তুতিকোরিনের ঘটনায় সি বি আই
তদন্ত ঠিক,বলল চেন্নাই হাইকোর্ট

সংবাদসংস্থা   ১৯শে জুন , ২০১৮

চেন্নাই: ১৮ই জুন— তুতিকোরিনে পুলিশের গুলি চালানোর ঘটনায় সি বি আই তদন্তের পক্ষে মত জানালো মাদ্রাজ হাইকোর্ট। গত ২২শে মে-র ওই ঘটনায় পুলিশের গুলিতে প্রাণ হারিয়েছিলেন ১৩ জন। দূষণের মরণ কামড়ের হাত থেকে বাঁচতে তুতিকোরিনে স্টারলাইটের তামা কারখানা বন্ধ করার দাবিতে সেদিন বিক্ষোভে শামিল হয়েছিলেন বিশাল সংখ্যক সাধারণ মানুষ। নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জেলাশাসকের কার্যালয় অভিমুখে সেই মিছিল যখন এগচ্ছে, তখন পুলিশ গুলি চালালে ১৩ জনের মৃত্যু হয়।

এ‍ই ঘটনায় বিশেষ তদন্তকারী দল গঠনের আবেদন জানিয়ে মাদ্রাজ হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেছেন আইনজীবী রজনীকান্ত। সেই আবেদনের শুনানিতে সোমবার প্রধান বিচারপতি ইন্দিরা ব্যানার্জির বেঞ্চ বলেছে, ওই ঘটনায় সি বি আই-কে দিয়ে তদন্ত করানোই ঠিক হবে। তবে প্রধান বিচারপতির বেঞ্চ এই বিষয়ে সরাসরি কোনও নির্দেশ দেয়নি। আদালত আবেদনকারীকে সি বি আই-র কাছে আরজি জানাতে বলেছে। একই সঙ্গে হাইকোর্ট এই বিষয়ে তামিলনাডু সরকারকে এক সপ্তাহের মধ্যে অবস্থান জানাতে বলেছে। মামলার পরবর্তী শুনানি হবে ৬ই জুলাই।

এদিনই মাদ্রাজ হাইকোর্টের আরেকটি বেঞ্চ তুতিকোরিনের ঘটনায় দুই আইনজীবীর আগাম জামিনের আবেদন খারিজ করে দিয়েছে। ওই দুই আইনজীবী হলেন বাঞ্চিনাথন এবং হরিরাঘবন। পুলিশ তাঁদের বিরুদ্ধে স্টারলাইটের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে হিংসা‌য় মদত দেওয়ার অভিযোগ এনেছে। ভারতীয় দণ্ডবিধির একাধিক ধারা এবং তামিলনাডু সরকারি সম্পত্তি (ক্ষতি রোধ) আইনের ধারায় তাঁদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে পুলিশের তরফে। এই দুজনই অতি-বামপন্থী সংগঠন মাক্কাল অথিকরমের সদস্য বলে পুলিশ জানিয়েছে।

উভয়েই পুলিশের যাবতীয় অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, নিরস্ত্র মানুষের উপর গুলি চালানোর মতো অনৈতিক কাজের দায় এড়াতে পুলিশ মনগড়া অভিযোগ সাজিয়েছে তাঁদের বিরুদ্ধে। তাঁদের আগাম জামিনের আবেদনের উপর আগের শুনানিতে মাদ্রাজ হাইকোর্টের বিচারপতি জি আর স্বামীনাথন এখনই পুলিশ এই দুজনের কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারবে না বলে নির্দেশ দিয়েছিলেন। কিন্তু এদিন শুনানিতে বিচারপতি দুই আইনজীবীর আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন। ফলে পুলিশের সামনে তাঁদেরকে গ্রেপ্তারে আইনত কোনও বাধা রইল না।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement