বাজি পোড়ানোয় বাধা,
পিটিয়ে হত্যা শ্রমিককে

সংবাদসংস্থা   ১২ই জুলাই , ২০১৮

গুয়াহাটি, ১১ই জুলাই— বাজি পোড়ানোয় বাধা দেওয়ায় উন্মত্ত জনতার প্রহারে প্রাণ দিতে হলো এক শ্রমিককে। ঘটনাটি ঘটেছে আসামের নলবাড়ি জেলার গোরাথাল গ্রামে এক বিয়েবাড়িতে।

জানা গিয়েছে, কনের বাড়িতে বর আসার পর জোরকদমে বাজি পোড়ানো হচ্ছিল। সেইসময় বাজির স্প্লিন্টার ছিটকে এসে আঘাত করে যতীন দাস নামে এক শ্রমিককে। তিনি তখন বিয়েবাড়ির লোকজনকে বাজি পোড়াতে বারণ করেন। কিন্তু বিয়েবাড়ির লোকজন এতে আরও ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে তাঁকে প্রবল মারধর করে। শনিবার রাতে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান শ্রমিক যতীন দাস। এই খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ ওই বিয়েবাড়িতে গিয়ে কনে এবং তাদের আত্মীয়স্বজনদের থানায় ধরে নিয়ে আসে। বিয়েও বন্ধ করে দেয় পুলিশ। পরে প্রহারের ঘটনায় যুক্ত থাকার অপরাধে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৬জনকে।

এই ঘটনাটিকে ঘিরে প্রবল উত্তেজনা ছড়ায় গ্রামে। ক্ষুব্ধ গ্রামবাসীরা কনের বাড়ির উঠোনেই শ্রমিক যতীন দাসের শেষকৃত্য সম্পন্ন করবে বলে জোরালো দাবি জানাতে থাকেন। উত্তেজনা প্রশমিত করতে গ্রামে সি আর পি এফ মোতায়েন করা হয়েছে। আসামে ডি জি পি কুলাধার শইকিয়া ঘটনাটিকে ‘দুর্ভাগ্যজনক’ অ্যাখ্যা দিয়েই ক্ষান্ত হয়েছেন। তাঁর দাবি, গোরাথাল গ্রামের পরিস্থিতি এখন অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে। তদন্ত চলছে।

গত ৮ই জুন ছেলেধরার গুজব ছড়িয়ে কারবি আলঙ জেলায় দুজনকে এইভাবেই পিটিয়ে হত্যা করা হয়। নিহত দুজনের একজন মুম্বাইয়ে সাউন্ড রেকডিস্ট হিসাবে কাজ করতেন। অন্যজন ছিলেন ব্যবসায়ী। তাঁরা দুজনেই ওখানে প্রকৃতির যে নিজস্ব শব্দ আছে তা রেকডিং করতে গিয়েছিলেন। কিন্তু গুজব ছড়িয়ে তাঁদের হত্যা করা হয়।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement