মানুষের চাপেই বিরোধী
ঐক্য হবে: ইয়েচুরি

সংবাদসংস্থা   ১৩ই জুন , ২০১৮

লক্ষ্ণৌ, ১২ই জুন— নরেন্দ্র মোদীর সরকার যাতে দ্বিতীয়বার ফিরে না আসে তার জন্য মানুষ বিরোধী প্রার্থীদের সমর্থন করতে প্রস্তুত।মঙ্গলবার লক্ষ্ণৌয়ে এক সাংবাদিক বৈঠকে এই কথা বলেছেন সি পি আই (এম) সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি। সেখানেই তিনি বলেন, মানুষের চাপেই এবার বি জে পি-র বিরুদ্ধে বিরোধী দলগুলির ঐক্য হচ্ছে। বি জে পি বিরোধী দলগুলির মধ্যে ঐক্য গড়তে বামপন্থী দলগুলি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেবে বলেও তিনি জানান।

কেন্দ্রের মোদী সরকারকে তীব্র আক্রমণ করে তিনি বলেন, গত চার বছরে সমস্ত বিষয়ে ব্যর্থ হয়েছে। বি জে পি বলেছিল কাজ দেবে। কর্মসংস্থান সৃষ্টির পরিবর্তে মানুষ কাজ হারাচ্ছেন। আরও বেশি কৃষক আত্মহত্যার ঘটনা ঘটছে। সরকারের নীতিতে অর্থনৈতিক ব্যবস্থা সম্পূর্ণ ভেঙে পড়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। পেট্রপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, রাজ্যগুলি পেট্রল-ডিজেল জি এস টি-র আওতায় আনতে চাইছে না। তাহলে তাদের রাজস্ব কমে যাবে। কিন্তু তাহলেও পেট্রপণ্যের দাম কমানোর অনেক উপায় আছে। নির্বাচনের সময়ে বি জে পি প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল তারা সরকারে আসলে পেট্রপণ্যের আমদানি শুল্ক কমিয়ে দেওয়া হবে। অথচ সরকার গঠনের পর তারা সেই শুল্ক বাড়িয়ে দিয়েছে। যখন আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম কমছে। উলটো দিকে কেরালার এল ডি এফ সরকার পেট্রল-ডিজেলের দাম কমিয়েছে।

সি পি আই (এম) সাধারণ সম্পাদক জানিয়ে দেন, লোকসভা নির্বাচনের আগে জাতীয় স্তরে বিরোধী দলগুলির কোনও জোট হওয়া সম্ভব নয়। জোট হবে রাজ্যস্তরেই। সেখানে আঞ্চলিক দলগুলিই মূল শক্তি। লোকসভা ভোটের ফলপ্রকাশের পরেই একমাত্র জাতীয় স্তরে বিরোধী দলগুলি ঐক্যবদ্ধ হবে বি জে পি বিরোধী সরকার গঠনের জন্য। একইসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী হিসাবে কারোকে ঘোষণারও প্রয়োজন নেই বলে জানিয়ে দেন সি পি আই (এম) সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেন, ২০০৪সালে বি জে পি অটল বিহারী বাজপেয়ীকেই প্রধানমন্ত্রী হিসাবে ঘোষণা করে ভোট লড়েছিল। কিন্তু নির্বাচনের পরে প্রধানমন্ত্রী হলেন মনমোহন সিং।

ইয়েচুরি বলেন, কর্ণাটকে সরকার গঠনের ক্ষেত্রে বিরোধী দলগুলির ঐক্য গুরুত্বপূর্ণ হয়েছে। বিরোধী দলের নেতারা বি জে পি-কে হঠাতে তাঁদের দায়বদ্ধতা দেখিয়েছেন। দৃঢ় প্রত্যয়ে তিনি জানিয়ে দেন, আমরা আত্মবিশ্বাসী ২০১৯-এর লোকসভা ভোটেও মানুষ বি জে পি-কে পরাস্ত করবে।

সিঙ্গাপুরে আমেরিকা-গণতান্ত্রিক কোরিয়ার বৈঠক নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে সীতারাম ইয়েচুরি বলেন, এটা দুই কোরিয়ার মানুষের বিজয়। কিন্তু দেখতে হবে যে চুক্তি হয়েছে তা মান্য করা হয় কি না, কারণ এই চুক্তি মানতে হলে আমেরিকাকে দক্ষিণ কোরিয়া থেকে তাদের সামরিক ঘাঁটি সরিয়ে নিতে হবে। তাহলেও কোরিয়ার জনগণের জন্য এটা একটা ঐতিহাসিক দিন।

Featured Posts

Advertisement