ইঞ্জেকশনে আতঙ্ক,
শিশুকে মারধরে
অভিযুক্ত ডাক্তার

নিজস্ব প্রতিনিধি   ২৪শে মে , ২০১৮

কলকাতা, ২৩শে মে— ইঞ্জেকশন নিতে ভয়। মেজাজ হারিয়ে শিশুকে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ উঠল এক চিকিৎসকের বিরুদ্ধে। দক্ষিণ কলকাতার রানিকুঠিতে এই ঘটনাটি ঘটেছে। ওই চিকিৎসকের বিরুদ্ধে এদিন থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে পরিবার।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, আক্রান্ত শিশুটির নাম জাহ্নবী সাহা (৯)। তাঁর বাড়ি টালিগঞ্জের রানিকুঠিতে। বেশ কয়েক দিন ধরে দাঁতের সমস্যায় ভুগছে ছোট্ট জাহ্নবী। তাই পরিবারের লোক তাঁকে এক দন্ত চিকিৎসকের কাছে নিয়ে গিয়েছিলেন। রানিকুঠিতেই চেম্বার ওই চিকিৎসকের।

জাহ্নবীর বাড়ির লোকেদের দাবি, দাঁতে ইঞ্জেকশন দিতে গেলে খুব ভয় পেয়ে যায় দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রীটি। প্রচণ্ড কান্নাকাটি করতে শুরু করে। হাত-পাও ছুঁড়তে থাকে। এই করতে গিয়ে হঠাৎই দন্ত চিকিৎসকের হাত থেকে ইঞ্জেকশনটি পড়ে যায়। তাতেই মেজাজ হারান ওই চিকিৎসক। জাহ্নবীকে মারধর শুরু করেন। চেম্বারের বাইরে অপেক্ষারত বাড়ির লোকজন তারপর ভেতরে ঢুকে চিকিৎসকের সঙ্গে কথা কাটাকাটি শুরু করেন। সেখান থেকে জাহ্নবীর পরিবারের লোক সরাসরি নেতাজীনগর থানায় গিয়ে ওই চিকিৎসকের নামে অভিযোগ দায়ের করেন।

পরিবারের সদস্যরা অভিযুক্ত চিকিৎসকের বিরুদ্ধে এফ আই আর করেছেন। পুলিশ অবশ্য জানাচ্ছে, শিশুটির আঘাত তেমন গুরুতর নয়। তাঁকে বাড়িতেই রাখা হয়েছে। রাত পর্যন্ত ওই অভিযুক্ত চিকিৎসককে গ্রেপ্তার করা হয়নি।

দিন কয়েক আগেই শহরের একটি স্পিচ থেরাপি ইনস্টিটিউটে আড়াই বছরের এক শিশুকে নির্যাতনের অভিযোগে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছিল স্পিচ থেরাপিস্ট চৈতালী মুখার্জিকে। মারের চোটে শিশুটির মাথা ফেটে গিয়েছিল

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement