পাঞ্জাব চ্যালেঞ্জ নিতে তৈরি
সৌরাশিসের বাংলা

নিজস্ব প্রতিনিধি   ১৩ই ফেব্রুয়ারি , ২০১৮

কলকাতা, ১২ই ফেব্রুয়ারি — প্রথমবারের জাতীয় ক্রিকেট টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ। আর প্রথমবারেই বাজিমাত করেছে বাংলার অনূর্ধ্ব ২৩ দল। তরুণ দলের দায়িত্বে বাংলার প্রাক্তন ক্রিকেটার সৌরাশিস লাহিড়ি। বাংলার সিনিয়র দল রঞ্জিতে ব্যর্থ। বিজয় হাজারে সৈয়দ মুস্তাক আলি প্রতিযোগিতাও হেরেছে। আবার হারের হ্যাটট্রিকে বিজয় হাজারে থেকেও বিদায় নিয়েছে মনোজ তিওয়ারির দল। এমনকি অনূর্ধ্ব ১৯ কোচবিহার ট্রফি থেকেও বিদায় নিয়েছে।

গতবারের চ্যাম্পিয়ন বাংলা। সারাবছর বাংলা ট্রফিহীন। সেজন্য বাড়তি প্রত্যাশা থাকবে বাংলা ২৩ দলের উপর। মঙ্গলবার ফাইনালে সৌরাশিসের দল খেলবে শক্তিশালী দল পাঞ্জাবের বিরুদ্ধে। খেলা হবে ইন্দোরের হোলকার স্টেডিয়ামে। পিচের প্রকৃতি স্বস্তি রাখবে দুটি দলকেই। বড় রানের আশা রাখছেন বাংলার কোচ সৌরাশিস। বাংলা কোচের কথায়, ‘প্রথমবার খেলতে এসে ফাইনালে উঠেছি। গোটা কৃতিত্বটাই ছাত্রদের। এমন অনেক পরিস্থিতি এসেছে যেখানে ম্যাচ হারের মুখে। তবু আমাদের ছেলেরা ম্যাচে জয় ছিনিয়ে নিয়েছে। সব থেকে বড় বিষয় ম্যাচের মধ্যে সকলের পরিণত বোধ। এক কথায় দুর্দান্ত। আমার বিশ্বাস কয়েকদিনের মধ্যে এরাই বাংলাকে সাফল্য এনে দেবে।’ প্রতিপক্ষ পাঞ্জাব?

সৌরাশিস জানালেন, ‘পাঞ্জাব অবশ্যই ভালো দল। ওদের ব্যাটিং বেশ শক্তিশালী। কিন্তু আমাদের ছেলেরা যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী।’ বাংলার ব্যাটিং বিভাগকে শক্তিশালী করেছে অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান অভিমন্যু ঈশ্বরণের দলে থাকা। তাছাড়া বাংলার বোলিংকে স্বস্তি দিয়েছে প্রয়াস রায় বর্মণ, অমতি কুইলারা। রানের মধ্যে আছেন বাংলার অধিনায়ক সৌরভ সিং। বাংলার তরুণদের সাফল্যের কারণ হিসাবে ভিশন ২০২০-কে সামনে রাখলেন সৌরাশিস। তাঁর কথায়, ‘ভিশন ২০২০ থেকেই একঝাঁক ক্রিকেটার উঠে এসেছে। এরা প্রতিভাবান। শুধু পর্যবেক্ষণের প্রয়োজন রয়েছে। রাতারাতি তো সাফল্য আসে না। ধৈর্য ধরতে হবে।’ সেমি ফাইনালে কেরালার সঙ্গে হাড্ডাহাড্ডি ম্যাচের পর স্বস্তিতে সৌরাশিস লাহিড়ি। কারণ তাঁর বোলিং বিভাগ দুর্দান্ত পারফর্ম করেছে। শেষ হার্ডেল টপকে ট্রফি নিয়ে শহরে ফেরার অপেক্ষায় তিনি।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement