দাবি আদায়ে জেল ভরো
কর্মসূচি সফল করবেন
নির্মাণ শ্রমিকরা : নেতৃবৃন্দ

নিজস্ব সংবাদদাতা

মেদিনীপুর, ১২ই জানুয়ারি — নির্মাণকর্মীসহ রাজ্যের অসংগঠিত শ্রমিকদের সামাজিক সুরক্ষার টাকা আটকে রেখে সরকারের শ্রমিক মেলার নামে যথেচ্ছ খরচ করা হয়েছে। এমন শ্রমিক মেলার নামে অতিথি আপ্যায়ন বাবদ নাকি ১০ কোটি টাকা খরচ করছে। অথচ শ্রমিকদের সামাজিক সুরক্ষার যন্ত্রপাতি ও সাইকেল বাবদ পাঁচ হাজার টাকা, চিকিৎসা খরচ, গৃহনির্মাণসহ শ্রমিক পরিবারের পড়ুয়াদের অনুদান, পেনশন প্রভৃতি ভাতা দেওয়া বন্ধ করে রাখা হয়েছে। রাজ্যে এমন মজুত তহবিলের পরিমাণ ১২৩০ কোটি টাকা। আর কেন্দ্রের হাতে সেই মজুত অর্থের পরিমাণ ৩৭ হাজার কোটি টাকা। কনভেনশনে একথা বলেন নেতৃবৃন্দ। তাঁরা বলেন, বামফ্রন্ট সরকার লড়াই করে এমন শ্রমিকদের জন্য আইন তৈরি করেছিল যেমন, তেমনি বাম জমানায় রাজ্যে নির্মাণ কল্যাণ পর্ষদ গঠন করে এমন শ্রমিকদের সামাজিক সুরক্ষা প্রকল্পের তহবিল গঠন করে তাদের প্রাপ্য দেওয়ার কাজ করেছিল। দপ্তরগুলিতে শূন্যপদে লোক নিয়োগ যেমন বন্ধ, তেমনি কর্মীর অভাবের অজুহাত খাড়া করে বছরের পর বছর শ্রমিকদের সামাজিক সুরক্ষা প্রকল্পের আবেদনপত্র নথিভুক্ত করছে না।

এমন পরিস্থিতি বদলাতে এবং শ্রমিকদের ন্যায্য প্রাপ্য আদায়সহ ন্যূনতম মজুরি মাসিক আঠারো হাজার টাকা, পেনশন ৩০০০ টাকাসহ ১২ দফা কেন্দ্রীয় দাবির ভিত্তিতে আগামী ২০শে ফেব্রুয়ারি জেল ভরো আন্দোলন হবে। সেই কর্মসূচি সফল করতে শুক্রবার নির্মাণ কর্মীদের জেলা কনভেনশন হয়। কনভেনশনের পূর্বে মেদিনীপুর শহরে দাবিগুলি নিয়ে মিছিল হয়। মেদিনীপুর শহরের কৃষক ভবনে কনভেনশনে বক্তব্য রাখেন নির্মাণ কর্মী সংগঠনের রাজ্য সম্পাদক তাপস চক্রবর্তী, রাজ্য নেতৃত্ব মানসী ঘোষ, গোপাল প্রামাণিক। সমর্থনে বক্তব্য রাখেন সি আই টি ইউ জেলা সম্পাদক বিশ্বনাথ দাস, প্রস্তাব উত্থাপন করেন কার্তিক ব্যানার্জি। সভাপতিত্ব করেন কালী নায়েক।

Featured Posts

Advertisement