বন্যায় ফসল নষ্টের
ক্ষতিপূরণ চাইলেন কৃষকরা

নিজস্ব সংবাদদাতা   ১২ই জুলাই , ২০১৮

ধূপগুড়ি, ১১ই জুলাই— ‘কৃষি জমি বাঁচাও’— এই স্লোগানকে সামনে রেখে বুধবার কৃষকরা মিছিল করে বি ডি ও অফিসে ডেপুটেশন দিলেন। কৃষকরা এসেছিলেন ধূপগুড়ি বি ডি ও অফিস লাগোয়া বারঘরিয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের দামবাড়ি, মধ্য বোরাগাড়ি এবং দক্ষিণ ডাংগাপাড়া গ্রাম থেকে। কৃষকদের দাবি অবিলম্বে কুমলাই নদীর সেতু নির্মাণ করতে হবে এবং নদী ভাঙন রোধের ব্যবস্থা করে কৃষিজমি রক্ষার ব্যবস্থা করতে হবে।

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক দুর্গাচরণ রায়, কলেশ্বর রায়, বংশীবদন দাস, তরুণ রায়, প্রদীপ রায় প্রমুখ বলেন, জুন মাসের শেষ সপ্তাহ থেকে জুলাই মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহের প্রথম দুদিন পর্যন্ত অতি ভারী বর্ষণে বন্যা পরিস্থিতি দেখা দেয়। গ্রামের মধ্য দিয়ে বয়ে যাওয়া কুমলাই নদীর বাঁধ ভেঙে নদীর গতিপথ ঘুরে যায় এবং একটি সেতুও উড়ে যায় বারোঘরিয়া গ্রামপঞ্চায়েতের দাম বাড়ি, মধ্য বোরা গাড়ি, দক্ষিণ ডাংগা পাড়া মৌজার কয়েকটি গ্রামের প্রায় এক হাজার বিঘার জমির বিরাট ক্ষতি করে। বিশেষ করে ধানের বীজতলা একেবারে ধ্বংস হয়ে যায়। এছাড়া জমিতে থাকা অনান্য ফসল পাট এবং মাচানের বিভিন্ন সবজি খেতের ব্যাপক ক্ষতি হয়।

তাঁরা জানান, ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকের নাম এবং জমির পরিমাণের তালিকা করে বি ডি ও-র হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। গ্রামের কৃষকদের অভিযোগ কয়েকশো পরিবার এই ক্ষতির ফলে বিরাট সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন। গ্রামের সকলেই কৃষিকাজ করে জীবিকা নির্বাহ করেন। গ্রামে বন্যায় ফসল নষ্টের পরে কোনও সরকারি আধিকারিক তদন্তে আসেননি গ্রামে। কৃষকরা দাবি করেন ক্ষতিপূরণ দেবার। তাঁরা বলেন, ধান চাষের সময় হয়ে গেছে এর পর আলু এবং অন্যান্য শাকসবজি চাষের সময় চলে আসছে কিন্তু কি করে চাষের কাজ করা যাবে তাই নিয়ে চিন্তিত। ধূপগুড়ির বি ডি ও এদিন কৃষকদের মুখ থেকে ক্ষতির পরিমাণ জেনে এবং তাঁদের আন্দোলনের মেজাজ বুঝে তৎক্ষণাৎ একজন ইঞ্জিনিয়ারকে গ্রামে পাঠান বাঁধ এবং সেতুর অবস্থা দেখে মাপজোক করে আসতে। কৃষি কাজের কী ধরনের ক্ষতি হয়েছে কীভাবে পূরণ করা যায় তার জন্য বি ডি ও ব্লক কৃষি আধিকারিকের সাথে দ্রুত কথা বলার আশ্বাস দেন।

Featured Posts

Advertisement