দন্ত বিশেষজ্ঞ ও হাততালির ছোট্ট দেশ

  ১৭ই মে , ২০১৮

রেইকিয়াভিক, ১৬ই মে— ঠান্ডায় দাঁত কপাটি লাগে প্রায়। আরে দেশটা তো আইসল্যান্ড! তবে চিন্তার কিছু নেই। হাততালি আর দন্ত বিশেষজ্ঞ থাকতে কিস্যু হবে না। বরং উত্তেজনায় ভুগবেন সমর্থকরা। ফুটবলে শিহরণ ধরাবে তিন লক্ষ তিরিশ হাজারের দেশ।

ফ্রান্সে আত্মপ্রকাশ আইসল্যান্ডের। প্রথম দর্শনে প্রেমের মতোই প্রথম আবির্ভাবে চমক দিয়েছিল ইউরোপের উত্তরের দেশ। ইংল্যান্ডের মতো ফুটবল কুলিন দেশের অহমিকা ভেঙে ছিল গোলের আঘাতে। সেই আইসল্যান্ডই এবার বিশ্বকাপের আসরের চমক। সবচেয়ে ছোট দেশ হিসাবে বিশ্বকাপের ছাড়পত্র পেয়েছে। দন্ত বিশেষজ্ঞ হেইমির হলগ্রিমসনের তত্ত্বাবধানে তৈরি হচ্ছে তুষারের দেশ। বছরের অধিকাংশ সময় বরফ ঢাকা থাকে। জনসংখ্যার থেকে নাকি মেষের পরিমাণ বেশি! ফাকা প্রান্তর অফুরন্ত হলেও, তা খেলার উপযুক্ত নয়। প্রতিবন্ধকতা অনেক। তাই ইন্ডোর গেমসের প্রতি ঝোক বেশি। ফলে ফুটবলের জনপ্রিয়তা বা প্রচার ছিল কম। বিংশ শতাব্দীতে ফুটবল উন্মাদনা ছিলই না। নতুন শতাব্দীতে শুরু হয় ফুটবল ভাবনা। ২০০৯ সালে কয়েকজন কোচ ইংল্যান্ডে এসে প্রশিক্ষণ নিতে আসেন। তারপর থেকেই শুরু হয় আইসল্যান্ডের ফুটবল বিপ্লব।

সমর্থকদের সঙ্গে যোগাযোগও ছিল না সেভাবে। যেদল গড়েই ওঠেনি সেভাবে; সাফল্য পায়নি সেভাবে তাদের আবার সমর্থন কী! সমর্থকদের পাশে টানার কাজ করেন হেইমির হলগ্রিমসন। সুইডিশ কোচ লার্স লাগেরব্যাক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন মাঠে। ফুটবলারদের নিয়ে। আর তাঁর সহকারী হেইমির হলগ্রিমসন সমর্থকদের কাছে আনছেন। ঘরের মাঠে যখনই ম্যাচ থাকে, ঠিক তার আগেরদিন রেইকিয়াভিকের পানশালায় পৌঁছে যান। ২০১৬ সাল থেকেই তোলফান গ্রুপের সমর্থকদের সমগ্র বিশ্ব চিনে গেছে। ম্যাচ শেষে গ্যালারি জুড়ে যে ছন্দবদ্ধ হাততালি তা এই তোলফান গ্রুপেরই তৈরি। যা ভাইকিং ক্ল্যাপ নামেই পরিচিত। যদিও এই তোলফান গ্রুপের এক সমর্থকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী এই হাততালি স্কটল্যান্ডের এক স্কুলের শিশুদের থেকে শেখা। সঙ্গে যোগ হয়েছে হলিউড সিনেমা ‘থ্রি হান্ড্রেড’-এর সমবেত ছন্দবদ্ধ কয়েকটি শব্দ।

ঘরোয়া সমর্থক আর নিজেদের পারফরম্যান্সে ভর করে টানা এগারোটি ম্যাচে অপরাজিত আইসল্যান্ড। বিশ্বকাপের যোগ্যতার্জন পর্বের ম্যাচে চেক সাধারণতন্ত্র, নেদারল্যান্ডস, তুরস্ককে দুবার করে হারিয়েছে আইসল্যান্ড। তবে এই সবই হয়েছে দন্ত বিশেষজ্ঞ হলগ্রিমসনের কোচিংয়ে। ইউরো কাপের পর লার্স লাগেরব্যাক দায়িত্ব ছাড়ার পর আইসল্যান্ডের দায়িত্ব নেন হলগ্রিমসন। নিজেই জানালেন ‘লার্স যখন দায়িত্ব ছাড়ল শুরুতে ভেবেছিলাম : আমার কি এই দায়িত্ব নেওয়া উচিৎ? সে সময় তুরস্ক আর ফিনল্যান্ডের বিরুদ্ধে ম্যাচ ছিল। ওই দুই ম্যাচের ফলের পর নির্ভর করছিল কি করবো!’ ওই ম্যাচ জেতার ফলে কোচিংয়ের দায়িত্ব পুরোপুরি নিজের কাঁধে নেন। সহকারী থাকার সময় দন্ত চিকিৎসার কাজ করতেন। সেই কাজই চালিয়ে যান। নিজেই বলেছেন, ‘এখন তো পুরোপুরি একাই দায়িত্বে। গ্রামের বাড়িতে গেলে তবু একটু আধটু চিকিৎসা করি।’

গত একদশকে ধারাবাহিকভাবে তৃণমূল পর্যায়ে ফুটবল প্রশিক্ষণের ফলে আইসল্যান্ডের ফুটবলাররা এখন প্রিমিয়র লিগ থেকে বুন্দেশলিগা সর্বত্র খেলছে। তাই বিশ্বকাপের দলে এভার্টন, অ্যাস্টন ভিলা, বার্নলে, কার্ডিফ সিটি থেকে শুরু করে উডিনেস, পি এস ভি আইন্দোভেনে খেলা ফুটবলারও রয়েছে। পেশাদার ফুটবলারের সঙ্গে রয়েছে এককালে চিত্র পরিচালনার কাজ করা গোলরক্ষক হানেস হালদরসন বা নামজাদা গিলপি সিগুরসন। বিস্ময়ে ভরা ক্ষুদ্রতম দেশ খেলবে বিশ্বের বৃহত্তম দেশ রাশিয়ায়। বিস্ময় উপহার দেবে সকলকে।

Featured Posts

Advertisement