যুবভারতীর ফাইনালের নায়কের
স্বপ্নের অভিষেক ম্যান সিটিতে

১৫মিনিট মাঠে থাকলেন যুব তারকা ফোডেন

লন্ডন, ২২শে নভেম্বর — কলকাতায় বিশ্বকাপ ফাইনালের নায়ক এবার অন্য গ্রহে বিরাজ করলেন। টাইম মেশিনে চড়ে একটু পিছনে হাঁটলে দেখা যাবে ইংল্যান্ডের ফিলিপ ফোডেন ভাবি তারকা হওয়ার বীজ বপন করে গিয়েছিলেন ভারতে সদ্য হয়ে যাওয়া অনূর্ধ্ব ১৭বিশ্বকাপেই। মাত্র ২৪দিন আগে যে ব্রিটিশ তরুণের খেলা দেখে মুগ্ধ হয়েছিল যুবভারতীর হাজার ষাটেক দর্শক। সেই ফোডেনকে দেখা গেলো চ্যাম্পিয়ন্স লিগের আসরে। ম্যাঞ্চেস্টার সিটির কোচ পেপ গুয়ার্দিওলা তাঁকে মাঠে নামালেন ৭৫মিনিটের মাথায়। পেপ বরাবরই ফুটবলার খুঁজে তাঁকে তারকা বানিয়ে দিতে পারেন। আইভরি কোস্টের ইয়া ইয়া তোরের বদলি হিসেবে ফিলিপ ফোডেনকে নামানোর সিদ্ধান্ত নেন পেপ। তরুণ তুর্কিকে করতালির বন্যায় বরণ করে নিলেন এতিহাদ স্টেডিয়ামের উপস্থিত সমর্থকরা। প্রসঙ্গত ম্যান সিটির ইতিহাসে তিনিই সব থেকে কম বয়সী চ্যাম্পিয়ন্স লিগে অভিষেক হওয়া ফুটবলার। এমনকি, ইংলিশ ফুটবলের ইতিহাসে সর্বকনিষ্ঠ চ্যাম্পিয়ন্স লিগ অভিষেক ফুটবলারের তালিকায় তিনি চার নম্বরে। ফোডেনের বয়স ১৭ বছর ১৭৭ দিন। ৯ বছর বয়স থেকে সিটির আকাদেমিতে খেলছেন বাঁ-পায়ের বিষ্ময় বালক। ফোডেনের কথায়, ‘অদ্ভুত অনুভূতি। সিটির হয়ে খেলতে নামা আমার কাছে স্বপ্নের মতো। মনে হচ্ছে সবকিছু অর্জন করেছি। বহুদিন ধরে এই সুযোগের জন্য পরিশ্রম করেছি। দি ব্রুইন, ডেভিড সিলভাদের সঙ্গে খেলা দারুণ বিষয়। প্রতিনিয়ত ওদের থেকে নতুন কিছু শেখা যায়। আগামীদিনে আরও কিছু শেখার অপেক্ষায় রইলাম।’

মাত্র ১৫মিনিট খেলেছেন ম্যান সিটির হয়ে। তারমধ্যে বেশকিছু ঝলকও ছিল উঠতি তারকার। যে মেজাজে কলকাতায় বিশ্বকাপ ফাইনালে স্প্যানিশ আর্মাডাকে ধ্বংস করেছিলেন। সেই একই মেজাজ এবারও বড় তারকাদের সঙ্গেও। ফেয়েনুর্ডকে ১-০ গোলে হারিয়েছে পেপ গুয়ার্দিওলার ম্যানসিটি। একই সঙ্গে চলতি মরশুমে টানা ১৭ ম্যাচে জয়ী সিলভা, আগুয়েরোরা। গোলদাতা রহিম স্টার্লিং। ম্যান সিটির গোলটি এসেছে ম্যাচ শেষ হওয়ার দুই মিনিট আগে।

অনূর্ধ্ব-১৭ যুব বিশ্বকাপের মেগা ফাইনালে পিছিয়ে থেকে ইংল্যান্ডের জয়ের পিছনে ছিল ফোডেনসহ বাকিদেরও ক্যারিশমা। শেষমেশ ৫-২গোলে জিতে খেতাব পায় ইংল্যান্ড। যুবভারতী সহ ফুটবল বিশ্ব সাক্ষী ছিল এক তারকা উদয়ের। দলকে টুর্নামেন্ট সেরা করার সঙ্গে গোল্ডেন বলের ট্রফিও জিতেছিলেন তিনি। ফোডেনের সঙ্গে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ অভিষেক হয়েছে স্প্যানিশ যুব বিশ্বকাপ দলের ফরোয়ার্ড ব্রাহিম দিয়াজেরও। ম্যান সিটির কোচ পেপ গুয়ার্দিওলাও তারিফ করেছেন ফোডেন নিয়ে। জানালেন, ‘ফুটবলের উন্নতিতে ক্লাবের থেকে সবরকম সাহায্য পাবে ফোডেন। কিন্তু কতটা সফল হবে, তার পুরো দায়িত্ব ওর উপরেই।’ সঙ্গে জুড়লেন, ‘ওকে প্রতিনিয়ত উন্নতি করতে হবে। এবং আমার বিশ্বাস ওর মধ্যে সেই যোগ্যতা রয়েছে। ক্লাবের কাছেও ফোডেনের অভিষেক হওয়া একটি বিশেষ দিন। কারণ যুবস্তরের উন্নতির জন্য দারুণ কাজ করছে ইংলিশ ফুটবল।’



Featured Posts

Advertisement