গোর্কি সদনে ফুটবল নিয়ে প্রদর্শনী

নিজস্ব প্রতিনিধি   ১৪ই জুন , ২০১৮

কলকাতা, ১৩ই জুন— রাশিয়া বিশ্বকাপ ফুটবলের মহাসমারোহে উদ্বোধন, বৃহস্পতিবার ভারতীয় সময় রাত আটটায়। আকাশ পথে পাঁচ হাজার মাইলের দূর দেশ রাশিয়ার ঐতিহাসিক শহর মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে হবে উদ্বোধন অনুষ্ঠান ও প্রথম খেলা। উৎসাহের ছাপ কলকাতাতেও। কলকাতাসহ রাজ্যের সর্বত্রই ক্রীড়াপ্রেমী নানান ক্লাব, সংস্থা নেমে পড়েছে এই বিশ্বকাপ ফুটবলের প্রতিটি খেলা উপভোগ করার প্রস্তুতি নিয়ে।

বিশ্বকাপ এবার যেহেতু রাশিয়ায় তাই কলকাতায় রাশিয়ার উপদূতাবাস, ডেপুটি কনসুলেট দপ্তর ও ভারত–রাশিয়া সাহিত্য সংস্কৃতি চর্চা কেন্দ্র গোর্কি সদনে বিশেষ প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। গত ৭ই মার্চ বিশ্বকাপ ফুটবল নিয়ে গোর্কি সদনে প্রদর্শনীর উদ্বোধন হয়। প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন ডেপুটি কনসুলেট মিখাইল গুসেভ। তিনি কলকাতা তথা এই রাজ্য এবং দেশের মানুষের যুগোত্তীর্ণ রাশিয়া প্রীতির নানান দিক নিয়ে আলোচনা করেন। তিন মাসেরও বেশি সময় ধরে গোর্কি সদনে প্রতিদিন ফুটবল বিশ্বকাপ নিয়ে নতুন নতুন প্রচার উপকরণের প্রদর্শনী চলছে।

বৃহস্পতিবার উদ্বোধন উপলক্ষে হবে আরও বড় প্রদর্শনী। অবাধ প্রবেশের ব্যবস্থা। প্রদর্শনী খোলা থাকবে বিশ্বকাপের চূড়ান্ত খেলা চলা পর্যন্ত। গোর্কি সদনের কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এবার ফুটবল বিশ্বকাপ ২০১৮ রাশিয়ায় হওয়ায় রুশ ভাষা শিক্ষার চাহিদা বেড়েছে। এই ভাষা শিক্ষার ১২দিনের স্বল্প সময়ের পাঠক্রম থেকে শুরু করে ১মাস ও ৩মাসের পাঠক্রমেও ভিড় জমিয়েছেন সব বয়সের মানুষ।

একটানা কয়েক মাস ধরে কলকাতায় রাশিয়ার ভিসা অফিসে লক্ষণীয় ভিড় থেকেই স্পষ্ট রশিয়ার ফুটবল বিশ্বকাপ দেখার আগ্রহ কেমন। ভিসা অফিসে ভিড় হচ্ছে এই রাজ্য ছাড়াও দেশের পূর্বাঞ্চলের সবকটি রাজ্য, উত্তর-পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলি এবং আন্দামান-নিকোবরের ফুটবলপ্রেমী মানুষদের। তবে, এই ভিড় থেকে রাশিয়ায় বিশ্বকাপ ফুটবল দেখতে যাওয়া মানুষের সংখ্যার সম্পূর্ণ হিসাবটা পাওয়া যাবে না। কারণ, এবার বিশ্বকাপ ফুটবল খেলা দেখার টিকিট দাখিল করলেই হাতে মিলছে রাশিয়া যাবার ভিসা।

গোর্কি সদন কর্তৃপক্ষ এবং রাশিয়ার উপদূতাবাস সূত্র থেকে জানা গেল শুধু ভাষা শিক্ষাই নয়, রাশিয়ার বিভিন্ন দ্রষ্টব্য স্থান, তার সংক্ষিপ্ত ইতিহাসের সঙ্গে পরিচয়, ওখানকার মানুষের আদব-কায়দা, সৌজন্য বিনিময়ের রীতি ইত্যাদি জানতেও নিয়মিত যোগাযোগ বেড়ে গেছে প্রভূত। কলকাতাসহ সংলগ্ন এলাকার বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের সাংবাদিক ও তাছাড়াও বহু সাধারণ মানুষ এসব তথ্য জানতে যোগাযোগ করছেন। রাশিয়ার খাবার, পোশাক-পরিচ্ছদের বিশেষত্ব নিয়েও আগ্রহ প্রচুর।

এর মধ্যেও তাদের আক্ষেপ কলকাতা এবং এই দেশের সংবাদমাধ্যমের একাংশ জুড়ে চলছে সেই দেশ সম্পর্কে নানান অজ্ঞতার প্রচার। বলা হচ্ছে, রাশিয়ায় স্বাভাবিক সৌজন্য রীতি নেই। হাত বাড়ালে হাত মেলান না কোনও রাশিয়ান। হাতে ফুল ধরিয়ে দিলে সেই ফুল গ্রহণ করতেও গররাজি হন রাশিয়ানরা। এসবের কোনোটাই সত্য নয়।

রাশিয়ার ইতিহাস ও স্থাপত্য নিয়ে বিবরণমূলক প্রতিবেদনেও বিভ্রান্তির ছড়াছড়ি। রাশিয়ায় রাজতন্ত্র, পরবর্তীতে সমাজতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থা ও সোভিয়েত নির্মাণ এবং তার পরিবর্তনের অধ্যায় নিয়েও চলছে বেমালুম ভ্রান্ত সব প্রচার। এই বিভ্রান্তি থেকে সতর্ক থাকার আবেদন জানিয়েছে কলকাতার উপ-দূতাবাস। কারণ তা নাহলে রাশিয়ার সঙ্গে ভারত ও এই শহর কলকাতার দীর্ঘদিনের বন্ধুত্বের সম্পর্কের ক্ষতি হতে পারে। যা কখনই কাম্য নয়।

Featured Posts

Advertisement