কোচি শিপইয়ার্ডে
বিস্ফোরণ হত ৫ শ্রমিক

এন এস সাজিথ   ১৪ই ফেব্রুয়ারি , ২০১৮

তিরুবনন্তপুরম, ১৩ই ফেব্রুয়ারি — কোচির শিপইয়ার্ডে শক্তিশালী বিস্ফোরণে অন্তত ৫জন শ্রমিকের মৃত্যু হলো। এই বিস্ফোরণে অন্তত ১১জন শ্রমিক আহত হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে ৩জনের অবস্থা সংকটজনক। হতাহতদের মধ্যে অধিকাংশই দিনমজুর বলে জানা গিয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ৯টা ১৫মিনিট নাগাদ মেরামতির জন্য নোঙর করে থাকা ও এন জি সি-র জাহাজ সাগর ভূষণের একটি ট্যাঙ্কের ভিতর প্রচণ্ড বিস্ফোরণ হয়। ট্যাঙ্কের ভিতর জমে থাকা গ্যাস থেকেই এই বিস্ফোরণ হয়েছে বলে কোচিন শিপইয়ার্ড লিমিটেডের (সি এস এল) চেয়ারম্যান মধু এস নায়ার জানিয়েছেন। তবে, প্রকৃত কারণ জানতে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন নায়ার।

এর্নাকুলাম জেলায় তিরিপুনিথুরা এলাকার বাসিন্দা সি এস উন্নিকৃষ্ণাণ, পাথনামথিট্টা জেলার আদুর এলাকার বাসিন্দা গাভিন রেজি এদিনের বিস্ফোরণে নিহত হয়েছেন। নিহত আরও ২জন শ্রমিক রাশিদ, কান্নানের বাড়িও এর্নাকুলাম জেলায়। শিপইয়ার্ডে কর্মরত অবস্থায় নিহত জয়ানের বাড়ি আলেপ্পিতে। এদিন শিবরাত্রি উপলক্ষে ছুটি থাকায় কোনও নিয়মিত শ্রমিক কাজে ছিলেন না। মূলত ঠিকা শ্রমিকদের নিয়েই জাহাজাটির মেরামতির কাজ চলছিল। বিস্ফোরণের সময় জাহাজের ডেকে ১৫জন শ্রমিক মেরামতির কাজে যুক্ত ছিলেন।

এদিন জাহাজের জলের ট্যাঙ্কে স্টিলের প্লেট পরিবর্তনের কাজ চলার সময়ই প্রচণ্ড বিস্ফোরণ হয়। এর জেরে দ্রুত গতিতে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। ধোঁয়ায় দমবন্ধ হয়েই শ্রমিকদের মৃত্যু হয় বলে পুলিশ সূত্র জানিয়েছে। তবে দমকল কর্মীরা ১২টি ইঞ্জিন নিয়ে ঘটনাস্থলে দ্রুত পৌঁছিয়ে আগুনকে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসেন। নিহত শ্রমিকদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ বাবদ ১০লক্ষ টাকা করে দেওয়ার কথা সি এস এল-র পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। আহতদের দ্রুত উদ্ধার করে কোচি মেডিক্যাল ট্রাস্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের একজনের শরীরের ৪৫শতাংশই আগুনে পুড়ে গিয়েছে বলে জানিয়েছে হাসপাতাল সূত্র। আহত শ্রমিকদের চিকিৎসার বিষয়ে যাবতীয় ব্যবস্থার নির্দেশ দিয়েছেন কেরালার মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন। তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে নিহতদের পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন।

১৯৭৮সালে কোচির এই রাষ্ট্রায়ত্ত শিপ ইয়ার্ডের কাজ চালু হয়েছিল। এটিই দেশের সবচেয়ে প্রাচীন ও বৃহত্তম জাহাজ নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণ কেন্দ্র। সি এস এল সূত্র জানিয়েছে, এই জাহাজটি মেরামতির কাজের জন্য গত ৭ই ডিসেম্বর কোচির শিপইয়ার্ডে নোঙর করেছিল। আগামী ৭ই এপ্রিল এই কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement