রাফালে দুর্নীতি নিয়ে সংসদের
ভেতরে-বাইরে সরব বিরোধীরা

রাফালে দুর্নীতি নিয়ে সংসদের<br>ভেতরে-বাইরে সরব বিরোধীরা
+

নিজস্ব প্রতিনিধি : নয়াদিল্লি, ১০ই আগস্ট— রাফালে জেট বিমান কেলেঙ্কারি নিয়ে শুক্রবার সংসদ প্রাঙ্গণে বিক্ষোভ শামিল হলেন বিরোধীরা। বাদল অধিবেশনের শেষদিনে রাফালে কেলেঙ্কারি নিয়ে কেন্দ্রের জবাব দাবি করে সংসদের ভিতরে ও বাইরে সরব ছিলেন তাঁরা। সংসদ চত্ত্বরে গান্ধীজির মূর্তির সামনে সকলে এদিন অবস্থান বিক্ষোভ শামিল হন। কংগ্রেসসহ সমস্ত বিরোধী দল এতে অংশ নেন। অবস্থানে কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী বলেন, দেশের  সর্ববৃহৎ আর্থিক কেলেঙ্কারির ঘটনা ঘটেছে। কেন্দ্রের মোদী সরকার এই বিমান কেনা নিয়ে কোনও কথাই সাধারণ মানুষকে জানাতে চাইছে না। তথ্য গোপন করতে চাইছে সরকার। বৃহস্পতিবারও সংসদে রাফালে নিয়ে কেন্দ্রের জবাব দাবি করেন বিরোধীরা। সরকারপক্ষ দুদিনই এনিয়ে কোনও জবাব দেয়নি। বিরোধী ছাড়াও বি জে পি-র প্রাক্তন মন্ত্রী অরুণ শৌরি ও যশবন্ত সিনহাও এদিন রাফালে জেটবিমান কেনা নিয়ে তদন্তের দাবি জানিয়েছে। তাঁদের দাবি, সি এ জি-কে দিয়ে এই বিমান কেনার তদন্ত করে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে তা প্রকাশ করা উচিত।
রাফালে জেটবিমান কেনায় অনিয়ম হয়েছে বলে এখন বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠেছে। এদিন রাহুল গান্ধী এই প্রসঙ্গে বলেন, জেটবিমানের দাম স্থির হয়েছিল ইউ পি এ সরকারের আমলে। ইউ পি এ সরকার এই বিমান কেনার দর দাম সবই প্রকাশ করেছে। প্রতিটি জেটবিমান ৫২৬কোটি টাকা দরে মোট ১২৬টি কেনার  সিদ্ধান্ত হয়েছিল। বিশ্বের বাজারে এটাই দর ছিল। তবে ইউ পি এ সরকার ক্ষমতা থেকে সরে যাওয়ায় সেসময় এনিয়ে চুক্তিতে সই হয়নি। এরপরে মোদী সরকার ক্ষমতায় এসে এই জেটবিমান কেনার চুক্তিতে সই করে। কিন্তু আশ্চর্যজনকভাবে দেখা যায় বিপুল বেশি দাম দিয়ে কেনা হচ্ছে সেই জেটবিমান। যা ৫২৬ কোটি টাকায় কেনা স্থির হয়েছিল তা প্রায় তিনগুণ দামে প্রতিটি ১হাজার ৬৭০ কোটি টাকায় কেনায় চুক্তি করেছে মোদী সরকার। তিনি আরও জানান, এই বিমান কেনার দায়িত্বে ছিল রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা হিন্দুস্থান অ্যারোনটিক্স লিমিটেড। কিন্তু  মোদী সরকার ইউ পি এ সরকারের চুক্তি বাতিল করে নতুন চুক্তি করে তাতে বিমানের দাম বাড়ানো হয় এবং রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাকে সরিয়ে একটি বেসরকারি সংস্থাকে এই বিমান কেনার দায়িত্ব দেয়। বেসরকারি সংস্থাকে বিপুল মুনাফা পাইয়ে দিতেই এই উদ্যোগ।  
এদিন রাজ্যসভা ও লোকসভাতে বিরোধীরা এই কেলেঙ্কারি তদন্তে যৌথ সংসদীয় কমিটি গঠনের দাবি জানায়। রাজ্যসভায় এই দাবিতে ওয়েলে নেমে বিক্ষোভ দেখান বিরোধীরা। এরফলে কয়েক দফা রাজ্যসভা মুলতুবি হয়ে যায়। লোকসভাও মুলতুবি হয়ে যায় কয়েক দফা। এদিকে বি জে পি-র প্রাক্তন মন্ত্রী যশবন্ত সিনহা, অরুণ শৌরি ও ‌আইনজীবী প্রশান্তভূষণ সাংবাদিক সম্মেলন করেই এই বিমান কেনায় বিশাল দুর্নীতি হয়েছে বলে অভিযোগ করেন। 

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement