শিক্ষা-স্বাস্থ্য-বস্তির বরাদ্দ টাকাও
খরচ করেনি কলকাতা পৌরসভা

নীল-সাদা আলো জ্বালতে ৩৮১কোটি টাকা!

নিজস্ব প্রতিনিধি   ১৩ই মার্চ , ২০১৮

কলকাতা, ১২ই মার্চ— নীল-সাদা ও ত্রিফলা আলো জ্বালাতে কর্পোরেশন খরচ করেছে ৩৮১কোটি টাকা। কলকাতার বস্তিবাসীদের জন্য বরাদ্দ মোট বাজেটের ৩শতাংশেরও কম টাকা! শিক্ষা, স্বাস্থ্য, বস্তির মতো গুরুত্বপূর্ণ খাতে বরাদ্দ টাকা খরচ করতেও পারেনি কলকাতা কর্পোরেশন!

এরাজ্যে শহরগুলিতে বস্তিবাসী মানুষের সংখ্যা ২২শতাংশ। এই গড় মহানগরীতে আরও বেশি। সেখানে দাঁড়িয়ে তৃণমূল পরিচালিত কলকাতা কর্পোরেশন আগামী আর্থিক বর্ষে বস্তিখাতে মোট বাজেটের ৩শতাংশেরও কম টাকা বরাদ্দ করেছে! চলতি আর্থিক বছরে বস্তি খাতে ১৪৮কোটি ৮৯লক্ষ টাকা বাজেট বরাদ্দ করা হলেও সেই টাকা খরচ করেনি কর্পোরেশন! বছর শেষে সংশোধিত বাজেটে খরচের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৯৭কোটি ১লক্ষ। বরাদ্দ বাজেট থেকে ৫১কোটি টাকা কম। এই পরিমাণ টাকা বস্তিবাসী মানুষের জন্য বরাদ্দ হলেও খরচ করেনি তৃণমূল পরিচালিত পৌরবোর্ড।

অথচ এখনও চূড়ান্ত অস্বাস্থ্যকর পরিবেশেই থাকতে হয় বস্তিবাসী গরিব মানুষজনকে। একইভাবে কর্পোরেশনের স্কুলগুলিতে শহরের গরিব পরিবারের ছেলেমেয়েরাই পড়তে আসে। সেখানেও বেহাল চিত্র। কমছে ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা। বন্ধ হয়েছে একাধিক স্কুল। ৩৮কোটি ৮৬লক্ষ টাকা বরাদ্দ ধরে খরচ করতে পারেনি সেই টাকা। ৫কোটি টাকা কম খরচ করেছে শিক্ষাখাতে।

মহানগরীর ৪৫লক্ষের বেশি মানুষের স্বাস্থ্যখাতে চলতি আর্থিক বর্ষে পৌরসভা বরাদ্দ করেছিল মাত্র ১৪৩কোটি ২৮লক্ষ টাকা। যে শহরে ডেঙ্গু থেকে ডায়েরিয়া মহামারীর চেহারা নেয়, সেদিকে তাকিয়েও বছর শেষে প্রায় ১০কোটি টাকা খরচ করে উঠতে পারেনি তৃণমূল পরিচালিত পৌর কর্তৃপক্ষ। মহানগরে গরিব মানুষের স্বার্থে সমাজকল্যাণ ও শহরের দারিদ্র দূরীকরণ খাতের বরাদ্দ টাকাও খরচ করেনি এই তৃণমূল পৌরবোর্ড। স্বাস্থ্য, শিক্ষা বা বস্তিতেই শুধু নয়, যে পানীয় জল পরিষেবা নিয়ে সারা বছর ঢাক পেটান মহানাগরিক শোভন চ্যাটার্জি— সেই জল সরবরাহ বিভাগও বরাদ্দের ৬৭কোটি টাকা খরচ করেনি।

তবে প্রসাধনী উন্নয়নে খরচের বহর লাফিয়ে বেড়েছে তৃণমূল আমলে! বাজেটের বিদ্যুৎ ব্যয়ের দিকে নজর দিলেই তা স্পষ্ট হয়ে যাচ্ছে। চলতি আর্থিক বছরে শুধু ৩৮১কোটি টাকা বিদ্যুতের জন্য খরচ হয়েছে। এর মধ্যেই রয়েছে রাস্তার ধারে বাতিস্তম্ভে জড়ানো নীল-সাদা আলো, অপরিকল্পিতভাবে লাগানো যথেচ্ছ ত্রিফলা ও মেটাল। এই বিদ্যুৎ ব্যয়ে আগামী অর্থবর্ষের জন্য বাড়িয়ে ৪০৮কোটি টাকা ধরা হয়েছে। কলকাতা কর্পোরেশনের স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও বস্তি খাতে মোট খরচের থেকে ১১৮কোটি টাকা বেশি শহরের বিদ্যুৎ ব্যয়!

এদিকে ২৩টি আয়ের উৎসের মধ্যে ১৪টিতেই লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছাতে ব্যর্থ হয়েছে তৃণমূল পরিচালিত কর্পোরেশন। বামফ্রন্ট কাউন্সিলর মৃত্যুঞ্জয় চক্রবর্তী বলেন, এই বাজেট অর্থহীন বাজেট। স্বাস্থ্য, শিক্ষা, বস্তির মতো গুরুত্বপূর্ণ খাতে বরাদ্দ টাকা খরচ করতে পারছে না পৌর কর্তৃপক্ষ। টাকা নেই। তবু আয়ের দিকেও নজর দিচ্ছে না। উলটে লক্ষ্যমাত্রা কমিয়েছে। মেয়র শোভন চ্যাটার্জির ভাষণ ছাড়া আর কিছুই নাগরিকদের পাওয়ার নেই এই বাজেট থেকে।

Featured Posts

Advertisement