কাবুলের ক্রিকেট স্টেডিয়ামে
মানব-বোমা, মৃত্যু ৩জনের

সংবাদসংস্থা

কাবুল, ১৩ই সেপ্টেম্বর — ফের সন্ত্রাসবাদীদের মানব-বোমা বিস্ফোরণে রক্তাক্ত কাবুল। আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের একটি ক্রিকেট স্টেডিয়ামের সামনে বুধবার আত্মঘাতী মানব-বোমায় অন্তত ৩জন প্রাণ হারালেন। জখম হয়েছেন কমপক্ষে ৫জন। কাবুল পুলিশের মুখপাত্র বশির মুজাহিদ এখবর দিয়ে জানিয়েছেন, আলোকোজায় কাবুল ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট গ্রাউন্ডে এদিন একটি ক্রিকেট ম্যাচ চলছিলো। মাঠের ভেতরে-বাইরে তখন শত শত দর্শক ও নিরাপত্তাকর্মী। সেসময় এক ব্যক্তি ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ঢুকতে গেলে সন্দেহবশত তাকে গেটেই আটকে দেন নিরাপত্তা রক্ষীরা। আচমকাই নিজের শরীরে বেঁধে রাখা শক্তিশালী বোমায় বিস্ফোরণ ঘটায় ঐ ব্যক্তি। আক্রমণকারীর সঙ্গেই ঘটনাস্থলে প্রাণ হারান দু’জন পুলিশকর্মী এবং একজন ক্রীড়ামোদী। তবে আফগান ক্রিকেট বোর্ডকে উদ্ধৃত করে স্থানীয় টোলো নিউজ টেলিভিশন জানিয়েছে, খেলোয়াড়রা নিরাপদেই আছেন।

সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কয়েকটি সন্ত্রাসবাদী বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে আফগানিস্তানে। মারা গেছেন বহু নিরীহ মানুষ। পুলিশের মুখপাত্র বশির মুজাহিদ বলেছেন, ‘নিজেদের জীবন দিয়ে আজ বহু মানুষের প্রাণ বাঁচিয়ে দিলেন নিরাপত্তাকর্মীরা। কোনভাবে ঐ আত্মঘাতী সন্ত্রাসবাদী ক্রিকেট স্টেডিয়ামের ভেতরে ঢুকতে পারলে, বড়ো ধরনের বিপর্যয় ঘটে যেতে পারতো।’ স্পষ্টভাবে কেউই এই হামলার দায় স্বীকার করেনি। তবে ইসলামিক স্টেট (আই এস)-র মুখপত্র আমাক নিউজ এজেন্সি কাবুলে এদিনের হামলার কথা উল্লেখ করে বলেছে, আই এস সদস্যরা কাবুলে একটি আত্মঘাতী হামলা চালাতে সক্ষম হয়েছে। কিন্তু তারা ক্রিকেট স্টেডিয়ামের হামলাকেই বুঝিয়েছে কিনা, তা অবস্য স্পষ্ট নয়।

সন্ত্রাসবাদী হামলার সময়ে স্টেডিয়ামে এদিন ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের ধাঁচে টি-২০ক্রিকেট ম্যাচ চলছিলো। প্রতিযোগী দলগুলির মধ্যে বেশ কয়েকজন বিদেশী খেলোয়াড়ও রয়েছেন। সাম্প্রতিক সময়ে ক্রিকেট খেলাও আফগানিস্তানে যথেষ্ট জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। মাত্র গত সোমবারই এই প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। ফলে এদিন স্টেডিয়ামে ম্যাচ দেখতে গিয়েছিলেন বহু ক্রীড়ামোদী। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, বিস্ফোরণের শব্দে আশেপাশের এলাকা কেঁপে ওঠে। বিস্ফোরণের পরেই অ্যাম্বুলেন্সের ছোটাছুটি শুরু হয়ে যায়। হতাহতদের দ্রুত আশেপাশের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের মুখপাত্র ফরিদ হোতাক জানিয়েছেন, প্রবল আতঙ্কে খানিকক্ষণের জন্য বন্ধ হয়ে যায় ক্রিকেট ম্যাচ। তবে পরে ফের খেলা শুরু হয় এবং নির্বিঘ্নে শেষ হয়। খেলোয়াড়রা এবং ক্রিকেট কর্তারা পুরোপুরি নিরাপদে আছেন।

এর আগে গত ২৯শে আগস্ট ঈদ উৎসবের প্রাক্কালে কাবুলের একটি ব্যাঙ্কের সামনে মানব-বোমায় বিস্ফোরণ ঘটায় সন্ত্রাসবাদীরা। সেই ঘটনায় ৫জন নিরীহ মানুষ প্রাণ হারিয়েছিলেন। জখম হয়েছিলেন বহু মানুষ।