বর্ষার আগমনী বার্তা নিয়ে
মানিখাঁর গ্রামে অতিথিরা

আলেক শেখ   ১৪ই জুন , ২০১৮

কালনা : ১৩ই জুন — কোনও আবহাওয়াবিদ বা হাওয়া দপ্তরের দিকে নয়। বর্ষার জন্য গ্রামবাসীরা তাকিয়ে থাকেন তাদের অতিথিদের আগমনের দিকে। অতিথিরা গ্রামে আসতে শুরু করলেই তাঁরা বুঝে যান যে বর্ষা দোরগোড়ায় এসে গেছে। এবার আমন চাষ শুরু করতে হবে। এরকম ঘটনা ঘটে আসছে দীর্ঘ ৩০ বছরকাল কালনা-১ নং ব্লকের কাঁকুরিয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের মানিখাঁর গ্রামে। এই গ্রামের অতিথিরা হলো ঝাঁক ঝাঁক পরিযায়ী পাখি। এরা প্রতি বছর বর্ষার সাথে মানিখাঁর গ্রামে আসে। গ্রামের ভিতর বিভিন্ন গাছপালায় বাসা বাঁধে, ডিম পাড়ে, বাচ্ছা ফোটায়। আশপাশের জলাশয়ে, চড়ে। মাছ, গুগলি- শামুক এনে বাচ্চাদের খাইয়ে বড় করে তোলে। বর্ষা শেষে গ্রাম ছেড়ে চলে যায়। বর্ষার আগমনী বার্তা দেয় বলেই এরা কৃষক বন্ধু। ফলে এই পরিযায়ী পাখিরা মানিখাঁর গ্রামের অতিথি। এই শামুকখোল জাতীয় পাখির মাংস অতি সুস্বাদু। তাই চোরা শিকারিদের উৎপাতও খুব বেশি।  চোরা শিকারিদের হাত থেকে বাঁচাতে গ্রামবাসীরা বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছে। তাঁরা বসে সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেউ পাখি মারলে এক হাজার টাকা জরিমানা। এই সুরক্ষা দেওয়ার জন্য পরিযায়ীরা  মানিখাঁর গ্রামে বারবার আসে। এবছরও তার ব্যতিক্রম হয়নি । ইতিমধ্যেই অতিথিরা ঝাঁকে ঝাঁকে এসে গেছে। এই গ্রামের যুবক তথা প্রাথমিক শিক্ষক টিঙ্কু মুর্মু জানান, এবার অতিথিদের সংখ্যা গত বছরের থেকে অনেক বেশি । তাই এদের সুরক্ষায় গ্রামবাসীদের পাশাপাশি সরকারেরও এগিয়ে আসা জরুরি। কিন্তু সে উদ্যোগ এখনও পর্যন্ত দেখা যায়নি। অথচ এই গ্রামে এসে পাখিদের দেখে  গেছেন মন্ত্রী, আমলা থেকে বন দপ্তরের বিভিন্ন আধিকারিকরা পর্যন্ত। কিন্তু মুখে ঘোষণা করা হলেও সরকার এখনও পর্যন্ত কিছুই করেনি।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement