মেয়রের পদত্যাগের
দাবিতে মিছিল রাজারহাটে

নিজস্ব সংবাদদাতা

বিধাননগর, ১৪ই ফেব্রুয়ারি— কলকাতা পৌরনিগমের মেয়রের নারদ কেলেঙ্কারির পর বিধাননগর পৌরনিগমের তোলাবাজির ঘটনা। মঙ্গলবার বিধাননগরের মেয়রের এক কোটি টাকা তোলা চাওয়ার অভিযোগ প্রকাশ্যে আসতে‍‌ই তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে অস্বীকারের প্রচেষ্টা শুরু হয়েছে। মেয়র সব্যসাচী দত্তের ফোন রেকর্ডিং প্রকাশ্যে আসার পরেও মেয়র অভিযোগকারীকে চিনি না বলে দায় এড়াতে চাইছেন। তোলাবাজি আর মিথ্যাচারের বিরুদ্ধে বুধবার বিধানগরের পৌরনিগমের অন্তর্গত রাজারহাট অঞ্চলে বিক্ষোভ মিছিল হয়। সি পি আই (এম) রাজারহাট ৩নং শহর এরিয়া কমিটির পক্ষ থেকে মেয়রের পদত্যাগ এবং গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়ে মিছিল হয়।

বিধাননগরের ব্যবসায়ী মধুসূদন চক্রবর্তী কলকাতা প্রেসক্লাবে অভিযোগ করেছেন সব্যসাচী দত্ত তাকে ত্রিপুরার নির্বাচনে প্রচারের জন্য এক কোটি টাকা চেয়েছেন। তিনি ইতিমধ্যে ২ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা দিয়েছেন। বাকি টাকা দেবার জন্য তাঁকে ফোনে হুমকি দেওয়া হচ্ছে। নিজের এবং পরিবারের সদস্যদের জীবনহানির আশঙ্কাও করেছেন। এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পর যথারীতি অস্বীকার যেমন করা হচ্ছে তেমনি ব্যবসায়ীকে প্রতারক বলা হচ্ছে। মেয়র সব্যসাচী দত্ত বলেছেন মধুসূদন চক্রবর্তীকে তিনি নাকি চেনেনই না। বিধায়ক ও মেয়রের পাশে দাঁড়িয়ে রাজ্যের মন্ত্রী ববি হাকিম বলেছেন এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা অভিযোগ। ঐ ব্যবসায়ী নিজেই একজন প্রতারক। তবে তৃণমূলের বিধাননগরের নেতারা কিন্তু মেয়রের সাথে ব্যবসায়ী যোগাযোগের কথা জানেন বলেই জানা গেছে। শাসকদলের প্রতাপশালী এই নেতার বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীর অভিযোগ ঘিরে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের সম্ভাবনাও উড়িয়ে দিচ্ছে না। এই ব্যবসায়ীর পিছনে তৃণমূলের কোনও বড় নেতার হাত আছে বলেই মনে করা হচ্ছে। কিন্তু মেয়র যে টাকা নিয়েছেন এবং বাকি টাকার জন্য দিন-সময় নির্দিষ্ট করে ব্যবসায়ীকে হুমকি দিচ্ছেন তার অডিও-ভিডিও প্রকাশিত হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে মুখ্যমন্ত্রী সব জানেন, তাঁকে জানিয়ে কোনও লাভ হবে না। মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরণায় এই তোলাবাজির ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই বিভিন্ন মহলে চাঞ্চল্য ছড়ায়।

এদিন সি পি আই (এম)-র পক্ষ থেকে বাগুইআটি বাজারের কাছে পার্টি কার্যালয় থেকে মিছিল শুরু হয়। বিভিন্ন পথ পরিক্রমা করে বাগুইআটিতে শেষ হয়। পার্টিনেতা শুভজিৎ দাশগুপ্ত, স্বদেশ প্রামাণিক মিছিলে উপস্থিত ছিলেন।

Featured Posts

Advertisement