পঞ্চায়েত নির্বাচন নিয়ে ফের
রাজ্যের কাছে রিপোর্ট তলব কেন্দ্রের

নিজস্ব প্রতিনিধি   ১৭ই মে , ২০১৮

কলকাতা, ১৬ই মে— পঞ্চায়েত ভোটের হিংসা নিয়ে রাজ্যের পাঠানো রিপোর্টকে ‘অসম্পূর্ণ’ বলল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। ফের নতুন করে নবান্নের কাছে রিপোর্ট চাইলো কেন্দ্র।

গত সোমবার একদফার ভোটের দিনই ২৯জনের প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছিল। রাজ্যজুড়ে হিংসার ঘটনায় উদ্বিগ্ন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক রাজ্যের কাছে রিপোর্ট চায়। কিন্তু রাজ্যের পাঠানো রিপোর্টে সন্তুষ্ট হতে পারেনি কেন্দ্র। রাজ্যের রিপোর্টকে ‘অসম্পূর্ণ’ বলে ফেরত পাঠায় কেন্দ্র। আইনশৃঙ্খলা রাজ্যের এক্তিয়ারভুক্ত বিষয় হলেও যেভাবে পঞ্চায়েতে হিংসা নিয়ে রাজ্যের পাঠানো রিপোর্টকে কেন্দ্র প্রত্যাখান করলো তা নজিরবিহীন। এখন প্রশ্ন, এরপর রাজ্য সরকার কী করবে? কেন্দ্রের সঙ্গে সংঘাতে যাবে না, সংশোধিত রিপোর্ট কেন্দ্রের কাছে পাঠাবে, সেটাই দেখার।

ঘটনা হলো রাজ্যে পঞ্চায়েত নির্বাচনের দিন থেকে বুধবার পর্যন্ত ৩১জনের মৃত্যু ঘটেছে। কিন্তু প্রথম থেকেই নবান্ন চেষ্টা করেছে মৃত্যুর সংখ্যা ও পঞ্চায়েতের হিংসাকে কম করে দেখানো। ভোটের দিনই সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে রাজ্য পুলিশের ডি জি সুরজিৎ কর পুরকায়স্থ বলেছিলেন, ‘‘কয়েকটি বিক্ষিপ্ত ঘটনা হয়েছে। কয়েকজন মারা গিয়েছে। ৪৬হাজার বুথে আজকে ভোট প্রক্রিয়া হয়েছে। সেই তুলনায় বিক্ষিপ্ত কিছু ঘটনা ঘটেছে। পার্সেনেটেজের মধ্যে আসে না।’

ভোটের আগে মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন ভোটপর্বেই ১৪জন তৃণমূল কর্মী খুন হয়েছেন। ভোটের দিন ও তার ২৪ঘণ্টা পরেও যে ৩১জন মারা গিয়েছে তার অধিকাংশই শাসকদলের কর্মী। ভোট লুট করতে এসে জনরোষে পড়ে খুন হতে হয়েছে শাসকদলের কর্মীদের। কিন্তু রাজ্যের স্বরাষ্ট্র দপ্তর কমিশনকে দেওয়া রিপোর্টে জানিয়েছে ভোটের দিন মৃতের সংখ্যা মাত্র ছয়। এরাজ্যের সরকার নিজের দলের কর্মীদের মৃত্যুও স্বীকার করতে ভয় পায়! ঘটনা হলো, নবান্ন থেকে এই রিপোর্টই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রককে পাঠানো হয়েছে।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক তার নিজের সূত্র থেকে পাওয়া রিপোর্টের সঙ্গে রাজ্যের পাঠানো রিপোর্ট খতিয়ে দেখার পর ফের রাজ্যের কাছে হিংসা নিয়ে রিপোর্ট চেয়েছে। পঞ্চায়েত ভোটের হিংসা নিয়ে পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট চেয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।

Featured Posts

Advertisement