তৃণমূলের গোষ্ঠীসংঘর্ষ
ত্রস্ত কাঁকুরগাছি

নিজস্ব প্রতিনিধি   ১৩ই জুন , ২০১৮

কলকাতা, ১২ই জুন— দলের দপ্তরের দখল নিয়ে কাঁকুরগাছিতে তৃণমূলের গোষ্ঠীসংঘর্ষে উত্তেজনা ছড়ালো কাঁকুরগাছিতে। স্থানীয় ঘোষবাগানের দলীয় দপ্তর হাতে রাখতে সোমবার গভীর রাতে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে গন্ডগোল মারাত্মক চেহারা নেয়। অভিযোগ, বিধায়ক পরেশ পালের অনুগামীরা সশস্ত্র হয়ে হামলা চালিয়েছে মন্ত্রী সাধন পান্ডের অনুগামীদের উপর।

স্থানীয় মানুষ জানিয়েছেন, সোমবার রাত নটা থেকে শুরু হয় গন্ডগোল। প্রথমে বাদানুবাদ, তারপর রাত যতই বেড়েছে ততই সেই বিবাদ মারাত্মক চেহারা নিতে থাকে। গন্ডগোলের সূত্রপাত দলের এই দপ্তরে সাধন পান্ডের অনুগামীদের বসাকে কেন্দ্র করে। সেখানে রাত নয়টা নাগাদ সাধন পান্ডের অনুগামী চার যুবক টিভি দেখছিল। অভিযোগ তখনই পরেশ পালের অনুগামীরা তাদের বেরিয়ে যেতে বলে। শুরু হয় বচসা। অভিযোগ, এরপর পরেশ পালের অনুগামীরা মারধর শুরু করে।

মারধরে আহত সৌরভ মিত্রের দাবি, অন্য পক্ষের সুদীপ সাহা তাকে পিস্তলের বাট দিয়ে মেরেছে। এমনকি গলায় খুর চালাতেও যায় সুদীপ সাহার সঙ্গে থাকা এক যুবক। এখানেই অবশ্য গন্ডগোল থেমে থাকেনি। ভাঙচুর চলে তৃণমূলের দলীয় দপ্তরে। এর আগেও অনেকবার উলটোডাঙা থেকে কাঁকুড়গাছি পর্যন্ত তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের নানা ঘটনা ঘটেছে।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, সাধন পান্ডে আর পরেশ পালের অনুগামীদের মধ্যে গন্ডগোল নিত্য বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। সোমবার রাতে দুই দল অস্ত্র হাতে গোটা রাত দাপিয়ে বেরিয়েছে। স্থানীয়রা বারবার ফুলবাগান থানায় ফোন করলেও পুলিশ রাতে ঘটনাস্থলে আসেনি। তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বকে নিয়ে এলাকায় বোমাবাজি থেকে রক্তপাত রোজকার ঘটনা হয়ে দাঁড়াচ্ছে। তবে সোমবারের ঘটনার জেরে সাধন পান্ডের ঘনিষ্ঠরা ফুলবাগান থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। গভীর রাত থেকে পুলিশ এলাকায় টহলদারী শুরু করলেও এখনো কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি।

Featured Posts

Advertisement