বিষয়বস্তু বিশেষজ্ঞ পদ পরিবর্তন
বিধানচন্দ্রে, বিস্মিত এ টি আই

নিজস্ব সংবাদদাতা   ১২ই জুলাই , ২০১৮

কল্যাণী, ১১ই জুলাই— একাধিকবার জানিয়ে দেওয়ার পরও যেভাবে কৃষিবিজ্ঞান কেন্দ্রে ‘বিষয়বস্তু বিশেষজ্ঞ’ পদ পরিবর্তন করেছে বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় তাতে ‘বিস্মিত’ কৃষি প্রযুক্তি প্রয়োগ গবেষণা প্রতিষ্ঠান (এ টি আই কলকাতা)। হাওড়া কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্রে ‘প্রাণীবিজ্ঞান বিষয় বিশেষজ্ঞ’ অনুমোদিত পদটিতে ‘বীজবিজ্ঞান বিশেষজ্ঞ’ পদে একজনকে নিয়োগ করে বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়।

সম্প্রতি বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় তার অধীন কৃষিবিজ্ঞান কেন্দ্রগুলির জন্য বিষয়বস্তু বিশেষজ্ঞ পদে লোক নিয়োগ করে। ওই পদগুলিতে বিজ্ঞাপন দেওয়ার সময় ‘প্রাণীবিজ্ঞান’ বিষয় বিশেষজ্ঞ অনুমোদিত পদটি পরিবর্তন করার জন্য আর্থিক দায়িত্বভার যাদের সেই কৃষি প্রযুক্তি প্রয়োগ গবেষণা প্রতিষ্ঠান (এ টি আই, কলকাতা)-এর কাছে আবেদন জানিয়েছিল বিশ্ববিদ্যালয়। তখন তারা খুব পরিষ্কারভাবেই জানায়, কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্রগুলিতে প্রাণীবিজ্ঞান বিষয় বিশেষজ্ঞ রাখার প্রয়োজনীয়তা কতটা গুরুত্বপূর্ণ। কৃষির বিকাশে এটি একটি অন্যতম ‘উপাদানও’। তারা এও জানিয়ে দিয়েছিল, এইরকম ঘটনার ক্ষেত্রে কোনও আর্থিক দায়িত্ব তারা নেবে না।

এই নিয়োগের পরই কৃষি প্রযুক্তি প্রয়োগ গবেষণা প্রতিষ্ঠান (এ টি আই, কলকাতা)-এর অধিকর্তা ড. এস এস সিং বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে চিঠি দিয়ে তাঁদের আপত্তির কথা জানান। তিনি চিঠিতে উল্লেখ করেছেন, একাধিকবার এই বিষয়ে আলোচনার পরও যেভাবে প্রাণীবিজ্ঞান বিশেষজ্ঞ পদে অন্য বিষয় বিশেষজ্ঞ নিয়োগ করা হয়েছে তাতে তাঁরা এককথায় বিস্মিত। এরসাথে জানিয়ে দেন ওই পদের জন্য তাঁরা কোনোভাবেই তার আর্থিক দায়িত্ব নেবে না। ওই পদের মাইনে বন্ধ রাখার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ইতিমধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি সূত্রে জানা গেছে, ওই পদগুলিতে স্বজনপোষণ ও বেনিয়মের কারণে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেছেন তিনজন প্রার্থী। বিষয়বস্তু বিশেষজ্ঞের ১৪টি পদের মধ্যে ১১টি পদেই বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র যাঁরা বর্তমানে গবেষণা করছেন। ১জন ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত ছিলেন ও ১জন প্রাক্তন ছাত্র নিয়োগপত্র পেয়েছেন। রাজ্যের কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়, উত্তরবঙ্গ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে এই কৃষি বিজ্ঞান বিষয়ে পড়ানো হলেও সেসব বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনও ছাত্র-ছাত্রী এই নিয়োগে স্থান পায়নি। দূর অস্ত অন্য রাজ্যের পড়ুয়ারা। এ নিয়েও ক্ষোভ দেখা দিয়েছে বিভিন্ন মহলে।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement