শিলিগুড়িতে সরলীকরণ হচ্ছে
ট্রেড লাইসেন্স দেওয়ার পদ্ধতি দেওয়া হবে ট্রেড লাইসেন্স

নিজস্ব সংবাদদাতা   ১৭ই মে , ২০১৮

শিলিগুড়ি, ১৬ই মে— ভৌগোলিক কারণেই দেশের চিকেন নেক হিসাবে পরিচিত শিলিগুড়ি শহরে ট্রেড লাইসেন্সের চাহিদা বেশি। কাজেই ট্রেড লাইসেন্সের ক্ষেত্রে আইন যেমন মানতে হবে ঠিক তেমনি সহজ সরল পদ্ধতির মাধ্যেমেও লাইসেন্স দিতে হবে ব্যবসায়ীদের। শিলিগুড়ি শহরে ট্রেড লাইসেন্সের ক্ষেত্রে এমনই বার্তা বামফ্রন্ট পরিচালিত কর্পোরেশনের।

উত্তর-পূর্ব ভারতের সঙ্গে দেশের অন্য প্রান্তের যোগাযোগের একমাত্র রাস্তা দার্জিলিঙ জেলার শিলিগুড়ি শহরের ওপর দিয়েই। শিলিগুড়ি শহরকে ঘিরে রেখেছে চীন, নেপাল ও বাংলাদেশের মতো প্রতিবেশী রাষ্ট্র। তার ওপর দার্জিলিঙ জেলা কিংবা শিলিগুড়ি শহরে নেই কোনও শিল্প। বামফ্রন্ট সরকারের আমলে শিলিগুড়ি, বিধাননগর, নিউ জলপাইগুড়ি, ফুলবাড়িতে বেশ কিছু শিল্প গড়ে উঠলেও বর্তমান সরকারের আমলে কোনও শিল্পই নতুন করে গড়ে ওঠেনি। ফলে তিনদেশের সীমান্ত ঘেরা শিলিগুড়ি শহরসহ পার্শ্ববর্তী এলাকার অর্থ উপার্জনের প্রধান উপায় বাণিজ্য। আইনি জটিলতার কারণে ট্রেড লাইসেন্স আটকে থাকা মানেই সরাসরি অর্থনীতিতে ধাক্কা। শিলিগুড়ি পৌর নিগমের মেয়র পারিষদ (ট্রেড লাইসেন্স) কমল ‌আগরওয়ালের বার্তা আইনও মানতে হবে, আবার সহজ সরল পদ্ধতির মাধ্যমে লাইসেন্সও দিতে হবে।



আগে কোনও একটি পুরানো বাড়ির হোল্ডিং নম্বর দিয়ে ট্রেড লাইসেন্স আবেদনের ক্ষেত্রে সঠিক ‘বিল্ডিং প্ল্যান’ না থাকলেও হলফনামা দিয়ে আবেদন করলেই ট্রেড লাইসেন্স পাওয়া যেত। কিন্তু বেআইনি এই পদ্ধতি রুখতে শিলিগুড়ি কর্পোরেশনের বামফ্রন্ট বোর্ড সমস্ত দিক খতিয়ে দেখে তবেই নতুন ট্রেড লাইসেন্স দিচ্ছে। পৌরআইন অনুযায়ী যেকোনও বাড়ির ‘বেসমেন্ট’ বা ‘গ্রাউন্ড ফ্লোর’ খালি রাখতে হবে গাড়ির রাখার জন্য। শিলিগুড়ির ক্ষেত্রে দেখা গিয়েছে পূর্বতন বোর্ড বাড়ির ‘বেসমেন্ট’ বা ‘গ্রাউন্ড ফ্লোরে’ ব্যবসার জন্য লাইসেন্স ইস্যু করে দিয়েছে। বর্তমানে কোনও বাড়ির হোল্ডিং নম্বর দিয়ে নতুন ট্রেড লাইসেন্সের জন্য আবেদন করা হলে আগে দেখা হচ্ছে আবেদনকারী সংশ্লিষ্ট বাড়ির ঠিক কোন ফ্লোরটি বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহার করছেন। সম্প্রতি রাজ্য সরকার একটি আইন তৈরি করেছে ট্রেড লাইসেন্সের ক্ষেত্রে। যেখানে বলা হয়েছে, কোনও ব্যক্তি যদি কোনোরকম নথিপত্র ছাড়া শুধুমাত্র ফরম ফিলআপ করে ট্রেড লাইসেন্সের জন্য আবেদন করেন তাহলে তাঁকে এক বছরের জন্য ‘প্রভিশনাল ট্রেড লাইসেন্স’ দেওয়া হবে। এবিষয়ে মেয়র পারিষদ (ট্রেড লাইসেন্স) কমল ‌আগরওয়াল বলেন, আমরা রাজ্য সরকারের এই আইনটি মানলেও ‘প্রভিশনাল ট্রেড লাইসেন্স’ এর ক্ষেত্রে ‘ফায়ার সার্টিফিকেট’ বাধ্যতামূলক।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement