আসামে পিটিয়ে হত্যার
ঘটনায় মূল অভিযুক্ত ধৃত

সংবাদসংস্থা   ১৪ই জুন , ২০১৮

গুয়াহটি, ১৩ই জুন — আসামে দুই যুবককে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় মূল অভিযুক্ত ধরা পড়ল পুলিশের জালে। বুধবার ভোরে কার্বি আঙলঙ জেলার বেলুরঘাট অঞ্চল থেকে জজ টিমাঙ ওরফে আলাফা নামের এই অভিযুক্তকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। এদিন একথা জানাতে গিয়ে কার্বি আঙলঙয়ের পুলিশসুপার এস পি গাঞ্জলা জানিয়েছেন। এই ঘটনায় জড়িত থাকা এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় গুজব ছড়ানোর অভিযোগে এদিন পর্যন্ত ৬৪জনকে পুলিশ আটক করেছে বলে জানিয়েছেন পুলিশসুপার।

গত শুক্রবার রাতে কার্বি আঙলঙ জেলায় ছেলেধরার গুজব রটিয়ে গুয়াহাটির বাসিন্দা দুই যুবককে পিটিয়ে হত্যা করে একদল উন্মত্ত জনতা। এই ঘটনায় পুলিশ তদন্তে নেমে জানতে পেরেছে, ওই দিন মূল অভিযুক্ত জজ টিমাঙ নিহত দুই যুবক নীলোৎপল দাশ ও তাঁর বন্ধু অভিজিৎ নাথের কালো স্করপিও গাড়িটি থামায়। টিমাঙই ছেলে ধরার গুজব ছড়িয়ে গ্রামবাসীদের ফোন করে ডেকে আনে বলে পুলিশ সূত্র জানিয়েছে। নিহত নীলোৎপল দাশ ও অভিজিৎ নাথের পরিবারকে ৫লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা এদিন জানিয়েছে কার্বি অঙলঙ স্বশাসিত পরিষদ। এদিন এই স্বশাসিত পরিষদের বৈঠক থেকে এই মর্মে সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন পরিষদের মুখ্য কার্যনির্বাহী সদস্য তুলিরাম রঙহাঙ। এদিকে, নিজের সন্তানের হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন নিহত দুই যুবক নীলোৎপল দাশ ও অভিজিৎ নাথের অভিভাবকরা। নীলোৎপল দাশের বাবা গোপালচন্দ্র দাশ এদিন জানিয়েছেন, ‘আমার ছেলে বহু জায়গায় ঘুরে বেড়িয়েছে কিন্তু নিজের রাজ্যেই এই ধরনের নৃশংস হামলার শিকার হবে তা কখনও ভাবিনি।’

শুক্রবার নিহত নীলোৎপল দাশ ও তাঁর বন্ধু অভিজিৎ নাথ কালো স্করপিও চড়ে ঘুরতে বেড়িয়েছিলেন। ফিরতে রাত হয়ে যাওয়ায় ডকমকা শহর থেকে প্রায় ১৬কিলোমিটার দূরে কার্বি আঙলঙের পানজুরি কাছাড়ি গ্রামে একদল লোক তাঁদের গাড়ি আটকায়। ছেলেধরার গুজবের জেরে বাঁশ, লাঠি হাতে জড়ো হওয়ায় একদল উন্মত্ত জনতা তাঁদের গাড়িতে হামলা করে। নীলোৎপল ও অভিজিতকে গাড়ি থেকে বের করে মারধর করা হয়। ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছানোর আগেই প্রাণ হারান একজন। দুই যুবককে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পৌঁছালে চিকিৎসকরা তাঁদেরকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement