শতচেষ্টার এক রোনাল্ডো

নিজস্ব প্রতিবেদন

৮ এপ্রিল, ২০১৮

ইউটিউবে একটু কষ্ট করে খুঁজতে হবে। একটা একটা করে অজস্র ভিডিও বেরিয়ে আসবে। যেখানে রোনাল্ডো বাইসাইকেল কিক নিতে চাইছেন। চেষ্টা করছেন। কিন্তু পারছেন না। প্রতিবারই ব্যর্থ। ২০১৩ সালে রিয়াল বেতিস, ২০১৪ তে এস্প্যানিওল, ২০১৫ তে শালকে, তারপর আলাভেস একের পর এক ম্যাচ। বছর বছর চেষ্টা চালিয়েছেন ব্যাক ভলিতে গোল করার।

একবার। শুধু একবার নিখুঁত শট নিয়েছেন। সঠিক সময়ে, সঠিক জায়গায় বল লেগেছে। গোল হয়েছে। আর তাতেই ধন্য ধন্য। এই চ্যাম্পিয়ন্স লিগের চলতি মরশুমের সেরা গোল। এই গোলের জন্যও প্রস্তুতি সেরেছিলেন ম্যাচের আগের দিন অনুশীলনে। তাঁর প্রতিভা সহজাত নয়। ঘণ্টার পর ঘণ্টা, দিনের পর দিন, মাসের পর মাস ধরে ঘষে ঘষে এজায়গায় এনেছেন নিজেকে। জুভেন্টাসের বিরুদ্ধে রিয়ালের জয়ের থেকেও বেশি আলোচ্য হয়ে দাঁড়িয়েছিল এই গোল। তারপরেও যদিও পরামর্শ দিয়েছেন কেউ কেউ, কিভাবে আরও নিখুঁত ব্যাক ভলি নেওয়া যায়! ৩৩ বছর বয়সে যখন অবসরের প্রহর গোনেন ফুটবলাররা, তখন চোখে লেগে থাকার মতো গোল নিঃসন্দেহে অনির্বাচনীয়। এই গোলের পরই দেখা যায় বিনম্র এক ফুটবলারকে। হাতজোড় করা। নমস্কার জানাচ্ছেন সমর্থকদের।

দীর্ঘ ফুটবল জীবনে কখনো এতটা ভালোবাসা পাননি। নিজের দলের সমর্থকদের সঙ্গেই সম্পর্ক তলানিতে থাকে। একটুতেই গ্যালারি থেকে দুয়ো উড়ে আসে। নিজেও মেজাজি। সাংবাদিকের প্রশ্ন শুনে তাঁর হাত থেকে মাইক্রোফোন নিয়ে জলে ছুঁড়ে ফেলে দিয়েছিলেন। তাঁর মুখে মথ বসা নিয়ে সত্তর লক্ষ টুইটার পোস্ট লেখা হয়েছে। সেখানে জুভেন্টাস গ্যালারি বিস্ময়ে দাঁড়িয়ে পড়েছে। হাততালি দিয়েছে। অসম্ভবকেই যেন সম্ভব করেছেন। পাঁচটি ব্যালন ডি’অর জয়ের পরই ক্রমশ হারিয়ে গিয়েছিলেন। এই একটি গোলই সমর্থকদের সঙ্গে অম্ল মধুর সম্পর্ককে ভালোবাসার স্পর্শ দিয়েছেন। এই খেলোয়াড়ি উত্তরণ এত সহজে হয়নি। স্পোর্টিং লিসবন থেকে ম্যাঞ্চেষ্টার ইউনাইটেডে যে আঠারো বছরের এক কিশোর ফুটবল জীবন শুরু করেছিল, এখন সে মহীরূহ। প্রতিষ্ঠান। অন্যদের থেকে সম্পূর্ণ আলাদা। কখনো ভালো তো কখনো খারাপ। কিন্তু ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো অনন্য।

ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর মাহাত্ম্য বোঝাতে গেলে, নিঃসন্দেহে লিওনেল মেসির নাম আসবেই। ব্যক্তিগত দক্ষতার দিক থেকে দুজনেই দুজনের পরিপূরক। একের প্রশংসা করলে, অপরের নাম উঠে আসবেই। আর একইসঙ্গে উঠে আসে দুজনের অহং—য়ের লড়াই। আর ইন্টারনেট জামানায় এই লড়াই আরও ফুলে ফেঁপে উঠেছে। কখনো সখনো এই বিবাদ সামনেও চলে আসে। আবার ব্যালন ডি’অর জয়ের মঞ্চে সে পার্থক্য ঘুঁচেও যায়। মাঠে যাঁরা সাপে-নেউলে, তাঁরা আবার একে অপরের সঙ্গে খোশ মেজাজে গল্পেও মাতে। প্রতিপক্ষ হোক বা সতীর্থ সকলেই এককথায় স্বীকার করে নেন, ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো সকলকে ভুল প্রমাণ করেন। মাঠে যত জারিজুরি সব তাঁর। রোনাল্ডোর আত্মবিশ্বাসকে তাঁর একগুয়েপনা ভেবে নেওয়া হয়। রেফারির ভুল সিদ্ধান্তে সরব হওয়া, ফ্রি কিক নেওয়ার জন্য ডাইভ দেওয়া তো কখনো কিছুটা আত্মসর্বস্ব, কিন্তু সতীর্থদের মধ্যে রোনাল্ডোর গ্রহণযোগ্যতা, তাঁর প্রতি আস্থা রোনাল্ডোকে আলাদা করে দেয়। মেসি প্রতিভাবান, তাঁর ফুটবল দক্ষতা জন্মগত। কিন্তু রোনাল্ডো ক্রমাগত অনুশীলন এবং কঠিন পরিশ্রম করে নিজেকে গোল মেশিনে পরিণত করেছেন। হয়তো স্মরণীয় মুহূর্ত উপহার দেন না অহরহ কিন্তু তাঁর অলরাউন্ড পারফরম্যান্স : ফিটনেস, গতি, শক্তি সব মিলিয়ে রোনাল্ডো এগিয়ে অন্যদের থেকে।

রোনাল্ডো আর সাধারণ নন। কম্পিউটার যুগের এক অতিমানবীয় চরিত্র। দৈহিক কসরতের খেলা ফুটবলেও, নব্বই মিনিট শেষে যাঁর মাথার একটি চুলও এদিক থেকে ওদিক হয় না। দেহের পেশির সঙ্গে জার্সি লেপটে থাকে; একটুও আলুথালু হয় না। মাঠে নায়কসুলভ মনোভাব। এই কারণেই রোনাল্ডোকে সহজে অন্যদের সঙ্গে মিলিয়ে দেওয়া যায় না। পরিশ্রম করে নিজেকে এই পর্যায়ে পৌঁছে দিয়েছেন।

মাঠে নব্বই মিনিট যেমন রোনাল্ডোকে নিয়ে কোনও প্রশ্ন করা যাবে না, তেমনই মাঠের বাইরের রোনাল্ডোকে নিয়েও কোনও কথা খাটে না। ২০১৫ সালের এক সমীক্ষা অনুযায়ী যে খেলোয়াড়রা সবচেয়ে বেশি দান করেন তাঁদের মধ্যে সবথেকে উপরে তিনি। কখনো দশবছরের খুদে সমর্থকের অস্ত্রোপচারের জন্য ৮৩ হাজার ডলার দান করছেন, আবার কখনো পর্তুগালের ক্যানসার হাসপাতালের জন্য ১লক্ষ ৬৫ হাজার ডলার দিচ্ছেন। এমনকি নেপালের ভূমিকম্প দুর্গতদের সাহায্য করার জন্য পঞ্চাশ লক্ষ পাউন্ড দান করেছেন। কোনও সমর্থককেই কখনো নিরাশ করতে দেখা যায়নি তাঁকে। তা সে জার্সি দেওয়া হোক বা অর্থ। কখনো সিরিয়ার যুদ্ধ বিধ্বস্ত শিশুদের জন্য শান্তির বার্তা ছড়িয়ে দেন।

এরকম হাজারটা ভালো মন্দে মিশিয়েই রোনাল্ডো। ফুটবলার হিসেবে ক্লাব পর্যায়ে সাফল্য পেয়েছেন। কিন্তু সর্বকালের সেরা ফুটবলারদের পঙক্তিতে স্থান পেতে হলে দেশের হয়ে অন্তত একটা ট্রফি জিততেই হয়। ইউরো কাপ জিতে সেই শর্তও পূরণ করেছেন। রোনাল্ডো তাই সেরাদের মধ্যেও আলাদা। মহানদের মধ্যে থেকেও অনন্য।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement