বাঁকুড়া মেডিক্যাল কলেজ
রোগীর সংখ্যা বহুগুণ,
ওয়ার্ডে ঢুকে খাবার দেওয়া বন্ধ

নিজস্ব সংবাদদাতা   ১৩ই অক্টোবর , ২০১৭

বাঁকুড়া, ১২ই অক্টোবর- দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে রোগীদের সকাল সন্ধ্যা খাবার নিতে হচ্ছে বাঁকুড়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। এমনকি মরণাপন্ন রোগীকেও লাইনে দাঁড়াতে হচ্ছে। কারণ বাঁকুড়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের প্রতিটি ওয়ার্ডেই রোগীর সংখ্যা এতটাই বেড়ে গেছে যে ট্রলি নিয়ে ওয়ার্ডের ভেতরে ঢোকা অসম্ভব। যারা খাবার দেন তাঁরা ওয়ার্ডের চৌকাঠের ধারে কাছে যেতে পারছেন না। নিয়ম রোগীর শয্যায় গিয়ে খাবার দেওয়া। সেইভাবেই দেওয়া হতো। কিন্তু এখন ওয়ার্ডগুলিতে ট্রলি পৌঁছানোর মতো অবস্থায় নেই। ওয়ার্ডের প্রতিটি শয্যাতে দুজন তিনজন রোগীতো আছেনই, নিচে গাদাগাদি করে পড়ে আছেন অসংখ্য রোগী। নিচের মেডিসিন দপ্তরের এমন অবস্থা যে রান্নাঘর পর্যন্ত রোগীর বেড। অস্বাস্থ্যকর স্যাঁতসেঁতে মেঝের মধ্যেই পড়ে আছেন রোগীরা। খালি মেডিসিন নয়, সার্জারি, শিশু বিভাগেরও একই অবস্থা। প্রসূতি বিভাগের অবস্থা তো আরও ভয়াবহ। সেখানে এক ইঞ্চি পা ফেলার জায়গা নেই।

বাঁকুড়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নতুন করে কোন শয্যা বাড়েনি। প্রসূতিবিভাগের নতুন পরিকাঠামো হলেও তা এখনও কার্যকর হওয়ার মতো অবস্থায় নেই। যা শয্যা তার চেয়ে রোগীর সংখ্যা বহুগুণ হয়ে যাওয়ার ফলেই এই অবস্থা তৈরি হয়েছে বলে বৃহস্পতিবার বাঁকুড়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের এক স্বাস্থ্যকর্মী জানান।

কিন্তু এত মানুষের চিকিৎসা কি করে সম্ভব হচ্ছে? এর উত্তরে ঐ কর্মী জানান, বিভাগীয় প্রধানদের একটা বড় অংশ নেই। এমনিতেও সপ্তাহে দু-একদিনের বেশি কেউ থাকেন না, এখন আবার শারদীয়া উৎসবের দৌলতে সবাই বাইরে। অবস্থা সামাল দিচ্ছেন জুনিয়র ডাক্তাররা। এই অবস্থায় যা চিকিৎসা হওয়ার কথা সেটাই হচ্ছে।

এদিকে হাসপাতালের চারদিকের যা অবস্থা তাতে রোগ দূর হওয়া তো দুরের কথা নতুন করে রোগ সৃষ্টি হয়ে যাচ্ছে। হাসপাতালে যেখানে পৌরসভা পার্ক করেছে সেখান দিয়ে পার হওয়া যায় না। কয়েকদিন আগে রাজ্যস্তরের স্বাস্থ্যদপ্তরের এক আধিকারিক এসে সকলের সামনেই এই অস্বাস্থ্যকর ছবি দেখিয়ে দিয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিলেও কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। এমত অবস্থায় ডেঙ্গুর আঁতুড়ঘর তৈরি হয়ে গেছে হাসপাতালেই। কিন্ত কোন ভ্রুক্ষেপ নেই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের। তাদের মনোভাব, যেমন চলছে চলুক।

Featured Posts

Advertisement