অকাল শিলাবৃষ্টিতে মাথায়
হাত কৃষকদের

নিজস্ব সংবাদদাতা   ১৪ই মার্চ , ২০১৮

শিলিগুড়ি, ১৩ই মার্চ — ফাল্গুনের অকাল শিলাবৃষ্টিতে মরশুমের শাকসবজি চাষের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। গত রবি ও সোমবার বিকালের পর অকাল শিলাবৃষ্টি হয়েছে শিলিগুড়িসহ সংলগ্ন বিভিন্ন এলাকায়। কোথাও বা হালকা, আবার কোথাও ভারী ধরনের বর্ষণ হয়েছে। কোথাও কোথাও শিলাবৃষ্টি হয়েছে। দুদিনই প্রায় এক ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে বৃষ্টিপাত হয়েছে। ফলে ফাঁসিদেওয়া ব্লকের হাজার হাজার কৃষকের মাথায় হাত উঠেছে।

অকাল শিলাবৃষ্টিতে ফাঁসিদেওয়া ব্লকের ফাঁসিদেওয়া গ্রাম পঞ্চায়েত ও জালাস নিমাজতারা গ্রাম পঞ্চায়েত দুটির কৃষিক্ষেত্রে বিপুল পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। মরশুমি ফসলের চাষ ক্ষতির মুখে। দুটি গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রায় ১৪ হাজার কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। দুদিনের শিলাবৃষ্টিতে ব্লকের প্রায় ৭০০ হেক্টর জমির ফুলকপি, বাধাকপি, বেগুন, শশা, উচ্ছে, ভেন্ডি, লাউসহ নানা শাকসবজির চাষ নষ্ট হয়ে গেছে। এই অবস্থায় কৃষকদের মধ্যে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে।

এমনিতেই চাষের কাজে কেউ ব্যাঙ্ক থেকে ঋণ নিয়েছেন। আবার কেউ বা দোকান থেকে ঋণ করে সার, বীজ, কীটনাশকসহ প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম ক্রয় করেছেন। কৃষকদের আশা ছিল জমির উৎপাদিত ফসল বাজারে বিক্রি করে যে টাকা পাওয়া যাবে তা দিয়ে ঋণ শোধ করবেন। কিন্তু দুদিনের শিলাবৃষ্টিতে তাদের আশায় ছাই পড়েছে। জমির উৎপাদন শিলাবৃষ্টিতে নষ্ট হয়ে গেছে। দুদিনের শিলাবৃষ্টিতে ফাঁসিদেওয়া ব্লকের কৃষিক্ষেত্রে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ প্রায় দুই কোটিরও বেশি বলে জানা গেছে। এই অবস্থায় ব্যাঙ্কের ঋণ শোধ করা তো দূরের কথা, সারা বছর কিভাবে অতিবাহিত হবে সেই ভাবনাই এখন ভাবাচ্ছে কৃষকদের। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের বক্তব্য,ভেবেছিলাম এবছর বাজারে শশার ভালো দাম পাবো। বাজার যা ছিল তাতে দাম ভালোই মিলতো। ফুলকপিরও পাইকারদের বড় অর্ডার ছিল। সেই অর্ডারই বা কিভাবে সামাল দেবো কিছুই বুঝে উঠতে পারছি না। অভিযোগ, এতো বড় সংকটের মুখেও আমাদের সহযোগিতায় এগিয়ে আসেনি প্রশাসন। একেবারেই নিশ্চুপ ব্লক প্রশাসন।

অভিযোগ, ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের নামের তালিকা তৈরির ক্ষেত্রেও দলবাজি করা হচ্ছে। তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত ফাঁসিদেওয়া ও জালাস নিজামতারা এই দুটি গ্রাম পঞ্চায়েতের পক্ষ থেকে কোনওরকম খোঁজখবর না নিয়েই ক্ষতিগ্রস্তদের নামের তালিকা প্রস্তুত করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তদের নামের তালিকা তৈরির বদলে নিজেদের পরিচিতদের নাম দিয়েই তালিকা ভর্তি করা হচ্ছে। ফলে প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

দুদিনের শিলাবৃষ্টিতে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত ফাঁসিদেওয়া ব্লকের বিস্তীর্ণ এলাকা মঙ্গলবার পরিদর্শন করেন শিলিগুড়ি মহকুমা পরিষদের সভাধিপতি তাপস সরকার। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের সাথে কথা বলে তাদের পাশে থাকার আশ্বাস দেন। তিনি জানান, ক্ষতির পরিমাণের একটি রিপোর্ট তৈরি করে রাজ্য সরকারের কৃষিদপ্তরে পাঠিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের স্বার্থে উপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করার আবেদন জানাবেন তিনি। পাশাপাশি কৃষকদের কৃষি ঋণ মকুবের বিষয়েও কৃষিদপ্তরে আর্জি জানানো হবে।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement