জোড়া পদক জয়ের
দিনে হতাশা সুশীলে

জোড়া পদক জয়ের<br>দিনে হতাশা সুশীলে
+

জাকার্তা, ১৯শে আগস্ট— অষ্টাদশ এশিয়ান গেমসে শুটিংয়ের হাত ধরেই পদক তালিকায় খাতা খুলল ভারত। রবিবার সন্ধ্যায় কুস্তিগির বজরঙ পুনিয়ার সোনা জয়ের আগে মিক্সড টিম ইভেন্টে জেতা ব্রোঞ্জই ছিল ভারতের একমাত্র পদক। ১০ মিটার এয়ার রাইফেলে চাইনিজ তাইপেই ও চীনের পরই শেষ করে ভারত। অপূর্বী চাণ্ডেলা ও রবি কুমারের মিলিত পয়েন্ট ৪২৯.৯। এই বিভাগে চাইনিজ তাইপেই ৪৯৪.১ স্কোর করে এশিয়ান গেমসের নতুন ইতিহাস গড়ে। চীন ৪৯২.৫ পয়েন্ট নিয়ে রুপো জিতে শেষ করে।
অপূর্বী দেশকে প্রথম পদক এনে দেওয়ার পর জানান, ‘বিশ্বকাপে চতুর্থ স্থান পাওয়াটাই আমাদের সেরা ফলাফল ছিল। সেখান থেকে উন্নতি করেছি। এশিয়ান গেমসে এটাই প্রথম পদক এবং দেশের জন্যও প্রথম পদক। মূল নজর থাকবে সোমবারের ১০ মিটার রাইফেল ইভেন্টে।’ এলিমিনেশন পর্যায়ে দ্বিতীয় থাকার পরেও তিন নম্বরে নামার ব্যাপারে খুব হতাশ হন অপূর্বী। বললেন, ‘এটা শুটিংয়ে হয়েই থাকে। আমার মনে হয়, ঠিকঠাকই শট নিয়েছি।’ প্রথম দশটি শটের পর ভারতের পয়েন্ট ছিল ১০২.৯। ২০ শট শেষ হওয়ার পর ভারতকে টপকে দুইয়ে উঠে আসে চীন। সেই ব্যবধান আর কমাতে পারেননি অপূর্বী ও রবি কুমার।
দিনের সবচেয়ে বড় ধাক্কা ছিল সুশীল কুমারের যোগ্যতা অর্জন পর্বে হার। ৭৪ কেজি কুস্তিতে দুবারের অলিম্পিক পদকজয়ী হারলেন বাহরিনের অ্যাডাম বাতিরভের কাছে। যোগ্যতা অর্জন পর্যায়ে সুশীলকে ৫-৩ ব্যবধানে হারালেন বাহরিনের প্রতিপক্ষ। এই ইভেন্টে হেরে যাওয়ার পরও পদক জেতার সুযোগ ছিল ভারতীয় তারকা কুস্তিগিরের কাছে। রিপিশাজের মাধ্যমে। সেক্ষেত্রে তাঁকে হারানো বাতিরভকে ফাইনাল অবধি পৌঁছাতে হত। বাতিরভ কোয়ার্টার ফাইনালে জাপানের ফুজিনামা ইউয়িহির কাছে ২-৮ পয়েন্টে হারেন। সুশীল যোগ্যতা অর্জন পর্বের ম্যাচে বিরতিতে ২-১ পয়েন্টে এগিয়ে ছিলেন। তারপরই দুরন্ত কামব্যাক করেন বাতিরভ। ২০১২ লন্ডন অলিম্পিকের রুপোজয়ী দুটি ভালো সুযোগ কাজে লাগাতে ব্যর্থ হন। হারের পর সুশীল বলেন, ‘এই হার প্রত্যাশিত ছিল না। ৫৭ কেজি বিভাগের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন আমার পাশে বসেছিল। ও বলল যে হেরে গেছে। ওকে জানাই, আমিও হেরেছি। এটা খেলাধুলোরই অঙ্গ।’
এশিয়ান গেমসে নামার আগে জর্জিয়ার বিলিসি-তে অনুষ্ঠিত গ্রাঁ প্রি-তে নামেন। সেখানে হারার ফলে চার বছরে প্রথমবার কোনও বাউট হেরেছিলেন সুশীল। এপ্রিলে গোল্ড কোস্ট কমনওয়েলথ গেমসে সোনা জিতেছিলেন। তাতে অবশ্য এশিয়ার শক্তিধর দেশগুলির বেশিরভাগই থাকে না। সোনা জিততে বিশেষ বাধার মুখে পড়তে হয়নি।
সাঁতারে ২০০ মিটার বাটারফ্লাইয়ের ফাইনালে উঠে নজির গড়লেন সজন প্রকাশ। পদক জিততে না পারলেও ১৯৮৬ সালে খাজান সিংয়ের পর এই প্রথম কোনও ভারতীয় চূড়ান্ত পর্যায়ে অংশ নিলেন। যা দেশের কাছে বিরাট সম্মানের। কেরলের ইডুক্কিতে বাড়ি প্রকাশের। নজির গড়ার পড়েও জানেন না তাঁর পরিবার এখন ঠিক কোথায়। শনিবারই কেরালার ভয়াবহ বন্যার ব্যাপারে জানতে পারেন। পেরিয়ার নদীর কাছে যে বাঁধের জল ছাড়া হয়েছে, কাছাকাছিই বাড়ি এই সাঁতারুর। নিজের ইভেন্ট শেষ করে বললেন, ‘আমার পরিবার ঠিক কী অবস্থায় আছে তার কোনও খবর নেই ।’ সাঁতারে প্রথম দিন শ্রীহরি নটরাজ ১০০ মিটার ব্যাকস্ট্রোকের ফাইনালে উঠেছিলেন। সপ্তম স্থানে শেষে করেছেন নটরাজ।
কবাডিতেও দুরন্ত পারফরম্যান্স দিয়ে শুরু করেছে ভারতের মহিলা ও পুরুষ দল। ছেলেরা রবিবার প্রথম রাউন্ডে বাংলাদেশকে ৫০-২১ উড়িয়ে দেয়। দ্বিতীয় রাউন্ডে শ্রীলঙ্কাকেও ৪৪-২৮ ফলে অনায়াসে হারায় তারা। বাংলার পায়েল চৌধুরির নেতৃত্বাধীন দল জাপানকে ৪৩-১২ ফলে হারিয়েছে। সোমবার তাদের প্রতিপক্ষ থাইল্যান্ড। শুটিংয়ে মানু ভাকের ও অভিষেক বর্মার উপর দেশ তাকিয়েছিল অনেকটা। যদিও তাঁরা ১০মিটার এয়ার পিস্তল মিক্সড টিম ইভেন্টের চূড়ান্ত পর্যায়ের যোগ্যতা অর্জন করতে ব্যর্থ হন। শেষবেলায় ভারতীয় মেয়েরা হকিতে আয়োজক ইন্দোনেশিয়ার বিরুদ্ধে ৮-০ গোলে জেতে।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement