রবীন্দ্রমঞ্চ নিয়ে উত্তরবঙ্গ
উন্নয়নদপ্তরের মন্ত্রীকে চিঠি দিলেন শিলিগুড়ির মেয়র

নিজস্ব সংবাদদাতা   ১৩ই জানুয়ারি , ২০১৮

শিলিগুড়ি, ১২ই জানুয়ারি — শিলিগুড়ি শক্তিগড়ে রবীন্দ্রমঞ্চটির বর্তমান অবস্থা নিয়ে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তরের মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষকে চিঠি দিলেন শিলিগুড়ি পৌর মেয়র অশোক ভট্টাচার্য।

চিঠিতে মেয়র অশোক ভট্টাচার্য উল্লেখ করেছেন যে, উত্তরবঙ্গ উন্নয়নদপ্তরের মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ শিলিগুড়ি শক্তিগড়ে রবীন্দ্র মঞ্চটির বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে ভালোভাবেই অবহিত। এই মঞ্চটি একসময় ব্যবহারের উপযোগী ছিল না। ২০০৮—২০০৯সালে তৎকালীন শিলিগুড়ি কর্পোরেশনের বোর্ড মুক্ত মঞ্চটির কর্তৃপক্ষ তথা স্থানীয় পাঠাগারের অনুমোদনক্রমে কিছু সংস্কার ও উন্নয়নের কাজ হাতে নেয়। শিলিগুড়ি জলপাইগুড়ি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ এই কাজে কিছু আর্থিক সহায়তাও করে। যদিও সংস্কার কাজটি সময়ের অভাবে সমাপ্ত করা সম্ভব হয়নি।

২০১৩সালে উত্তরবঙ্গ উন্নয়নদপ্তর শিলিগুড়ি পৌরসভার কাছ থেকে রবীন্দ্রমঞ্চের অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করার জন্যে মঞ্চটি সাময়িকভাবে তাদের হাতে হস্তান্তর করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছিল। ২০১৭সালের ৭ ও ৮ই আগস্ট পত্র নং ৩০৫২/ এন বি ডি ডি/ বি এস , ১৩৮৭/এন বি ডি ডি/ বি এস উত্তরবঙ্গ উন্নয়নদপ্তর সমস্ত সংস্কার কাজ সম্পন্ন করে শিলিগুড়ি কর্পোরেশনের হাতে তা হস্তান্তর করে। পরবর্তীকালে রবীন্দ্রমঞ্চটি উত্তরবঙ্গ উন্নয়নদপ্তরের মন্ত্রীর দ্বারা উদ্বোধন হয়। যদিও এই শহরের মেয়রকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি মঞ্চের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে।

মেয়র চিঠিতে আরও লিখেছেন, শিলিগুড়ি কর্পোরেশনের প্রতিনিধিরা পরবর্তীকালে মঞ্চটি যখন ব্যবহারকল্পে সেখানে উপস্থিত হন দেখেন মঞ্চটির নানা প্রবেশদ্বারে তালা বন্ধ করে রাখা হয়েছে। প্রথমে ধারণা হয়েছিল কিছু বহিরাগতরা এই কাজ করছে। পরবর্তী সময়ে জানা গেছে তালা লাগানো হয়েছে উত্তরবঙ্গ উন্নয়নদপ্তরের পক্ষ থেকেই। ইতিমধ্যে প্রায় তিনমাস অতিক্রান্ত হয়েছে প্রায় কয়েক কোটি টাকা ব্যয়ে পুনর্নির্মিত ও সংস্কার কাজ সম্পন্ন হবার পরেও মঞ্চটি শুধু অব্যবহৃত নয়, পড়ে রয়েছে অরক্ষিত অবস্থায়। এর ফলে বহু টাকা অপচয়ও হচ্ছে।

ভট্টাচার্য উল্লেখ করেছেন, শিলিগুড়ির মতো একটি বড় শহরে নাটক বা সাংস্কৃতিক কার্যক্রম করার প্রেক্ষাগৃহ একটাই, দীনবন্ধু মঞ্চ। এই প্রেক্ষাগৃহটি অনেক সংস্থার পক্ষে তাদের বিভিন্ন কর্মসূচির জন্যে পাওয়াটা সমস্যা। সেক্ষেত্রে শক্তিগড় রবীন্দ্রমঞ্চটি এই অভাব অনেকটাই দূর করতে পারবে। এর ফলে শিলিগুড়ির সাংস্কৃতিক ও নাট্যজগৎ অনেক বেশি উপকৃত হতে পারতো।

শিলিগুড়ি কর্পোরেশনকে হস্তান্তরিত করার পর রবীন্দ্র মঞ্চটির পরিচালনার ভার কর্পোরেশনের হাতে তুলে দেওয়া হোক, নয়তো সরকারি বা জনগণের অর্থ অপচয় না করে আপনার উত্তরবঙ্গ উন্নয়নদপ্তরই রবীন্দ্রমঞ্চটির পরিচালনার দায়িত্বভার গ্রহণ করুক। চিঠিতে মেয়র অশোক ভট্টাচার্য উত্তরবঙ্গ উন্নয়নদপ্তরের মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষের উদ্দেশ্যে এই প্রস্তাব রেখেছেন। অবিলম্বে এই বিষয়ে শিলিগুড়ি পৌর কর্পোরেশনের মেয়র অশোক ভট্টাচার্য উত্তরবঙ্গ উন্নয়নদপ্তরের মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষের হস্তক্ষেপের দাবি জানিয়েছেন।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement