শিলিগুড়ি কর্পোরেশনের সমান্তরাল
বোর্ড চালানোর চেষ্টা রাজ্য সরকারের

নিজস্ব প্রতিনিধি

শিলিগুড়ি, ১২ই অক্টোবর— রাজ্যের সাতটি কর্পোরেশনের মধ্যে একমাত্র শিলিগুড়ি কর্পোরেশনে বিরোধী আসনে রয়েছে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। শিলিগুড়ি পৌর নিগমে জনগণের সমর্থনে বোর্ড গঠন করেছে বামফ্রন্ট। তাই শিলিগুড়ি পৌর নিগম বাদে রাজ্যের বাকি ছটা পৌর নিগম রাজ্য সরকারের কাছ থেকে সব রকমের সহযোগিতা পেলেও বঞ্চিত বামফ্রন্ট পরিচালিত শিলিগুড়ি পৌর নিগম। এমনকি প্রাপ্য আর্থিক সাহায্য থেকেও শিলিগুড়ি পৌর নিগমকে বাদের খাতায় রেখেছে রাজ্য সরকার।

জনগণের রায়ে শিলিগুড়ি পৌর নিগমে বোর্ড গঠন করেছে বামফ্রন্ট। মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন অশোক ভট্টাচার্য। মানুষের রায়কে সরাসরি খন্ডন করতে না পেরে তাই অসাংবিধানিক আচরণ করছে রাজ্যের শাসকদল। বামফ্রন্ট পরিচালিত শিলিগুড়ি পৌর নিগমের সমান্তরাল বোর্ড চালানোর চেষ্টায় মত্ত হয়েছে রাজ্য সরকার। শিলিগুড়ি পৌর নিগমকে তাদের প্রাপ্য টাকা না দিয়ে সাংবিধানিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে। শোনা যাচ্ছে শিলিগুড়ি পৌর নিগমের সমান্তরাল বোর্ড চালাতে পৌর নিগমের জন্য বরাদ্দ তিরিশ লক্ষ টাকা দেওয়া হচ্ছে শিলিগুড়ি-জলপাইগুড়ি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষকে। ডেঙ্গু সচেতনতা, মোকাবিলায় শিলিগুড়ি পৌর নিগমকে না দিয়ে রাজ্য সরকারের তরফে তিরিশ লক্ষ টাকা দেওয়া হয়েছে এস জে ডি এ-কে। এই টাকা দেওয়া হয়েছে ডেঙ্গু সচেতনতামূলক প্রচার, প্রতিটি ওয়ার্ডে ফগিং, মশা মারার তেল স্প্রে করার জন্য। মেয়র অশোক ভট্টাচার্য অভিযোগ করেন বাইরের লোক দিয়ে পৌর নিগমের প্যারালাল কাজ করাচ্ছে এস জে ডি এ। এই ধরনের কাজ আর বরদাস্ত করা হবে না বলে জানান তিনি। ভবিষ্যতে পৌর নিগমের প্যারালাল কাজ করার চেষ্টা করা হলে সর্বশক্তি দিয়ে প্রতিরোধ করা হবে বলেও জানান শিলিগুড়ি পৌর নিগমের মেয়র অশোক ভট্টাচার্য।

সম্প্রতি শিলিগুড়ি পৌর নিগমের অধীনে থাকা শক্তিগড় রবীন্দ্র মঞ্চ গায়ের জোরে উদ্বোধন করেন রাজ্যের দুই মন্ত্রী। যে রবীন্দ্র মঞ্চের কাজ শুরু হয়েছিল বামফ্রন্টের আমলে। সম্পত্তিটিও রয়েছে শিলিগুড়ি পৌর নিগমের অধীনে। শিলিগুড়ি পৌর নিগম শুধুমাত্র বামফ্রন্ট দ্বারা পরিচালিত হওয়ায় সমান্তরাল বোর্ড গঠনের চেষ্টায় গুন্ডাবাহিনী, পুলিশ প্রশাসন, নিজেদের ক্ষমতার অপব্যবহার করে শক্তিগড় রবীন্দ্র মঞ্চের উদ্বোধন করেন রাজ্য সরকারের দুই মন্ত্রী। মাস দুয়েক আগে শিলিগুড়ি পৌর নিগমের অন্তর্গত তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত তিন নম্বর বরো কমিটির আয়োজনে মেয়রের পরিবর্তে রাজ্যের পর্যটন মন্ত্রী ডেঙ্গু সচেতনতা শিবির করেন।

Featured Posts

Advertisement