বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে নার্সের
সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক, অভিযুক্ত
ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক

নিজস্ব সংবাদদাতা

রামপুরহাট, ১৩ই সেপ্টেম্বর— প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রের এক নার্সের সাথে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রেখেও পরে তা অস্বীকার করার অভিযোগ উঠেছে ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিকের বিরুদ্ধে। নলহাটি ১নং ব্লকের স্বাস্থ্য আধিকারিক অনঘ ব্যানার্জির বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছেন ওই নার্স নিজেই। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে বিভাগীয় তদন্তও শুরু হয়েছে। বুধবার দুপুরে অভিযুক্ত ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিককে সপাটে চড় মারেন ওই নার্স। ভেঙে দেওয়া হয় স্বাস্থ্য আধিকারিকের গাড়ির কাচ। এমনটাই অভিযোগ উঠেছে ওই নার্সের বিরুদ্ধে। এদিন রামপুরহাট হাসপাতাল চত্বরে এই ঘটনায় রীতিমত তোলপাড় পড়ে যায়।

জানা গেছে, নলহাটি ১নং ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক অনঘ ব্যানার্জির বিরুদ্ধে কয়েকমাস আগে মারাত্মক অভিযোগটি আনেন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে কর্মরত ওই নার্স। গত জুলাই মাসে আবেদনের ভিত্তিতে অভিযোগকারিণী নার্সকে বদলি করে দেওয়া হয় অন্যত্র। বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দেয় ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ।

তদন্তের শুনানির জন্য অভিযোগকারিণী নার্স, তাঁর মা এবং অভিযুক্ত ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিককে এদিন রামপুরহাট জেলা হাসপাতালে ডেকে পাঠান জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ব্রজেশ্বর মজুমদার। অভিযোগকারিণী নার্সের মা জানিয়েছেন ‘‘সি আই ডি-বিশাখা কমিটির গাইডলাইন না মেনেই এই তদন্ত শুরু হয়েছিল বলে আমরা আপত্তি জানাই। কারণ নিয়ম অনুযায়ী তদন্ত কমিটির চেয়ারম্যান হতে হবে কোনও মহিলাকেই। কিন্তু এক্ষেত্রে চেয়ারম্যান হিসাবে তদন্ত শুরু করেছেন মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ব্রজেশ্বর মজুমদার। আপত্তি জানালে তদন্ত প্রক্রিয়া স্থগিত হয়ে যায়। এরপর যখন আমরা বাড়ি ফেরার জন্য হাসপাতাল থেকে বের হই তখন অভিযুক্ত ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক আমার মেয়ের উদ্দেশ্যে কটূক্তি করে। মেয়েও তার প্রতিবাদ করে। আমি মেয়েকে শান্ত করে সেখান থেকে নিয়ে চলে আসি। কাউকে কোনোরূপ শারীরিক হেনস্তা করা হয়নি।’’

যদিও ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক অনঘ ব্যানার্জি মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকের কাছে তাঁকে মারধর ও গাড়ির কাচ ভেঙে দেওয়ার অভিযোগ জানিয়েছেন।