মাধ্যমিকে হিন্দির প্রস্ন
ঘিরে চাঞ্চল্য, ক্ষোভও

নিজস্ব প্রতিনিধি   ১৩ই মার্চ , ২০১৮

কলকাতা, ১২ই মার্চ — শুরুতেই ধাক্কা খেল মাধ্যমিকের হিন্দি ভাষাভাষি ছাত্রছাত্রীরা। সিলেবাসের বাইরে একাধিক প্রশ্ন আসায় পরীক্ষা নিয়ে জেরবার হতে হলো তাদের। হিন্দি প্রথম ভাষায় মাধ্যমিক পরীক্ষায় এবার ২৭নম্বর সিলেবাসের বাইরে প্রশ্ন এসেছে। তিন নম্বর প্রশ্ন ভুলে ভরা। সিলেবাস বর্হিভূত প্রশ্ন আসায় মোট ৯০নম্বরের পরীক্ষার মধ্যে ৬০নম্বর প্রশ্নের উত্তর দিতে বাধ্য হয়েছে হিন্দি প্রথম ভাষার ছাত্রছাত্রীরা। হিন্দি ছাড়া মাধ্যমিকের বাংলা পরীক্ষার প্রশ্ন নিয়ে কোনও অভিযোগ পাওয়া যায়নি। সোমবার থেকে রাজ্যজুড়ে মাধ্যমিক পরীক্ষা ছাড়াও মাদ্রাসার পরীক্ষা শুরু হয়েছে। এবার মাধ্যমিকে ১১লক্ষের বেশি এবং মাদ্রাসায় ৭০হাজার ছাত্রছাত্রী পরীক্ষা দিচ্ছে বলে দুই পর্ষদ সূত্রের খবর। এদিকে শিলিগুড়িতে ব্যাপক যানজটের কারণে এদিন মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের বেশ ভোগান্তির মধ্যে পড়তে হয়েছে।

মাধ্যমিকে হিন্দি প্রথম ভাষার পরীক্ষার্থীদের সিলেবাসের বাইরে এতগুলি প্রশ্ন এর আগে কোনোদিন হয়েছে কিনা, তা মনে করতে পারছেন না শিক্ষকরা। হিন্দি প্রথম ভাষার মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের অভিযোগ, প্রশ্নপত্রের ৩নং খণ্ড-খ-এর ২টি প্রশ্ন সিলেবাসের বাইরে থেকে এসেছে। যা থেকে ৫নম্বর পাওয়া যায়। ৪নং প্রশ্নের খণ্ড-ক-এ ৩নম্বরের একটি প্রশ্ন এসেছে সিলেবাসের বাইরে থেকে। ৫নং প্রশ্নের যে তিনটির উত্তর দিতে বলা হয়েছিল, সবগুলি প্রশ্নই সিলেবাসের বাইরে ছিল। এই তিনটি প্রশ্নের মোট ১৫নম্বর ছিল। এছাড়া প্রশ্নপত্রে ১নম্বর করে ১৯টা প্রশ্নের উত্তর দিতে বলা হয়েছিল। প্রতিটি প্রশ্নের জন্য ১নম্বর করে বরাদ্দ ছিল। সেই ১নম্বর প্রশ্নের মোট ৪টি প্রশ্ন এসেছে সিলেবাসের বাইরে থেকে। মোট ২৭নম্বর প্রশ্ন এসেছে সিলেবাসের বাইরে থেকে। এছাড়া ৩নম্বর প্রশ্ন ভুলেভরা ছিল। সবমিলিয়ে ৩০নম্বর প্রশ্ন নিয়ে হিন্দি ছাত্রছাত্রীদের নাকাল হতে হয়েছে।

মোট ৩০নম্বর প্রশ্ন সিলেবাসের বাইরে আসা হিন্দি পরীক্ষার্থীদের অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে এক শিক্ষকের মত, এমন বিপর্যয় কোনোদিনই হয়নি। মডারেটরদের চূড়ান্ত গাফিলতিতেই সিলেবাসের বাইরে থেকে ৩০নম্বর প্রশ্ন পরীক্ষায় এসেছে। সিলেবাস নিয়ে তাঁরা যে যথেষ্ঠ ওয়াকিবহাল নয় তা প্রশ্নপত্রের ধাঁচ দেখেই বোঝা যাচ্ছে। এবারের মাধ্যমিকে ১১লক্ষের বেশি পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১লক্ষের বেশি হিন্দি প্রথম ভাষার পরীক্ষার্থী এদিন পরীক্ষা হলে প্রশ্নপত্র নিয়ে বিড়ম্বনায় পড়লেও, মাধ্যমিকের বাংলা পরীক্ষা এদিন নির্বিঘ্নেই শেষ হয়েছে। একইসঙ্গে মাদ্রাসার পরীক্ষাও এদিন নির্বিঘ্নে হয়েছে বলে মাদ্রাসা শিক্ষা পর্ষদের দাবি। ৭০হাজারের মধ্যে এবার ৫৬হাজার ছাত্রছাত্রী হাই মাদ্রাসা, ১০হাজার ছাত্রছাত্রী আলিম ও ৪হাজার ছাত্রছাত্রী ফাজিল পরীক্ষা দিয়েছে বলে পর্ষদের দাবি।

এদিকে পরীক্ষা কেন্দ্রে মোবাইল, ডিজিটাল ওয়াচ ও ক্যালকুলেটার নিয়ে ঢোকা যাবে না বলে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ নির্দেশিকা জারি করলেও, সাধারণ ঘড়ি ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা ছিল না। কিন্তু বেশ কয়েকজন ছাত্রী ঘড়ি পড়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে ঢুকতে গেলে বাধার মুখে পড়ে। ছাত্রীদের ঘড়ি খুলে রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়। বেথুন স্কুলে সিট পড়া কয়েকজন ছাত্রীর ক্ষেত্রে এই ঘটনা ঘটেছে। যা নিয়ে অভিভাবকদের মধ্যে ক্ষোভ তৈরি হয়।

এদিকে বাঁকুড়ার ইন্দাসের শাসপুর উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের পরীক্ষা কাঠামো নিয়ে এদিন ক্ষোভে ফেটে পড়েন অভিভাবক, পরীক্ষার্থীরা। এই স্কুলে এবছর ইন্দাসের আকুই ইউনিয়ন হাইস্কুল, আকুই ননীবালা গার্লস, মঙ্গলপুর হাইস্কুল, ও বেড়ঘোষ হাইস্কুলের মোট ৪৩৯জন ছাত্রছাত্রী মাধ্যমিক পরীক্ষা দিচ্ছে। পরীক্ষার হলে পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা না থাকা, পানীয় জলের অভাব, অপরিচ্ছন্ন শৌচাগার নিয়ে ক্ষোভ দেখান অভিভাবকরা। পরিকাঠামোর অভাব নিয়ে অভিভাবকরা লিখিত অভিযোগও জানিয়েছেন সেন্টার ইনচার্জের কাছে।

মথুরাপুরের এক পরীক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়ার ঘটনা ঘটেছে। দক্ষিণ ২৪পরগনার মথুরাপুরের কৃষ্ণচন্দ্রপুর হাইস্কুলের ছাত্র কুরবান শেখের সিট পড়েছিল মির্জাপুর হাইস্কুলে। শুরুতেই পরীক্ষা হলে সে অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাকে মথুরাপুর হাসপাতালে আনা হয় এবং প্রাথমিক চিকিৎসার পর সে হাসপাতালে বসেই পরীক্ষা দেয়।

শিলিগুড়ির ভেনাস মোড়, হাসপাতাল মোড়, কোর্ট মোড় চত্বরসহ একাধিক রাস্তায় যানজটের দীর্ঘ সময় আটকে থাকতে হয় মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের। ফলে ক্ষোভের সৃষ্টি হয় অভিভাবকদের মধ্যে। অভিভাবকদের কথায়, অপরিকল্পিতভাবে যানজট নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা হলে যা হয়। এবছর উত্তরবঙ্গ থেকে মোট ২লক্ষ ৩৫হাজার ৯২৪জন ছাত্রছাত্রী মাধ্যমিক পরীক্ষায় বসেছে। পরীক্ষার্থীদের সুবিধার্থে এদিন বিধাননগর সোশ‌্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটির পক্ষ থেকে বিনা ভাড়ায় যাতায়াতের বন্দোবস্ত করা হয়।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement