রেশন থেকে বঞ্চিত মানুষের
সংখ্যা বাড়ছে কোচবিহারে

নিজস্ব সংবাদদাতা

মাথাভাঙা, ৬ই ডিসেম্বর — রেশন থেকে বঞ্চিত মানুষের সংখ্যাই ক্রমশই বাড়ছে। খেতমজুর থেকে শুরু করে টোটোচালকদের অনেকেই এখনও হাতে পাননি ডিজিটাল রেশন কার্ড। কোচবিহার জেলার মেখলিগঞ্জ ব্লকের প্রায় ৪০হাজার উপভোক্তা এখনও ডিজিটাল রেশন কার্ড পায়নি। জাতীয় খাদ্য সুরক্ষা প্রকল্পে এবং রাজ্য খাদ্য সুরক্ষা প্রকল্পে আবেদনপত্র জমা দিয়েছিলেন মেখলিগঞ্জ ব্লকের গরিব মানুষরা।

কিন্তু খাদ্যদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, ব্লকের ৪০হাজারেরও বেশি মানুষ ডিজিটাল রেশন কার্ড থেকে বঞ্চিত রয়েছে। কৃষক সভার ব্লক নেতৃবৃন্দ দাবি করছেন মেখলিগঞ্জ ব্লকের রেশন থেকে বঞ্চিত মানুষের সংখ্যা প্রায় ৬০হাজার। এদের মধ্যে সিংহভাগই গরিব মানুষ। ডিজিটাল রেশন কার্ড নিয়ে সমস্যা আরও রয়েছে। একদিকে হাজার হাজার গরিব মানুষ যখন আবেদন করেও ডিজিটাল রেশন কার্ড থেকে বঞ্চিত হয়েছেন অন্যদিকে ব্লকের কয়েক হাজার ডিজিটাল রেশন কার্ড পড়ে রয়েছে প্রশাসনের কাছে। কারণ, যাদের নামে রেশন কার্ড তারা এলাকাতেই নেই। প্রশাসনের বক্তব্য, এই সব মানুষরা ভিন রাজ্যে কাজের সন্ধানে গেছে। তাদের কার্ড জমা পড়ে থাকছে সরকারের ঘরেই।

জেলা স্বাস্থ্যদপ্তর মেখলিগঞ্জ ব্লকের বিভিন্ন গ্রাম পঞ্চায়েতে ডিজিটাল রেশন কার্ড পাঠিয়েছিল বিলি করার জন্য। কিন্তু বিরাট সংখ্যক মানুষের নামে কার্ড না আসায় গ্রাম পঞ্চায়েত অফিসগুলিতে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে সাধারণ মানুষ। নিরুপায় হয়ে পঞ্চায়েত প্রশাসন সব কার্ড বি ডি ও অফিসে জমা দিয়ে দেয়। এদিকে ব্লকের বিভিন্ন গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় যে সমস্ত উপভোক্তা ডিজিটাল কার্ড পেয়েছেন সেগুলিও ভুলে ভরা। নাম, বাবার নাম, এমনকি ঠিকানাতেও ভুল রয়েছে। এই সমস্ত ভুল কবে সংশোধন হবে সেবিষয়ে মুখ খুলছে না খাদ্য দপ্তরের আধিকারিকরা।

খাদ্যদপ্তর সূত্রের খবর, মেখলিগঞ্জ ব্লকের ১লক্ষ ৭০হাজার রেশন গ্রাহকের মধ্যে ১লক্ষ ৩০হাজার গ্রাহক জাতীয় খাদ্য সুরক্ষা ও রাজ্য সুরক্ষা প্রকল্পের আওতায় এসেছেন। বাকি ৪০হাজার গ্রাহকের আবেদনপত্র ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হয়েছে। মেখলিগঞ্জের মহকুমা খাদ্য নিয়ামক পেসিকা মোক্তাল বলেন, যাঁদের কার্ড এসেছে অথচ বর্তমানে সেই উপভোক্তারা এলাকায় নেই তাঁরা এলাকায় ফিরে এলে ডিজিটাল কার্ড পেয়ে যাবেন। ভুল সংশোধনের বিষয়েও ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা চলছে।

Featured Posts

Advertisement