‘গো ব্যাক’ শুনলেন
প্লাজা চোট সুহেরের

নিজস্ব প্রতিনিধি

কলকাতা, ৬ই ডিসেম্বর — লাল হলুদে এবার ‘গো ব্যাক’ ধ্বনি শুনতে হলো উইলিস প্লাজাকে। দুপুরে বারাসতে প্রস্তুতি ছিল ইস্টবেঙ্গলের। আচমকা গ্যালারি থেকে সমর্থকদের একটা অংশ প্লাজার উদেশ্যে বলতে থাকেন প্লাজা গো ব্যাক, তুমি ফিরে যাও। এমনিতেই সারা শিবিরে অস্বস্তি রয়েছে, তারমধ্যে প্লাজা ও চার্লসকে নিয়ে ভাবতে শুরু করে দিয়েছে ক্লাব। তাদের ছেঁটে ফেলা হবে, সেরকম আভাস দিয়ে দেওয়া হয়েছে। তারমধ্যে কোচ খালিদ জামিলকে নিয়েও বিতর্ক চলছে। খালিদ কেন ঘণ্টার পর ঘণ্টা দলের ফুটবলারদের মিটিং সারেন, সেই নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। দলের খেলায় কোনও কৌশল নেই। সবথেকে বড় কথা, খালিদের নামে বড় অভিযোগ তিনি স্থানীয় ফুটবলারদের গুরুত্ব দিতে চান না। দলের প্রথম একাদশ গঠনে স্বচ্ছতার অভাব। কর্তারা তাঁকে ৯ই ডিসেম্বর শিলঙ লাজঙ ম্যাচে দেখবেন। তারপর সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। এ ম্যাচ খালিদের কাছে পরীক্ষার।

তারমধ্যে আবার প্লাজার বিকল্প হিসাবে যাঁকে ভাবা হয়েছিল, সেই ভি পি সুহের এদিন প্রস্তুতি ডান গোড়ালিতে ভালোই চোট পেয়েছেন। তাঁকে সপ্তাহ খানেক বিশ্রামে থাকতে হবে। সেই নিয়ে ক্লাব সূত্রে বলা হয়েছে, সুহেরের চোট আমাদের চিন্তা বাড়িয়ে দিল। এমনকি ব্রাজিলীয় চার্লসের পারফরম্যান্সেও খুশি নন ইস্টবেঙ্গল কর্তাদের একাংশ। এতো চাপের মুখে ভাঙতে নারাজ ত্রিনিদাদ টোবাগোর স্ট্রাইকার। অনুশীলন শেষে বেরনোর সময় জানালেন, ‘একটা ভালো পারফরম্যান্স পরিবেশকে বদলে দেবে। সমর্থকদের হতাশা মুছে ফেলার চেষ্টা চালাচ্ছি। একটি জয় সব হিসাব বদলে দেবে। গোলে ফেরার বিষয় আমি আশাবাদী।’ কঠিন সময়ে ভালো খেলার আশ্বাস এডুরও। তাঁর বক্তব্য, ‘একটা ম্যাচ খারাপ গেছে, তা বলে পুরো লিগে খারাপ যাবে এমনতো নয়!’

১৩ই জানুয়ারি আই লিগের ফিরতি বড় ম্যাচ সংকট কাটেনি। টিভি সম্প্রচার সংস্থার সঙ্গে কথা বলা হয়েছে, তাদের মর্জির ওপরই সব নির্ভর করছে। তবে পুলিশ থেকে বলা হয়েছিল সেইদিন যদি যুবভারতীর বদলে বারাসত কিংবা কল্যাণী, এমনকি শিলিগুড়িতে ম্যাচ খেললে সমস্যার কিছু নেই। কিন্তু লাল হলুদ কর্তারা বলছেন, তারা খেললে যুবভারতীতেই খেলবেন, অন্য কোথাও ম্যাচ আয়োজন করে অর্থের দিক লোকসান হতে রাজি নন। মোহনবাগান থেকে বলা হয়েছে, আমাদের যেদিনই খেলা দেওয়া হোক না কেন, সমস্যা নেই।

Featured Posts

Advertisement