পঞ্চাশে ‘একসাথে’,অনুষ্ঠান কাল

নিজস্ব প্রতিনিধি

কলকাতা, ২২শে নভেম্বর — চড়াই-উতরাই, ঘাত প্রতিঘাত পেরিয়ে পঞ্চাশ বছর অতিক্রম করতে চলেছে সারা ভারত গণতান্ত্রিক মহিলা সমিতির মুখপত্র ‘একসাথে’। ১৯৬৮ সালের মে মাসে যাত্রা শুরু হয়েছিল এই পত্রিকার। নারীবাদী পত্রিকা নয়, বরং দেশের আর্থ সামাজিক ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে যে বৈষম্যের শিকার হয় নারীরা তার বিরুদ্ধে ‘একসাথে’-র প্রতিবাদ। পত্রিকার সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে শুক্রবার মৌলালি যুবকেন্দ্রে আয়োজন করা হয়েছে একটি অনুষ্ঠানের। একসাথে পত্রিকার সম্পাদিকা বনানী বিশ্বাস বুধবারের সাংবাদিক বৈঠকে জানান, ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন বৃন্দা কারাত, ঝুমুর পান্ডে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপিকা মালেকা বেগমসহ মারিয়ম ধাওয়ালে, চন্দ্রকলা পান্ডে প্রমুখ।

শুধু ঘরে নয় বাইরেও নারীদের বড় ভূমিকা পালন করতে হবে। এই ভাবনা নিয়ে ১৯৫৩ সালে নিখিলবঙ্গ মহিলা আত্মরক্ষা সমিতির মুখপত্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে ‘ঘরে বাইরে’। তবে ১৯৬৭ সালে বন্ধ হয়ে যায় পত্রিকাটি। সেই সময় সাধারণ মহিলা সমাজের কাছে সুনির্দিষ্ট বার্তা পৌঁছে দেওয়ার প্রয়োজন হয়ে পড়ে। জন্ম হয় ‘একসাথে’-র। বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্রের আদর্শকে সামনে রেখে যাত্রা শুরু করে পত্রিকা। উদ্যোক্তা ছিলেন কনক মুখার্জি, জ্যোতি চক্রবর্তীসহ পঙ্কজ আচার্য, মাধুরী দাশগুপ্ত। তৎকালীন সম্পাদিকা কনক মুখার্জি সন্তান স্নেহে গড়ে তুলেছিলেন ‘একসাথে’। প্রকাশ শুরু হওয়ার পর নেমে এসেছিল সরকারের আক্রমণ। সেন্সর ব্যবস্থায় বাদ পড়েছে অনেক লেখা। তবুও আপন ছন্দে এগিয়েছে পত্রিকা। তারপর পেরিয়েছে অনেক পথ। মহিলাদের দ্বারা পরিচালিত পত্রিকা আজ পঞ্চাশ ছুঁই ছুঁই। একসাথে পত্রিকার সম্পাদিকা বনানী বিশ্বাস জানান, ‘একসাথে’-র প্রথম সংখ্যায় ঘোষণা করা হয়েছিল ‘‘শ্রেণী সংগ্রামের বৈষম্যের শিকার, বঞ্চিত মেয়েদের মুখপত্র। তাদেরই আত্মপ্রকাশের ও অভিযানের পথের বিশেষ প্রয়োজনে এই পত্রিকার প্রকাশ শুরু হল’’ এই অঙ্গীকার পঞ্চাশ বছর ধরে রক্ষা হচ্ছে।

‘বিপন্ন সময়, বিপন্ন নারী’ এই বিষয়ে একটি প্রতিযোগিতা আয়োজন করা হয়েছিল পত্রিকার তরফে। বনানী বিশ্বাস জানান, প্রথম স্থানাধিকারীকে ‘কনক মুখার্জি স্মারক পুরস্কার’ তুলে দেওয়া হবে শুক্রবার। পাশাপাশি ‘একসাথে’-র পঞ্চাশ বছর পূর্তি উপলক্ষে গণসংগীত এবং একক সংগীতেরও আয়োজন করা হয়েছিল। সেই প্রতিযোগিতার বিজয়ীদেরও পুরস্কৃত করা হবে ওইদিন। বুধবারের সাংবাদিক বৈঠকে বনানী বিশ্বাস ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন পঞ্চাশ বছর উদ্‌যাপন কমিটির চেয়ারপার্সন রত্নাবলী চট্টোপাধ্যায়, সারা ভারত গণতান্ত্রিক মহিলা সমিতির রাজ্য সম্পাদিকা কনীনিকা ঘোষসহ ঈশিতা মুখার্জি, বনবাণী ভট্টাচার্য, চন্দ্রাবলী সেন প্রমুখ।

Featured Posts

Advertisement