার সকাল থেকে রৌদ্রোজ্জল আকাশ হাসি ফুটিয়েছিল কোহলিদের মুখে। দীর্ঘস্থায়ী হলো না। টসে হারলেন কোহলি। প্রত্যাশিতভাবেই ব্যাট করতে হলো।
প্রথম টেস্ট হারের পর লর্ডসে দলে পরিবর্তন প্রত্যাশিত ছিল। কোহলি অধিনায়ক হওয়ার পর টানা দুম্যাচে অপরিবর্তিত একাদশ নামাননি। রেকর্ড অক্ষুণ্ণ থাকল। দলে জোড়া পরিবর্তন। উমেশ যাদবের পরিবর্তে কুলদীপ এবং ওপেনার শিখর ধাওয়ানের জায়গায় চেতেশ্বর পূজারাকে দলে ফেরানো হলো। ওপেনিংয়ে মুরলি বিজয়ের সঙ্গী লোকেশ রাহুল।
নতুন বলে হাড় হিম করলেন জেমস অ্যান্ডারসন এবং স্টুয়ার্ট ব্রড। উইকেটের জন্য খুব বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হলো না। পঞ্চম বলেই বোল্ড ওপেনার মুরলি বিজয়। দীর্ঘক্ষণ ধৈর্যের পরীক্ষা দিলেন চেতেশ্বর পূজারা। লোকেশ রাহুল ফিরলেন ১৪ বলে ৮ রান করে। কোহলি ক্রিজে এসে ধাতস্থ হওয়ার আগেই বৃষ্টি। মনসংযোগে ব্যাঘাত ঘটল কিছুক্ষণের মধ্যেই। অধিনায়কের সঙ্গে ফিটনেসে পাল্লা দিতে পারলেন না পূজারা। কোহলির ডাকে সাড়া দিয়ে রান নিতে দৌড়োন। মাঝপথে তাঁকে ফেরানোর আওয়াজ দেন কোহলি। ততক্ষণে অনেকটা দেরি হয়েছে। ২৫ বলে ১ রানে ফিরলেন পূজারা। হতাশ মুখে। দুবছর আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজে স্ট্রাইকরেট কম থাকায় বাদ পড়েছিলেন। সাম্প্রতিক ব্যর্থতার জেরে জায়গা হয়নি বার্মিংহাম টেস্টে। প্রত্যাবর্তনে ছাপ ফেলার সময়টুকুও পেলেন না। কোহলির সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে খালি হাতে ফিরতে হলো পূজারাকে। 
ভারতীয় শিবিরে ভরসা বলতে কোহলি এবং রাহানে। ইংল্যান্ডে গত সফরে লর্ডসে অনবদ্য শতরান করেছিলেন রাহান। এদিন ১১.৬ ওভারে ব্যক্তিগত ৫ রানে চতুর্থ স্লিপে রাহানের ক্যাচ মিস করেন ইংল্যান্ড অধিনায়ক জো রুট। বারবার বৃষ্টিতে খেলা থামলেও কোহলি-রাহানের মনসংযোগ নষ্ট করা যায়নি। অবশেষে ধৈর্যের বাধ ভাঙল দলীয় ৪৯ রানে। ক্রিস ওকসের আউট সুইং কোহলির ব্যাট ছুঁয়ে স্লিপে জোস বাটলারের হাতে। আগের বলেই কোহলির ক্যাচ নিতে ব্যর্থ হয়েছিলেন বাটলার। পরের বলেই স্বস্তি দিলেন দলকে। ৭০ মিনিট ক্রিজে কাটিয়ে ৫৭ বলে ২৩ রানে ফিরলেন অধিনায়ক।
টপ অর্ডারের মতো ব্যর্থ হার্দিক পান্ডিয়াও। কপিল দেবের সঙ্গে তুলনায় আসা হার্দিক এক বিন্দুও ভরসা দিতে ব্যর্থ দলকে। এশিয়ার বাইরে অভিষেক ম্যাচে ৯৫ বলে ৯৩ রানের ইনিংস খেলেছিলেন হার্দিক। এরপর আট ইনিংসে তাঁর সর্বোচ্চ স্কোর ৩১। লর্ডসের প্রথম ইনিংসে ১০ বলে ১১ রানে ফিরলেন হার্দিক। ভারতীয় শিবিরে সবচেয়ে বড় ধাক্কা রাহানের আউট। ৯৯ মিনিট ক্রিজে কাটিয়ে ৪৪ বলে ১৮ রানে আউট রাহানে। অশ্বিন যতটা সম্ভব রান তোলার চেষ্টা করলেন। একটা সময় মনে হয়েছিল একশোর গন্ডিও পেরোতে পারবে না ভারত। অশ্বিনের ৩৮ বলে ২৯ রান সেই আশঙ্কা দূর করল। ভারতের শেষ উইকেট হিসাবে ফিরলেন ঈশান্ত।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement