সবুজের সারি
এখন জলের তলায়

সবুজের সারি<br>এখন  জলের তলায়
+

চেঙ্গান্নুর, ২০শে আগস্ট— এর্নাকুলাম থেকে ট্রেন ছুটে চলছে তিরুবনন্তপুরমের দিকে। আগের মতোই। চার দিন চলেনি ট্রেন। রবিবার থেকে আবার এই লাইনে ছুটছে ট্রেন। কিন্তু বদলে গিয়েছে চারপাশ। সবুজের শোভা যেখানে চোখে আনত শান্তি, সেখানে শুধুই জল। যতদূর পর্যন্ত চোখ যাচ্ছে, যেন সমুদ্র। ছোট ছোট বাড়ি, সবুজ ধানখেত জলের তলায়। সারি সারি নারকেল গাছ যেখানে ছবির মতো সাজানো ছিল, সেখানেই বন্যার ধ্বংসাত্মক চিহ্ন। সংবাদ সংস্থা পি টি আই-র এক সংবাদদাতার চোখে ধরা পড়েছে সেই ছবি। ১১ দিনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ বদলে দিয়েছে গোটা রাজ্যের চিত্রই। 
এর্নাকুলাম থেকে ট্রেনে তেমন কেউ ওঠেননি। ট্রেন চেঙ্গান্নুরে স্টেশনে দাঁড়াতেই হুড়হুড় করে লোক উঠতে থাকেন। বন্যা বিধ্বস্ত চেঙ্গান্নুরের ঘর হারা মানুষজন কেউ যাচ্ছেন আত্মীয়ের বাড়ি, কেউ বন্ধুর কাছে। কোনওরকমে মাথা গোঁজার ঠাঁই খুঁজতে। ট্রেন তিরুবনন্তপুরমের দিকে চলতে থাকে। লাইনের দুপাশে শুধুই জল। যেন সমুদ্রের মধ্যে দিয়ে রেললাইন। তিরুবনন্তপুরমের দিকে যেতেই পন্দানদ এবং চেরিয়ানাদ— সরকারি সূত্রে পাওয়া খবর অনুযায়ী এখানকার ৯০ শতাংশ মানুষই সমস্ত সম্পত্তি হারিয়েছেন এই প্রাকৃতিক দুর্যোগে। আশ্রয় নিয়েছেন ত্রাণ শিবিরে। সেনাবাহিনী, জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী, স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবকদের সাহায্যে এই দুই এলাকার ৩০ হাজারেরও বেশি মানুষকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। ৬৫ জন মৎস্যজীবী ৮০টি নৌকার ব্যবস্থা করেন এই দুই এলাকার উদ্ধারকাজে। পাম্বা নদীর উপর দিয়ে গিয়েছে এই রেললাইন। নদীর প্রবল গর্জন এখনও যেন বিপদসংকেতই বয়ে আনছে। তবে গত দুদিনে কমেছে বৃষ্টি, নামছে বন্যার জলও। 
 

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement