বর্ধমানে ধৃত দুই
ভুয়ো চিকিৎসক

নিজস্ব সংবাদদাতা

বর্ধমান, ১৩ই সেপ্টেম্বর — দুই ভুয়ো চিকিৎসককে গ্রেপ্তার করেছে বর্ধমান থানার পুলিশ। ধৃতদের নাম সুকান্ত সাহা ও দীপেশকুমার দীপক। ধৃতদের মধ্যে প্রথম জনের বাড়ি বর্ধমান শহরের লাকুড্ডি এলাকায়, অন্যজনের বাড়ি লক্ষ্মীপুর মাঠ। পুলিশ দাবি করেছে মঙ্গলবার রাতে বাড়ি থেকে এদের গ্রেপ্তার করেছে। ভুয়ো ডাক্তার পরিচয় দিয়ে অবৈধ চিকিৎসার কথা ধৃতরা স্বীকার করেছে বলে পুলিশ এদিন দাবি করে। কলকাতার একটি সংস্থা থেকে অল্টারনেটিভ মেডিসিনের ডিপ্লোমা করেছে বলে ধৃতদের কাছে জেরা করে জেনেছে পুলিশ। বুধবার ধৃতদের বর্ধমান আদালতে তোলা হলে বিচারপতি তদন্তের প্রয়োজনে ৫দিনের পুলিশি হেপাজতের নির্দেশ দেন। ভুয়ো চিকিৎসক নিয়ে রাজ্যে তোলপাড় হবার পর বর্ধমানের কয়েকজন চিকিৎসক চেম্বার বন্ধ করে গা ঢাকা দেয়। স্বাস্থদপ্তর কয়েকজনের বিরুদ্ধে তদন্তে নামে। সেই তদন্ত থেকেই ৫জন ব্যক্তির নাম পেয়ে যায়। সুকান্ত, দীপেশ, সুদীপ্তকুমার দে, শংকর বিশ্বাস, ও মণিমোহন শিকদারের প্রাইভেট প্রাকটিশ সম্পর্কে খোঁজখবর শুরু করে স্বাস্থ্যদপ্তর। শিক্ষা ও মেডিক্যাল যোগ্যতা সম্পর্কে জানতে চাইলে দেখা যায় এই ভুয়ো চিকিৎসকরা কেউ এইট পাশ কেউ বা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক। এরা সকলেই প্রায় কলকাতার একটি ভুয়ো সংস্থা থেকে জাল এম বি বি এস, এম ডি ডিগ্রি নিয়ে চিকিৎসা করছিল। সি এম ও এইচের তদন্তের ভিত্তিতে ৫ ভুয়ো চিকিৎসকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে স্বাস্থ্যদপ্তর। তার ভিত্তিতে পুলিশ তদন্তে নেমেছে। ২জন গ্রেপ্তার হলেও বাকিরা কোথায় তা জানাতে পারেনি পুলিশ?