কর্ণাটকের ভোটপর্ব মিটতেই বাড়িয়ে
দেওয়া হলো পেট্রল ডিজেলের দাম

নিজস্ব প্রতিনিধি   ১৬ই মে , ২০১৮

নয়াদিল্লি, ১৫ই মে— কর্ণাটকের নির্বাচন ফল প্রকাশের পরই বাড়িয়ে দেওয়া হলো পেট্রল ডিজেলের দাম। প্রতিদিন পেট্রল ডিজেলের দাম সংশোধনের নীতি মোদী সরকার গত বছর জুন মাস থেকে কার্যকর করলেও শুধুমাত্র কর্ণাটক নির্বাচনের দিকে তাকিয়ে গত ২৪শে এপ্রিল থেকে এই দাম সংশোধন স্থগিত রাখা হয়েছিল। আবার তা চড়া হারে বাড়ানো শুরু হয়ে গেল। একই প্রক্রিয়া দেখা গিয়েছিল গত গুজরাট নির্বাচনের সময়। সেই রাজ্যের নির্বাচনের কিছুদিন আগে থেকে দাম সংশোধন কিছুদিন বন্ধ রাখা হয়েছিল। এদিকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এই সময়ে পেট্রল ডিজেলের দাম কম থাকলেও ভারতে তা লাফিয়ে বাড়ছে বলেই জানাচ্ছে বিশেষজ্ঞ মহল। অন্যদিকে পেট্রল ডিজেলে দাম কমাতে এর শুল্ক কমানোর যে দাবি তুলেছেন বিরোধীরা তা পুরোপুরি খারিজ করে দিয়েছেন পেট্রলিয়াম মন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান।

কর্ণাটক নির্বাচনের পরেই এদিন ফল ঘোষণার দিন পেট্রলের দাম বাড়লো দিল্লিতে লিটারে ৩২পয়সা। কলকাতায় তা ৩৩পয়সা, মুম্বাইয়ে ৩১পয়সা, ৩৪পয়সা চেন্নাইয়ে। ডিজেলে দাম বেড়েছে লিটারে দিল্লিতে ৪৩পয়সা, কলকাতায় ২৭পয়সা, ৪৬পয়সা মুম্বাই ও চেন্নাইয়ে। ইন্ডিয়ান অয়েল সূত্রে এই তথ্য জানা গিয়েছে। দাম সংশোধন হয়ে লিটার পিছু পেট্রলের দাম হয়েছে এদিন দিল্লিতে ৭৪.৯৫টাকা, কলকাতায় ৭৭.৬৫টাকা, মুম্বাইয়ে ৮২.৭৯ টাকা এবং চেন্নাইয়ে ৭৭.৭৭টাকা। ডিজেলের প্রতি লিটার দাম দিল্লিতে হলো ৬৬.৩৬টাকা, কলকাতায় ৬৮.০৯ টাকা, মুম্বাইয়ে ৭০.৬৬টাকা, চেন্নাইয়ে ৭০.০২ টাকা। ইন্ডিয়ান অয়েল সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রতিদিন দাম সংশোধনের নীতিতে শুধু এই বছরে পেট্রলে দাম বেড়েছে লিটারে দিল্লিতে ৪.৯৮ টাকা, কলকাতায় ৪.৯৩টাকা, মুম্বাইয়ে ৪.৯২টাকা এবং চেন্নাইয়ে ৫.২৪ টাকা। একইভাবে ডিজেলে লিটারে দাম বেড়েছে দিল্লিতে ৬.৭২টাকা, কলকাতায় ৬.০৬টাকা, মুম্বাইয়ে ৭.৩৯টাকা, চেন্নাইয়ে ৭.১৯টাকা। মোদীর আমলে পেট্রোল ডিজেলের এই হারে দাম বৃদ্ধি রেকর্ড বলেই জানিয়েছে বিশেষজ্ঞ মহল।

এদিকে গত এপ্রিল থেকে পেট্রল ডিজেলের দাম বাড়ানো না হলেও এই ১৯দিনে আন্তর্জাতিক বাজারে পেট্রোপণ্যের দাম বেড়েছে। পেট্রলিয়াম মন্ত্রক সূত্রে জানা গিয়েছে, ২৪শে এপ্রিল বিশ্বের বাজারে পেট্রলের দাম ছিল প্রতি ব্যারেল ৭৮.৮৪ডলার। যা বর্তমানে বেড়ে হয়েছে ব্যারেল প্রতি ৮১.৬১ ডলার। ডিজেলে প্রতি ব্যারেল ৮৪.৬৮থেকে বেড়ে হয়েছে ৮৭.১৪ ডলার। এই সময়ে ভারতে পেট্রোলের দাম বাড়লো লিটারে ৩২পয়সা, ডিজেলের ৪৩পয়সা। অন্যদিকে ডলারে টাকার দামও এই সময়ে কমে গিয়েছে। পেট্রল ডিজেলের দামে সরকারি নিয়ন্ত্রণ তুলে দেওয়ার নীতি কেন্দ্রের সরকার গ্রহণ করার সময় এতে প্রবল আপত্তি জানিয়েছিলেন বামপন্থীরা। তা মানা হয়নি। বলা হয়েছিল বাজারে দাম নিয়ন্ত্রণ মুক্ত হলে দাম কমবে পেট্রল ডিজেলের। কিন্তু দাম কোনোদিন কমেনি। উলটে চড়া হারে শুল্ক বসিয়ে পেট্রোল ডিজেল চড়া দামে বিক্রি করা হয়েছে দেশে। গত জুনে মোদী সরকার প্রতিদিন দাম সংশোধনের নীতি ঘোষণার সময় জানিয়েছিল এতে দাম কমবে পেট্রল ডিজেলের। দাম কমেনি উলটে রেকর্ড হারে তা বেড়েছে। আবার দেখা গিয়েছে, প্রতিদিন দাম সংশোধনের নীতি স্থগিত হয়ে যায় যখন নির্বাচন এসে যায়।

মোদী সরকার পেট্রল ডিজেলের শুল্ক বসিয়ে তার দাম যেমন বাড়িয়েছে তার সঙ্গে বেড়েছে বিপুল পরিমাণে সরকারের আয়। কেন্দ্রের অর্থমন্ত্রক সূত্রে জানা গিয়েছে, পেট্রল ডিজেল থেকে ২০১৩-১৪ সালে শুল্ক বাবদ আয় হয়েছে ৭৭হাজার ৯৮২কোটি টাকা, ২০১৪-১৫ সালে তা ৯৯ হাজার ১৮৪ কোটি টাকা, ২০১৫-১৬ সালে ১লক্ষ ৭৮ হাজার ৫৯১ কোটি টাকা। ২০১৬-১৭ সালে তা বেড়ে ২লক্ষ ৪২হাজার ৬৯১ কোটি টাকা। একই সঙ্গে পেট্রল ডিজেলের দাম নিয়ে কেন্দ্রের ভ্রান্ত নীতি আরও স্পষ্ট হয় বিশ্বের বাজার থেকে পেট্রল ডিজেলের কাঁচা মাল অপরিশোধিত তেলের দামের সঙ্গে দেশের পেট্রলে ডিজেলের দামের হার তুলনা করলে। অজুহাত দেওয়া হয় বিশ্বের বাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম বাড়লে দেশে পেট্রল ডিজেলের দাম বাড়ানো হয়। এই তথ্য সঠিক নয়। যেমন ২০১৪ সালের জুনে অপরিশোধিত তেলের দাম বিশ্বের বাজারে ছিল ১০৭.৭৩ডলার প্রতি ব্যারেল। সেসময় পেট্রলের দাম ছিল প্রতি লিটার ৭২.২৬ টাকা। ডিজেল প্রতি লিটার ৫৮.৪৮টাকা। এদিন ১৫ই মে অপরিশোধিত তেলের দাম ৭৬.৬৯ প্রতি ব্যারেল। হিসাবমতো পেট্রল ডিজেলের দাম অপরিশোধিত তেলের দাম কমার জন্য দাম কমা উচিত। উলটে দেখা যাচ্ছে দাম দ্বিগুণ হারে বেড়ে চলেছে। ভারতে এই দাম বেড়ে চললেও বিশ্বের বিভিন্ন দেশে তার দাম কিন্তু ভারতের থেকে অনেক কমই রয়েছে। যেমন বাংলাদেশে পেট্রল লিটার পিছু ৭০.১১ টাকা, ডিজেল ৫১.২১টাকা, নেপালে তা যথাক্রমে ৬৬.৫১ টাকা ও ৫৭.৫৯ টাকা, ভূটানে ৫৭.০২টাকা ও ৫৪.৪৫টাকা এবং পাকিস্তানে তা ৪৯.৬৬টাকা, ৫৫.০২টাকা।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement