নাগাড়ে বৃষ্টি ও ঝোড়ো হাওয়ায়
ক্ষতির মুখে ফসল
দুশ্চিন্তায় কৃষকরা

নিজস্ব সংবাদদাতা   ১৩ই অক্টোবর , ২০১৭

বোলপুর, ১২ই অক্টোবর — নাগাড়ে বৃষ্টি সঙ্গে ঝোড়ো হাওয়া এই জোড়া ফলায় বিদ্ধ বীরভূমের বিস্তীর্ণ এলাকায় চাষের জমি। বোলপুর ও রামপুরহাট মহকুমায় ধান ও সবজি চাষ প্রভূত ক্ষতির মুখে। তবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এখনও নির্ধারণ করে উঠতে পারেনি কৃষি দপ্তর। জেলা কৃষি দপ্তরের মত, সমস্ত ব্লক থেকে রিপোর্ট সংগ্রপ করে সামগ্রিক ক্ষতির পরিমাণ জানাতে আরও দু-একদিন লাগবে।

এলাকা সূত্রে জানা গেছে, গত তিনদিনের বৃষ্টিতে বোলপুর মহকুমার বোলপুর, নানুর ও ইলামবাজার ব্লকে ধান এবং সবজির যথেষ্টই ক্ষতি হয়েছে। নানুর ব্লক প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ওই ব্লকে ১৮০৫ হেক্টর জমির ধান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়াও ইলামবাজার এবং বোলপুর ব্লকেও অজয় নদীর ধার লাগোয়া বিস্তীর্ণ চাষ জমির ধান নুয়ে পড়েছে ঝোড়ো হাওয়ায়। জমিতে জল থাকার কারণে নুইয়ে পড়া ধান গাছ আর কোনোভাবেই পুষ্ট হওয়া সম্ভব নয় বলে মত প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। নানুর, কীর্ণাহার, চারকলগ্রাম, নগরকড্ডা, বড়সাঁওতা, জলন্দী এবং রামপুরহাট মহকুমার বেশ কিছু গ্রামে সবজির প্রভূত ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে। জেলা উদ্যানপালন দপ্তর সূ্ত্রে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, গ্রীষ্মের সবজি শেষে শীতকালীন সবজির ফলনের সন্ধিক্ষণে নাগাড়ে বৃষ্টির কবলে পড়ে পটল, বেগুন, শরবতি আলু, টম্যাটো, ফুলকপি প্রভৃতি ফসলের ক্ষতির সম্ভাবনা যথেষ্টই। এর প্রভাব অবশ্যই পড়বে বাজারে। নিশ্চিতভাবেই চড়বে দাম। জেলা উদ্যানপালন আধিকারিক সুবিমল মণ্ডল জানিয়েছেন, ‘‘ক্ষয়ক্ষতির হিসাব এখনও একত্রিত করা হয়নি। ব্লকওয়াড়ি রিপোর্ট পাওয়ার পর সামগ্রিক ক্ষয়ক্ষতির হিসাব স্পষ্ট করা যাবে।’’

অপরদিকে বোলপুরের বিস্তীর্ণ এলাকা এবং ইলামবাজারের নানান জায়গা থেকে ধানের ক্ষতির খবর আসছে। বহু জমিতেই ধান নুয়ে পড়েছে। কপালের ভাঁজ চওড়া হয়েছে কৃষকদের। নুয়ে পড়া ধানকে আর পুষ্ট করা সম্ভব নয় জেনেই দুশ্চিন্তায় পড়েছেন বিপুল সংখ্যক কৃষক। সঙ্গে রয়েছে ক্ষতিপূরণ পাওয়ার ক্ষেত্রে ৩৩ শতাংশের গেরো। জেলা কৃষি সহ অধিকর্তা অমর মণ্ডল বলেন, ‘‘বিক্ষিপ্তভাবে হয়ত কোথাও কোথাও ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বিশাল অঙ্কের ক্ষয়ক্ষতির ব্যাপারে কোনও ব্লক থেকে রিপোর্ট এখনও পাইনি।’’

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement